শুক্রবার, এপ্রিল 19, 2019

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

অগ্নি-আগুন পরি জ্বলছে তো জ্বলছে জ্বালিয়ে পুড়িয়ে মেরে হরদম চলছে। খেলছে জমের খেলা মানুষের মেলাতে দেবে কে উত্তর আগুনের বেলাতে?

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

ভক্ত আমি ভীষণ রকম ভাজা ইলিশ-পান্তার, কিন্তু জলজ ব্যবসায়ীরা দ্যায় বাড়িয়ে দাম তার। গুণে গুণে চার-পাঁচ গুণ আগুন হাকায় ইলিশ, এর পরেও ক্যামনে তোরা- এমন আগুন গিলিশ?

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

বসন্ত চলে যায় বৃষ্টিতে বৃষ্টিতে বদলেছে ঋতু বুঝি সৃষ্টিতে কৃষ্টিতে। আসছে নতুন দিন ঝরঝরে কড়কড়ে ধুলো ওড়া দিনগুলো খড়খড়ে খড়খড়ে।

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

হঠাৎ করেই উঠছে যে ঝড় বৃষ্টি সাথে শিল ভয় পেয়েছে খোকাখুকু আঁটছে ঘরে খিল। ঝড় উঠেছে মেঘ ডেকেছে পড়ছে শুধু বাজ, বদ্ধ ঘরে বন্ধ সবাই নেইকো কোনো কাজ।

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

সপ্তা ঘুরে আসছে আবার পহেলা বৈশাখ, সাজবে বসে খোকা খুকু বাজবে নতুন ঢাক। নতুন খুশি নতুন বছর আসবে শুভদিন, নতুন পোশাক নতুন সাজে বাজবে খুশির বীণ।

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

চৈতি রোদের তপ্ত হওয়া একি অনাসৃষ্টি ঝড় উঠেছে কালবোশেখের ঝুমঝুমাঝুম বৃষ্টি। শিল পড়েছে ঘর ধসেছে ভাঙছে গাছের ডাল, ঝড়ো হাওয়ায় উড়িয়ে নিলো ঘরের টিনের চাল।

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

গোধূল ধুলোয় আঁধার করে ওই উঠেছে ঝড় আসছে বোশেখ ধীরে ধীরে প্রকৃতি কড়কড়। সাথে আছে মেঘের মেয়ে বৃষ্টি বেগম নাম টাপুর টুপুর ভিজিয়ে দিতে এই না মাটি-ধাম।

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

রাতের বেলায় শীতের আমেজ সন্ধ্যাবেলা ঝড়, কাঠফাটা রোদ দুপুর বেলা, উঠছে তেঁতে ঘর। আবহাওয়ার এমন রীতি করছে ভীষণ ডর, ঠান্ডা-গরম লাগলে জানি আসবে কেঁপে জ্বর।

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

আগুন নিয়ে খেলছে কিছু দুষ্টুগোছের মানুষ, ছুটছে সদাই টাকার পিছু চোখে আঁটা ফানুস। তুমিও ব্যাটা মরতে পারো ওই আগুনে পুড়ে, লোভের টাকা রাখবে কী ভাই মাটির কবর খুঁড়ে?

ছন্দকথা প্রতিদিন – সৈয়দ আহসান কবীর

শূন্য দিয়ে শুরু সময় শূন্যতে তার শেষ শূন্যমাঝে আকাশ-জমিন শূন্যতা-ই বেশ। শূন্য গুণন আর সবই তো শূন্য হয়ে যায় শূন্যতেই তাঁর বসবাস মন সেদিকে ধায়।