শিক্ষক হত্যা ও নিপীড়নের প্রতিবাদ
যশোরে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল 

1

নিজস্ব প্রতিবেদক :
সারাদেশে উগ্র সাম্প্রদায়িক শক্তি দ্বারা শিক্ষক হত্যা ও নিপীড়ন- লাঞ্ছনার প্রতিবাদে যশোরে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ- মিছিল হয়েছে। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট যশোর জেলা শাখার উদ্যোগে সোমবার বিকেলে শহরের ভৈরব চত্বরে এ কর্মসূচি পালিত হয়। কর্মসূচি থেকে শিক্ষক হত্যা ও লাঞ্ছনার ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানানো হয়।

এতে সভাপতিত্ব করেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট যশোরের সভাপতি সুকুমার দাস।

বক্তব্য দেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট যশোরের সাধারণ সম্পাদক সানোয়ার আলম খান দুলু, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি যশোরের সভাপতি হারুন অর রশীদ, জেলা শিল্পকলা একাডেমি যশোরের নবনির্বাচিত সহসভাপতি চাঁদের হাট যশোরের সভাপতি ফারাজি আহমেদ সাঈদ বুলবুল, জেলা শিল্পকলা একাডেমি যশোরের নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক ও সুরধুনী যশোরের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মাহমুদ হাসান বুলু, উদীচী যশোরের সহসভাপতি অ্যাড. আমিনুর রহমান হীরু, সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান খান বিপ্লব, রবীন্দ্র সংগীত সম্মিলন পরিষদ যশোরের সভাপতি শ্রাবণী সুর, তির্যক যশোরের সাধারণ সম্পাদক দীপংকর দাস রতন, সুরবিতান যশোরের সাধারণ সম্পাদক বাসুদেব বিশ্বাস, মাইকেল সংগীত একাডেমির সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান খালেক, বিবর্তন যশোরের সভাপতি নওরোজ আলম খান চপল, সপ্তসুরের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রফিক, স্পন্দন যশোরের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম, পুনশ্চ যশোরের স্বপ্না দেবনাথ প্রমুখ।

সঞ্চালনা করেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট যশোরের কোষাধ্যক্ষ শিক্ষক তরিকুল ইসলাম।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ছাত্রের হাতে শিক্ষক হত্যার ঘটনা আমাদের সমাজের অবক্ষয়কে চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয়। এই ঘটনার আড়ালে কারো মদদ আছে কি না সেটি খতিয়ে দেখতে হবে। একই সাথে আমাদের নতুন প্রজন্মকে ধর্মান্ধতা থেকে বের করে পরমতসহিষ্ণু, অসাম্প্রদায়িক ও মুক্তচিন্তা-ধারায় উদ্বুদ্ধ করতে হবে যাতে তারা আদর্শ জীবন গঠনসহ দেশ ও জাতির উন্নয়নে অবদান রাখতে পারে। এক্ষেত্রে শিক্ষক, অভিভাবক ও শিক্ষার্থী সবাইকে ভূমিকা রাখতে হবে। মানবন্ধনে নড়াইলে পুলিশের সামনে শিক্ষক নির্যাতনের ঘটনায় দোষীদের বিচারের আওতায় আনার দাবি জানানো হয়। সমাবেশ শেষে নেতৃবৃন্দ একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

কর্মসূচিতে উদীচী, সুরবিতান, সুরধুনী, পুনশ্চ, শেকড়, কিংশুক, সুরনিকেতন, তির্যক, ভবের হাট, উৎকর্ষ, ডায়মন্ড থিয়েটার, মাইকেল সংগীত একাডেমি, স্পন্দন, বাউলিয়া সংঘসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও সদস্যরা অংশ নেন।