একুশ বছর পর ঝিকরগাছা পৌরসভায় নির্বাচন আজ

ঝিকরগাছা পৌর প্রতিনিধি॥ আইনি জটিলতা কেটে যাওয়ায় অবশেষে যশোরের ঝিকরগাছা পৌরবাসী ভোট দেওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন আজ রোববার। সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। প্রথমবারের মতো ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট দেবেন বলে ভোটারদের এ নির্বাচন নিয়ে ব্যাপক আগ্রহের সৃষ্টি হয়েছে। তবে ভোট নিয়ে উৎসাহের পাশাপাশি আতঙ্কও রয়েছে।

জানা যায়, ৯ দশমিক ৪৩ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের ঝিকরগাছা পৌরসভার প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল ২০০১ সালের ২ এপ্রিল। পৌরসভার সাধারণ ওয়ার্ড সংখ্যা ৯টি ও সংরক্ষিত ওয়ার্ড সংখ্যা ৩টি। প্রথম ও একমাত্র নির্বাচনে মেয়র নির্বাচিত হন মোস্তফা আনোয়ার পাশা জামাল। সীমানা জটিলতা কাটিয়ে ২১ বছর পরে পুরাতন সীমানায় নির্বাচনের জন্য গত ৩০ নভেম্বর তফসিল ঘোষণা করা হয়। রোববার ১৬ জানুয়ারি ইভিএমের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ হবে। এবার পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ৬ জন, ৯টি সাধারণ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ৬৬ জন এবং তিনটি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ১৮ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। মোট ভোটার সংখ্যা ২৫ হাজার ৯৩৯ জন। এবারের নির্বাচনে মোট ১৪টি ভোটকেন্দ্রে ৮৬টি বুথ এসকল ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এ উপলক্ষে শনিবার ১৪টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণের জন্য ইভিএম মেশিন বিতরণ করা হয়েছে।

জানা যায়, শনিবার সকালে নির্বাচন কার্যালয় প্রাঙ্গন থেকে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তাদের কাছে হস্তান্তর কার্যক্রম শুরু হয়। এরপর প্রিসাইডিং কর্মকর্তারা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে যন্ত্রপাতি নিয়ে পিকআপ বা সিএনজি-ভ্যানযোগে সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রের উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন। বেলা ৪টা পর্যন্ত এ কার্যক্রম চলে।

এদিকে, ভোট উপলক্ষে বহিরাগতদের আনাগোনা আর বিএনপি নেতাকর্মীদের উপর পুলিশি নির্যাতন নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন বিএনপিপন্থী মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। কম্পিউটার প্রতীকের মেয়র প্রার্থী ঝিকরগাছা উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক অ্যাডভোকেট ইমরান সামাদ নিপুন বলেন, ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশ নেই। ৮টি ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের নাম উল্লেখ করে তিনি রিটার্নিং কর্মকর্তা ও পুলিশ বিভাগের কাছে লিখিত আবেদন জানিয়েছেন। ভোটে মাঠছাড়া করতে তার নেতাকর্মীদের নামে মিথ্যা মামলা দেয়া হয়েছে, পুলিশি তল্লাশির নামে হয়রানি করা হচ্ছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

নৌকার প্রার্থী মোস্তফা আনোয়ার পাশা জামাল বলেন, প্রশাসন এবং আওয়ামী লীগের দলীয় নেতাকর্মী একযোগে সুষ্ঠু নির্বাচনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। তাদের এই কার্যক্রমে আমি খুশি। ঝিকরগাছা পৌরবাসী স্বতঃস্ফূর্তভাবে বর্তমান সরকারের সামগ্রিক উন্নয়নের কথা ভেবে আমাকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবে।

এছাড়াও মেয়র পদে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন নারিকেল গাছ প্রতীকের প্রার্থী আওয়ামী লীগের সাবেক সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক একেএম আমানুল কাদির টুল্লু, জগ প্রতীকে উপজেলা যুবলীগের বহিস্কৃত যুগ্ম আহবায়ক ছেলিমুল হক সালাম, মোবাইল প্রতীকে যুবলীগ নেতা ইমতিয়াজ আহমেদ শিপন, রেলইঞ্জিন প্রতীকে তরুণ উদ্ভাবক ও জাতীয় পল্লী উন্নয়ন স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত আব্দুল্লাহ আল সাঈদ। স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থীরা সুষ্ঠু ও প্রভাবমুক্ত ভোটের দাবি করে আসছেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা হুমায়ুন কবীর সাংবাদিদের বলেন, নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ করতে নয়টি ওয়ার্ডে নয়জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়েছে। পুলিশ ও আনসার সদস্যদের বাইরে র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবির সার্বক্ষণিক মোবাইল টিম থাকবে। সবমিলিয়ে নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে সবধরণের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।

শেয়ার