পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই যশোর পৌরসভায় পানির বিল বাড়লো ২০টাকা

75
পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই যশোর পৌরসভায় পানির বিল বাড়লো ২০টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক :
পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই যশোর পৌরসভা এলাকায় সাপ্লাই পানির বিল ২০ টাকা বৃদ্ধি করা হয়েছে। গ্রাহক প্রতি বিল বৃদ্ধি করা হয়েছে ২০ টাকা। বর্ধিত বিল পেয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন পৌরবাসী।

পৌর কর্তৃপক্ষ বলছে, পানির সেক্টরে ভর্তুকি দিতে হয় মোটা অংকের টাকা। ঘাটতি পূরণে বিল বৃদ্ধি করা হয়েছে। এতে করে কোন সমস্যা হওয়ার কথা না।

গ্রাহকদের দাবি কোন পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই পৌরসভা পানির বিল বৃদ্ধি করতে পারে না। সাধারণ নাগরিককে সম্মান দেখিয়ে নূন্যতম পূর্ব ঘোষণার দরকার ছিল।

জানা গেছে, যশোর পৌরসভার ২৯ পাম্প থেকে ৯টি ওয়ার্ডে পানির গ্রাহক ১৫ হাজার।  প্রতিদিন ভোর ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত  পৌরসভার পানি সাপ্লাই পায় গ্রাহকেরা। তবে বর্তমানে লোডশেডিংয়ের কারণে গ্রাহক ২ ঘন্টা থেকে চার ঘন্টা পানি সাপ্লাই থাকে।

সহকারী প্রকৌশলী কামাল আহম্মেদ জানান, প্রিপ্রেইড মিটার স্থাপন করায় পাম্প চালানোর জন্য আগে মিটারে টাকা রিচার্জ করতে হয়। একারণে মিটার রিচার্জ, কর্মচারিদের বেতনসহ আনুসঙ্গিক খরচে পৌরসভার মাসে ব্যয় ৪১ লাখ টাকা। পানির বিল বাবদ আদায় হয় ৩৩ লাখ টাকা। পানি সাপ্লাইখাতে প্রতি মাসে প্রায় ৮ লাখ টাকা ঘাটতি।

এ  ঘাটতি পূরণে বর্তমান পৌরপরিষদ ৩১ জুলাই সভা করে পানির বিল গ্রাহক প্রতি ২০ টাকা বাড়িয়ে দিয়েছে। হাফ ইঞ্চি ব্যাসের পাইপ লাইনের মাসিক বিল ১৭০ টাকার স্থলে ১৯০ টাকা করা হয়েছে। থ্রি-ফোর ব্যাসের পাইপ লাইনের পানির বিল ২৫০ টাকার স্থলে ২৭০ টাকা করা হয়েছে।

এদিকে কোন পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই পৌরসভা থেকে পানির বিল বাড়িয়ে দেয়ায় গ্রাহকরা ক্ষুব্ধ হয়েছেন। কারণ তারা বিলের কাগজ হাতে পেয়ে বর্ধিত বিলের বিষয়টি জানতে পারেন। এরআগে তারা পৌর পরিষদের কোন সিদ্ধাতের কথা জানতেন না।

শংকরপুর এলাকার মজিবুর রহমান নামে এক গ্রাহক জানান, পানির বিল বৃদ্ধি করা হয়েছে ঠিকই। কিন্তু সঠিকভাবে পানি পাওয়া যাওয়া না। পৌরকর্তৃপক্ষ যে পানি সাপ্লাই দেয় তা অত্যন্ত নোংরা। পানির গতিও কম। সেবার দিকে নজর নেই। বাড়তি টাকা আদায়ে ব্যস্ত পৌর কর্তৃপক্ষ।

তিনি আরও জানান, বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে। এর পাশাপাশি পানির বিল বৃদ্ধি করলে আমাদের মতো নিন্ম আয়ের গ্রাহকদের সমস্যাতো হবেই।

বেজপাড়ার রায়েদুল ইসলাম নামে আরেক গ্রাহক জানান, পৌরসভা ইচ্ছামতো পানির বিল বৃদ্ধি করে গ্রাহকের উপর চাপিয়ে দিয়েছে। এরআগে ১০০ টাকা একলাফে হয়ে গেল ১৭০টাকা। এখন আবার ১৭০ টাকা হয়ে গেল ১৯০ টাকা; এটা ঠিক না। তাছাড়া দাম বৃদ্ধির আগে গ্রাহকদের জানানো উচিৎ ছিল।