সব কাজ শেষ, পদ্মা সেতু বুঝে পেয়েছে সরকার

সমাজের কথা ডেস্ক॥ শতভাগ নির্মাণ কাজ শেষে পদ্মা সেতুর দায়িত্ব আনুষ্ঠানিকভাবে সেতু কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে দিয়েছে চীনের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান।

মঙ্গলবার প্রকল্প কর্তৃপক্ষ সেতুর সব কাজ বুঝে নিয়ে ঠিকাদারকে ‘টেকিং ওভার’ সার্টিফিকেট দেয়। এরপর বুধবার ঠিকাদারের কাছ থেকে সেতুর দায়িত্ব বুঝে নেয় প্রকল্প কর্তৃপক্ষ।

পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী (মূল সেতু) দেওয়ান মো. আব্দুল কাদের বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “সেতুর সব কাজ শেষ, কিছু কিছু জায়গায় রঙ করা, সৌন্দর্যবর্ধনের মত কিছু কাজ শুধু বাকি রয়েছে, সেটা আজ ও কাল সকালের মধ্যে শেষ হয়ে যাবে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান আমাদেরকে পদ্মা সেতু বুঝিয়ে দিয়েছে।”

২০২৩ সালের ৩০ জুন এ প্রকল্প শেষ হবে। কোথাও কোনো ত্রুটি থাকলে বা সমস্যা হলে এই এক বছরের মধ্যে তা ঠিক করে দেবে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেড ২০১৪ সালের ২৬ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে সেতুর কাজ শুরু করেছিল।

মূল সেতু, নদী শাসন, সংযোগ সড়ক ও সার্ভিস এরিয়া, জমি অধিগ্রহণ ও পুনর্বাসনসহ ছয়টি ভাগে পদ্মা সেতু প্রকল্পের কাজ চলে।
৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকার এই সেতু নির্মিত হয়েছে নিজস্ব অর্থায়নে; যদিও শুরুতে বিশ্ব ব্যাংকের ঋণ দেওয়ার কথা ছিল এই সেতুতে।

দুর্নীতির অভিযোগ তুলে বিশ্ব ব্যাংক অর্থায়ন স্থগিত করলে তাদের সঙ্গে টানাপড়েনের মধ্যে দেশের টাকায় এই সেতু নির্মাণেরে ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০১৫ সালে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ মূল সেতুর নির্মাণযজ্ঞ শুরু হয়।

সেই কাজ শেষে শনিবার বহু প্রত্যাশার পদ্মা সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী। পরদিন পদ্মা সেতু যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হবে।

তবে নদী শাসনের কাজ এখনও বাকি প্রায় ৭ শতাংশ। আগামী বছরের ৩০ জুনের মধ্যে সেই কাজ শেষ হওয়ার কথা। এছাড়া ভূমি অধিগ্রহণ, পুনর্বাসন ও পরিবেশগত ব্যবস্থাপনার কাজও প্রায় ৪ শতাংশ বাকি।

শেয়ার