বাগেরহাটে ১৮০ টাকার সরিষার তেল এখন ২৬০

বাগেরহাট প্রতিনিধি॥ বাগেরহাটে ১৮০ টাকার সরিষার তেল এখন ২৬০ টাকা। গেল দুইমাসে বাগেরহাটে কেজি প্রতি খোলা সরিষার তেলেরও দাম বৃদ্ধি পেয়েছে ৭০ থেকে ৮০ টাকা পর্যন্ত। লিটার প্রতি বোতল জাত সরিষার তেলের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে ৭০ থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত। ভোক্তাদের দাবি সয়াবিনের দাম বেশি দেখে সরিষার তেলের দাম বৃদ্ধি করেছেন ব্যবসায়ীরা। তবে হঠাৎ করে সরিষার তেলের দাম বৃদ্ধির কোন কারণ জানাতে পারেননি ব্যবসায়ীরা। তবে চাহিদা বৃদ্ধির কারণে ব্যবসায়ীরা দাম বৃদ্ধি করেছে বলে জানিয়েছেন বাগেরহাট জেলা বাজার কর্মকর্তা মোঃ সুজাত হোসেন খান।

বাগেরহাট শহরের বিভিন্ন বাজারে ঘুরে দেখা যায়, খোলা সরিষার তেল প্রতি কেজি ২৪০ থেকে ২৬০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। মাত্র তিন মাস আগেও বাগেরহাটে সরিষার তেলের কেজি ছিল ১৮০ থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত। কয়েকধাপে বৃদ্ধি পেয়ে তা এখন ২৬০ টাকায় পৌছেছে। স্থানীয় কোম্পানির বোতলজাত সরিষার তেল খুচড়া বাজারে ২৬০ থেকে ২৭০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। লোকাল মিলগুলোতেও সরিষার তেলের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে কেজি প্রতি ৭০ থেকে ৮০ টাকা। এমন অবস্থায় সয়াবিন তেল নিয়ে অস্থিরতার মধ্যে সরিষার তেলের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় হতাশা প্রকাশ করেছেন সাধারণ ক্রেতারা।

বাগেরহাট বাজারে তেল কিনতে আসা হাফিজা খাতুন বলেন, “সয়াবিন তেলের দাম যে বাড়া বাড়িছে, তাতে খরচ বাঁচাতি সরিষার তেল খাওয়া শুরু করিলাম। এই তো কয়েক মাস আগেও বাজার দিয়ে ১৬০/ ১৮০ টাকা কেজি কিনিছি। এখন সেই তেল দাম ২৫০-৬০ টাকা হয়ে গেছে। আমরা মধ্যবিত্য মানুষরা কোথায় যাব।
দিনমজুর ছগির মোল¬া বলেন, সয়াবিন তেল বাদ দিয়ে সরিষার তেল খাওয়া শুরু করেছিলাম। তারও দাম বাড়িছে। আমাদের তো যাওয়ার কোন পথ দেখতিছিনা। এহন বাদ আছে শুধু পানি দিয়ে রান্না করা।
খুচরা দোকানি সোহান শেখ বলেন, ‘আমরা তেল আনি বগুড়া ও নওগাঁ থেকে। সেখানে দাম বাড়লি আমাদেরও দাম বাড়াতি হয়। অত তো দাম বাড়ানি, সয়াবিনের মত বাড়লি কেউ তো সরিষার তেল কেনতো না।’
স্থানীয় একটি সরিষার তেল মিলমালিক আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘মোকামে সরিষার দাম বৃদ্ধি পাইছে, তাই বাধ্য হয়ে আমাদেরও দাম বাড়াতি হইছে। এছাড়া আমাদের আর কোন উপায় নেই। আমাদেরও তো ব্যবসা করতি হবে।’

বাগেরহাট জেলা বাজার কর্মকর্তা মোঃ সুজাত হোসেন খান বলেন, সয়াবিন তেলের দাম বৃদ্ধির সাথে সাথে সরিষার তেলের চাহিদা কয়েকগুন বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া এই সময়টায় সরিষার দামও কিছুটা বেশি থাকে। এসব কারণে ব্যবসায়ীরা দাম বৃদ্ধি করেছে। তবে অতিরিক্ত দাম বৃদ্ধির কোন সুযোগ নেই। কেউ যদি অনেক বেশি দামে সরিষার তেল বিক্রি করে চায় তাহলে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করব।

শেয়ার