যশোরে একই মামলায় ‘পক্ষে-বিপক্ষে’ সাক্ষ্য!
সাক্ষীকে কাঠগড়ায় তিনঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকার শাস্তি

106
যশোরে ছেলে ও পুত্রবধূর বিরুদ্ধে মায়ের মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক :
একই মামলায় ‘পক্ষে-বিপক্ষে’ বক্তব্য দেয়ায় আলাউদ্দিন মাস্টার নামে এক ব্যক্তিকে তিন ঘন্ট আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে থাকার শাস্তি দিয়েছে আদালত।

বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২)  যশোর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এই ঘটনা ঘটে। শাস্তিপ্রাপ্ত আলাউদ্দিন মাস্টার শার্শা উপজেলার খড়িডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ঝিকরগাছা উপজেলার পুরন্দরপুর গ্রামের শওকত আলীর স্ত্রী খাদিজা বেগম ২০১৬ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি হাড়িয়া দেয়াড়া গ্রামের ইসমাইল মুন্সির ছেলে আলমগীর কবিরের বিরুদ্ধে যশোর আদালতে মামলা করেন। মামলার অভিযোগে বলা হয়, আলমগীর একটি জমি বিক্রির কথা বলে খাদিজার কাছ থেকে ৯০ হাজার টাকা নেন। কিন্তু জমি লিখে না দিয়ে টাকা আত্মসাৎ করেন। এ মামলার সাক্ষী ছিলেন আলাউদ্দিন মাস্টার। তিনি ২০২০ সালের ৭ জানুয়ারি আদালতে ওই মামলায় বাদীর পক্ষে সাক্ষী দেন। এসময় তিনি বলেন, তিনি আসামি ও বাদীকে চেনেন। আলমগীর জমি লিখে নেয়ার জন্য টাকা নেন ঠিকই জমি লিখে দেননি। টাকাও ফেরৎ দেননি। যা নথিভুক্ত করেন যশোর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ৪র্থ আদালতের তৎকালীন বিচারক মাহাদী হাসান।
এদিকে, গতকাল বৃহস্পতিবার মামলার ধার্যদিনে আলাউদ্দিন মাস্টার আসামি পক্ষের সাক্ষী হিসেবে আদালতে আবারও জবানবন্দি দেন। জবানবন্দিতে তিনি বলেন, ওই জমি কার সে বিষয়ে তার কিছু জানা নেই। বাদী কবে মামলা করেছে সেটাও তিনি জানেন না।
এছাড়া এর আগে তিনি আদালতে যে সাক্ষ্য দিয়েছেন, সে সব কথা মিথ্যা। এছাড়া নানা ধরণের অসঙ্গতিপূর্ণ বক্তব্য দেন আলাউদ্দিন মাস্টার। বিষয়টি বিচারকের নজরে আসে। এক পর্যায়ে আলাউদ্দিন মাস্টারকে কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে থাকার আদেশ দেন বিচারক আরমান হোসেন। প্রায় তিন ঘন্টা পর তাকে মুক্তি দেয়া হয়।
এদিকে বিচারকের এ সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানান এজলাসে উপস্থিত থাকা আইনজীবীরা। এই শাস্তি এধরণের কর্মকাণ্ড রোধে সাক্ষীদের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করবে বলেও দাবি করেন আইনজীবীরা।