আশাশুনির মাদ্রাসা অধ্যক্ষ মিজানের বিরুদ্ধে দুদকে অভিযোগ

ফায়জুল কবির, আশাশুনি (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি॥ আশাশুনি উপজেলার শ্রীউলা ইউনিয়নের গাজীপুর কুড়িগ্রাম আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে এতিমের টাকা আত্মসাতের বিষয়ে দুদকে অভিযোগ হয়েছে। খুলনা দুর্নীতি দমন কমিশনের বিভাগীয় উপ পরিচালক বরাবর ঐ প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন দুর্নীতি ও লাখ লাখ টাকা নয় ছয়ে এ অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এদিকে এমন অভিযোগে অধ্যক্ষের গাত্রদাহ শুরু হওয়ায় একের পর এক তিনি এলাকার শান্তিপ্রিয় মানুষের নামে মিথ্যা অভিযোগ অব্যাহত রেখেছেন। এরই অংশ হিসাবে গত ১১ মে আশাশুনি থানায় মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, ছাত্র, মাওলানা, চাকুরীজীবি সহ ৮জনের নামে প্রতিষ্ঠানে মিথ্যা চুরির ঘটনা দেখিয়ে অভিযোগ করেছেন তিনি। এর আগে অধ্যক্ষের নিজের মৎস্য ঘেরের বাসায় গভীর রাতে নিজের লোক দিয়ে আগুন লাগিয়ে এলাকার সরল সহজ মানুষকে ফাঁসাতে চেয়েছিলেন। এদিকে তার এসকল অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা এ এস আই রিয়াজ জানান অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান একটি পক্ষকে ফাঁসানোর জন্য এ মিথ্যা অভিযোগ করেছেন। অভিযোগের কোনো সত্যতা পাওয়া যায়নি বলেও তিনি জানান। সরজমিন ও বিভিন্ন অভিযোগে জানা গেছে কাকড়া বুনিয়া গ্রামের ১৫২ নং গেজেট ভুক্ত রাজাকার মৃত: সোহরাব উদ্দীনের ছেলে অর্থলোভী মিজানুর রহমান। তিনি বিগত ১৮ সালে এ প্রতিষ্ঠানে অধ্যক্ষ হিসাবে যোগদান করে অনিয়ম দুর্নীতি অর্থ আত্মসাৎ নিয়োগ বানিজ্য সহ প্রতিষ্ঠানকে নিজের ব্যক্তিগত মনে করে বিভিন্ন অপকর্মে জড়িয়ে পড়েছেন। সম্প্রতি এ সকল অনিয়মে প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তারের ছেলে সাইফুল ইসলাম প্রতিবাদ করলে তাকে রমজান মাসে মহিষকুড় মৎস্য সেটে প্রকাশ্য দিবালকে পিটানো হয়। এমন অসংখ্য অপরাধে অধ্যক্ষসহ তার সহচরদের বিরুদ্ধে এর মধ্যে দুটি সি আর মামলা হয়েছে।
এব্যাপারে অধ্যক্ষের সাথে তার ব্যবহৃত মোবাইলে কয়েকবার ফোন দিলেও তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

শেয়ার