সুরধুনী সংগীত নিকেতন যশোরের ‘বর্ষার গান’ শীর্ষক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

101
সুরধুনী সংগীত নিকেতন যশোরের ‘বর্ষার গান’ শীর্ষক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

নিজস্ব প্রতিবেদক :
এ বছর বর্ষাঋতু পেরিয়ে শরতেও দেখা নেই কাঙ্খিত বর্ষার। তাপদাহে জর্জরিত জনজীবন। বর্ষা তার স্বরূপে ফিরে আসুক; আনুক জনজীবনে স্বস্তি; এমন আশায় শরতের প্রায় মাঝামাঝিতে বর্ষা বন্দনায় যশোরে হয়েছে ‘বর্ষার গান’ শীর্ষক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সুরধুনী সংগীত নিকেতন যশোরের আয়োজনে শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে শুক্রবার বিকেলে এ গানের অনুষ্ঠান হয়। বর্ষা নিয়ে লেখা রবীন্দ্র, নজরুল, আধুনিক কথামালায় সুর লয় ছন্দের সাথে আবৃত্তি, গান আর নৃত্যের ঝংকারে ‘বর্ষা বন্দনা’য় মেতে ওঠে নিকেতনের শতাধিক শিক্ষার্থী শিল্পী।

এতে সংক্ষিপ্ত আলোচন পর্বে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. তমিজুল ইসলাম খান। সভাপতিত্ব করেন নিকেতনের সভাপতি হারুন অর রশীদ। স্বাগত বক্তব্য দেন নিকেতনের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মাহমুদ হাসান বুলু। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন নিকেতনের অধ্যক্ষ অর্ধেন্দুপ্রসাদ ব্যানার্জী।

নিকেতনের বড় শিল্পীদের কণ্ঠে সমবেত সংগীত ‘শ্রাবণের গগনের গায়..’ গানের মাধ্যমে শুরু হয় এ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এরপর সমবেত আবৃত্তি ‘বৃষ্টি পড়ে টাপুর টুপুর’ পরিবেশন করে শিশুরা

একক সংগীত পর্বে ‘বৃষ্টি বৃষ্টি বৃষ্টি…’ পরিবেশন করেন সেঁজুতি দাস, প্রিয়তি পারমিতা গেয়ে শোনান ‘কদম্বেরই কানন…’, আদৃতা সিংহ রায় শোনান ‘টিপ টিপ টুপটাপ বৃষ্টি..’, কৃষ্ণদেব ভক্ত পরিবেশন করেন ‘আজ ঝর ঝর মুখর বাদর দিনে…’, সিঁথি সাহা শোনান ‘আবারো কি এলো বাদল…’, মিতু রানী কুণ্ডু শোনান ‘ওগো বৃষ্টি আমার..’, তিথি অধিকারী শোনান বর্ষার প্রথম দিন…’, গিয়াস উদ্দীন পরিবেশন করেন ‘আজ এই বৃষ্টির কান্না দেখে…’, প্রিয়াংকা মজুমদার শোনান ‘আকাশে আজ রঙের খেলা…’, ফাল্গুনী সজ্জন শোনান ‘আকাশ মেঘে ঢাকা…’, শচীন বর্মন শোনান- ‘এমনি বরষা ছিল…’, দীপান্বিতা সাহা শোনান ‘কাজরি গাহিয়া এসো…’, সুমন শেখ শোনান ‘এই মেঘলা দিনে একেলা…’, ললিতা বিশ্বাস পরিবেশন করেন ‘বারিধারা ঘন আঁধারে…’, ডলি রহমান পরিবেশন করে ‘আমার ভিতর বলে তুমি…’, ‘আষাঢ় শ্রাবণ মানে না তো মন…’ গেয়ে শোনান স্বর্ণপাল তুলি, তরিকুল ইসলাম ইসলাম গেয়ে শোনান ‘আজ বৃষ্টির দিন…’।

এছাড়া নিকেতনের শিক্ষার্থী শিশুরা সমবেত সংগীত ও নৃত্য পরিবেশন করেন।

যন্ত্রানুসঙ্গে ছিলেন অমিতাভ রাজ ও সুজন দাস (তবলা), অমিতাভ রাজ ও মনোজিৎ (অক্টোপ্যাড), অনি (গিটার) ও অমলেন্দু বৈরাগী (কি-বোর্ড)। উপস্থাপনায় ছিলেন তরিকুল ইসলাম ও দোলন চাঁপা।