নতুন রূপের শতবর্ষী বি. সরকার ঘূর্ণায়মাণ রঙ্গমঞ্চ উদ্বোধন
বঙ্গবন্ধুর কারাজীবনের ‘২৮৮ দিন’ মঞ্চস্থ

160
নতুন রূপের শতবর্ষী বি. সরকার ঘূর্ণায়মাণ রঙ্গমঞ্চ উদ্বোধন বঙ্গবন্ধুর কারাজীবনের ‘২৮৮ দিন’ মঞ্চস্থ

নিজস্ব প্রতিবেদক :
শতবর্ষী স্থাপনা যশোর ইনস্টিটিউটের বি. (বিশ্বেস্বর) সরকার মেমোরিয়াল ঘূর্ণায়মাণ রঙ্গমঞ্চ অবশেষে নতুন রূপে উদ্বোধন হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যার পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কারাজীবনের উপর আসাদুল ইসলাম রচিত ‘২৮৮ দিন’ নাটক মঞ্চায়নের মধ্য দিয়ে এ ঘূর্ণায়মাণ রঙ্গমঞ্চের উদ্বোধন করা হয়। ঢাকা থেকে ভার্চুয়ালে এর উদ্বোধন করেন স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য।
এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক ও যশোর ইনস্টিটিউটের সভাপতি মো. তমিজুল ইসলাম খান। সভাপতিত্ব করেন যশোর ইনস্টিটিউটের সাধারণ সম্পাদক ডা. মো. আবুল কালাম আজাদ লিটু। স্বাগত বক্তব্য রাখেন নাট্যকলা সংসদ সম্পাদক অ্যাডভোকেট চুন্নু সিদ্দিকী।
অনুষ্ঠানে নাট্য ব্যক্তিত্ব নজরুল ইসলাম ও পরিবেশকর্মী গ্রিণ ওয়ার্ল্ড এনভায়রনমেন্ট ফাউন্ডেশনের পরিচালক শেখ আশিক মাহমুদ সবুজকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।
উদ্বোধানী পর্ব শেষে যশোর ইনস্টিটিউটের প্রযোজনায় এ নাটক মঞ্চস্থ হয়। নাটকে পাকিস্তানের কারাগারে ২৮৮ দিনে স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্টা, বাংলার অবিসংবাদিত নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অনিশ্চিত জীবনের ঘটনাপ্রবাহ তুলে ধরা হয়। সে সময়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিটি ক্ষণ যেন মৃত্যুর মুখে দাঁড়িয়ে থাকা, মানষিক ও শারীরিক নির্যাতনের মাধ্যমে মূলত বঙ্গবন্ধুর মনোবল গুড়িয়ে দেওয়ার নীল নকশা করেছিল পাকিস্তানী সামরিক জান্তা- কিন্তু বঙ্গবন্ধু দমে যায়নি। বঙ্গবন্ধুর এই হার না মানা সময়ের এক ভীতিকর, অজানা উপাখ্যান প্রতিভাত হয় ‘২৮৮ দিন’ নাটকের মাধ্যমে। ঘটনাপ্রবাহের সাথে নাটকের চরিত্রাভিনেতার অনুপম হৃদয়গ্রাহী অভিনয়, আলোক প্রক্ষেপণ, মঞ্চ সজ্জা, আবহসংগীত উপস্থিত দর্শকদের মন কেড়ে নেয়।
বঙ্গবন্ধুর চরিত্রে অভিনয় করেন আব্দুল আফ্ফান ভিক্টর। নাটকে বঙ্গবন্ধুর চরিত্রটি তিনি অনন্যভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন। তেজদীপ্ত এবং অনমনীয় ব্যক্তিত্ব নিয়ে অবিরাম পশ্চিম পাকিস্তানের চতুর বুদ্ধিমান ইয়াহিয়া খান, টিক্কা খানদের মতো ডিপ্লোম্যাটিক চরিত্রদের সঙ্গে লড়ে যাওয়া ও বর্ণনা সত্যিকারের বিশ্বরাজনীতির কবি বঙ্গবন্ধুকে অনুধাবন করান দর্শকদের তিনি।
ইয়াহিয়া খানের চরিত্রে জাহাঙ্গীর হোসেন খোকন, টিক্কা খানের চরিত্রে সাজেদুর রহমান অপু, জেলার চরিত্রে শাহিন ইসলাম বিশাল, আমির তাহিরীর চরিত্রে সোহানুর রহমান সোহাগ, রহিমুদ্দীন খান চরিত্রে আনিসুজ্জামান পিন্টু, অফিসার চরিত্রে অরন্য মেহরাজ ও এসএম আব্দুর রব, জেলা সুপার চরিত্রে তানজির হাসান রাশেদ, কয়েদি স্বপন দাস, গোর খোদক আকামত আলী, গার্ড আব্দুর রউফ, হাবিব ও আজিজ চরিত্রে রাকিব-উদ-দৌল্লা, ভুট্টো চরিত্রে শফিকুল আলম পারভেজ অভিনয় করেন। এছাড়া কমান্ডো চরিত্রে অভিনয় করেন নিলয়, রোদ্র, বিদ্যুৎ, তাবিব, বাপ্পা, সৌমিক, ফুয়াদ, অর্নব, কলি, শুভ, নিশান, রায়াত, কৃষ্ণ, মহিদুল ও রুয়েল। মন প্রাণ উজাড় করে অভিনয় করেন সকলে। নাটকটির নির্দেশনায় ছিলেন কামরুল হাসান রিপন ও অ্যাড. চুন্নু সিদ্দিকী।

উল্লেখ্য, শিল্পকলা একাডেমির শতবর্ষী স্থাপনায় ঠাঁই পাওয়া যশোরের গর্ব বি. (বিশ্বেস্বর) সরকার মেমোরিয়াল ঘূর্ণায়মাণ রঙ্গমঞ্চ। যা অযত্ন অবহেলায় দীর্ঘদিন পড়েছিল। যশোর ইনস্টিটিউট পরিচালনা পর্ষদের (২০২০–২০২৩) সভাপতি জেলা প্রশাসক মো. তমিজুল ইসলাম খানের নির্দেশনা ও আর্থিক সহায়তায় এবং সাধারণ সম্পাদক ডা. আবুল কালাম আজাদ লিটুর সার্বিক তত্বাবধানে এ সংস্কার কাজ সম্পন্ন হয়।
এ বিষয়ে যশোর ইনস্টিটিউটের সাধারণ সম্পাদক ডা. আবুল কালাম আজাদ লিটু জানান, হারিয়ে যাওয়া ‘বি সরকার মেমোরিয়াল হল’ নিজস্ব নাম আমরা ফিরিয়ে এনে ঐতিহাসিক এ মঞ্চটিকে আধুনিক করেছি-যেখানে আজ নতুন আঙ্গিকে নতুন নাটক ‘২৮৮ দিন’ মঞ্চস্থ হলো। আশা করি এ নাটক মঞ্চায়নের মধ্য দিয়ে নাট্যকলা সংসদ তাদের চলমান কার্যক্রমকে আরও সুসংসহ করবে।
উল্লেখ্য, মঞ্চনাটককে দৃশ্য থেকে দৃশ্যায়নের বিশ্বস্ত প্রাণবন্ত উপস্থাপন ও দর্শকগ্রাহী করতে যশোরের বি (বিশ্বেস্বর) সরকার মেমোরিয়াল ঘূর্ণায়মান মঞ্চ নির্মিত হয় ১৯২১ সালে। যা দেশের মধ্যে দ্বিতীয়, প্রথমটি বগুড়ার উডবার্ন হল। কোলকাতার বিখ্যাত গিনি হাউসের মালিক বিশ্বেস্বর সরকার (যাঁর আদি নিবাস যশোরের চৌগাছায়) এ হল নির্মাণে আর্থিক সহায়তা করেন।
এ মঞ্চে একটি নাটকের একইসাথে তিনটি সেট নির্মাণ করে নাটক মঞ্চস্থ করা যায়।