শুক্রবার, আগস্ট 23, 2019

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

হাটের মাঝে হাম্বা ডাকে গরু জায়গা থাকার বেজায় গরম সরু। তারপরেও ম্যাঁ ম্যাঁ ডাকে ছাগল ভেড়া দেখে খাসি বোঝে পাগল।

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

হাটে হাটে পশুর ঘাটে দাম চড়েছে চড়া, দেশি গরু খাসির দামে বিক্রিতে তাই খরা। ধরা যেন না খেতে হয় বিক্রেতা ও ক্রেতার নজরদারি তাই প্রয়োজন সরব কিংবা বেতার।

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

ঈদ এসেছে নিদ কেটেছে ভিত গেড়েছে ডেঙ্গিতে তাইতো সবাই ঘরের ভেতর খুব জড়িয়ে ভীন গীতে। হবে কী ভাই আছে উপায় (?) যেতে হবে ওই হাটে, পশু কিনে আনতে হবে যাবো তবে...

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

ওষুধ এলো নতুন করে মশানিধন লাইন ধরে করতে হবে শেষ আহা! বেশে বেশ। কামড়াবি আর, বজ্জাদি ধার ডেঙ্গু দিবি শরীরে আবার মারবো ধরে চাটি পড়বে হুলে ভাটি

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

ভীত আমি, ভীত স্বজন ভীত সবাই ডেঙ্গিতে ভীতু হয়ে চলছি এখন ডুবে আছি সেই গীতে। হাসপাতাল ও কেন্দ্র সবই সময় কাটায় হিমসিমে বাড়ছে রোগী মরছে আবার ডেঙ্গি য্যানো যায় জিমে!

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

কষ্ট দারুণ যায় খুঁচিয়ে আগস্ট শোকের মাস রক্ত-ধোয়া মাতৃভূমি জাতির মনাকাশ। কারা ছিলো ওরা তারা দেশের শত্রু বটে ওদের জন্য দেশে আজও গুজবকা- রটে!

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

ভর করেছে ঠান্ডা-গরম জ্বর এসেছে শরীরে? ভাবছো বসে এমন দিনে এখন কী আর করি রে? অবহেলা নয় মোটেও যাও- গিয়ে হাসপাতালে পরীক্ষা করাও প্লাটিলেটের সংখ্যা, ক্যামন কাটালে!

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

ডেঙ্গু থেকে নিরাপদে থাকতো হবে সবার, জমছে কিনা ফ্রেশ পানি দেখতে হবে ক’বার। ঘরের মধ্যে ছিটিয়ে ওষুধ সুস্থ থেকে সব হয়! সচেতনতাই দিতে পারে ডেঙ্গু থেকে অভয়!

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

এবার ঈদে দেশি গরু বিদেশ থেকে নয় দেশের টাকা দেশের মাঝেই থাকুক যে অক্ষয়। নির্দেশনা আগেই দিছেন নন্দিত সরকার বৈধ কিংবা অবৈধপথ রুখে দাও এবার।

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

হাটে গুজব, ঘাটে গুজব গুজব শহর গাঁয়ে, কুচক্রীরা ছাড়ছে গুজব ডাইনে এবং বায়ে। গুজব শুনে কেউ নিওনা আইন হাতে তুলে, দুর্ঘটনা ঘটতে পারে একটুখানি ভুলে।