সংলাপে যাবে না বিএনপি

4

সমাজের কথা ডেস্ক॥ ইসি নিয়োগে রাষ্ট্রপতির সংলাপ শুরুর পর সুর বদল ঘটলেও শেষমেষ না যাওয়ার সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত করেছে বিএনপি।

বিএনপির নীতি-নির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে ‘অর্থহীন’ এই সংলাপে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

গত সোমবার দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক হয়েছিল। দুদিন পর বুধবার সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়ে গুরুত্বপূর্ণ এই সিদ্ধান্ত গণমাধ্যমকে জানানো হয়।

নির্দলীয় সরকারের অধীনে ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত নবম সংসদ নির্বাচন বিএনপি বর্জন করলেও দশম সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়েছিল। অংশ নিয়েছিল ইসি গঠনে রাষ্ট্রপতির সংলাপেও।

এবার বিএনপি বলে আসছিল, নির্দলীয় সরকার না হলে কোনো নির্বাচন কিংবা সংলাপে যাবে না তারা। কিন্তু এক সপ্তাহ আগে রাষ্ট্রপতি সংলাপ শুরুর পর বিএনপি মহাসচিব বলেছিলেন, সংলাপের আমন্ত্রণ পেলে তখনই এ্ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন তারা।

তবে বঙ্গভবন থেকে আমন্ত্রণ আসার আগেই বিএনপি চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে নিল।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “বিএনপি মনে করে, বাংলাদেশের বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে নির্বাচনকালীন সময়ের নিরপেক্ষ সরকার গঠন এবং নিরপেক্ষ প্রশাসনের সাংবিধানিক নিশ্চয়তা ব্যাতীত নির্বাচন কমিশনের গঠন নিয়ে সংলাপ শুধু সময়ের অপচয়। বাংলাদেশের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে দলীয় সরকার বহাল রেখে নির্বাচন কমিশন কখনই স্বাধীনভাবে নিরপেক্ষ অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠান করতে পারবে না।

“বিএনপি বিশ্বাস করে, নির্বাচনকালীন সময়ে নিরপেক্ষ নির্দলীয় সরকার ব্যতিরেকে সুষ্ঠু, অবাধ, গ্রহণযোগ্য নির্বাচন কোনো নির্বাচন কমিশনই করতে পারবে না। রাষ্ট্রপতি নিজেই বলেছেন, তার কোনো ক্ষমতা নেই পরিবর্তন করার। সেই কারণে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে রাজনৈতিক দলগুলোর সংলাপ কোনো ইতিবাচক ফলাফল আনতে পারবে না। বিএনপি অর্থহীন কোনো সংলাপে অংশগ্রহণ করবে না।”

বিএনপির আগে বাসদ (খালেকুজ্জামান) ইতোমধ্যে রাষ্ট্রপতির এই সংলাপে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত জানিয়েছে।

বিগত দুটি নির্বাচন কমিশন গঠনের আগে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সংলাপে বসেছিল বিএনপি।