যশোরে তাঁতীলীগনেতা কাকন হত্যাকাণ্ড ॥ নারায়ণগঞ্জ থেকে সিআইডি’র হাতে একজন আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে তাঁতীলীগনেতা আব্দুর রহমান কাকন হত্যা মামলায় সন্দেহমূলক এক আসামিকে আটক করেছে সিআইডি পুলিশ। বৃহস্পতিবার নারায়নগঞ্জ থেকে তাকে আটক করা হয়। সিআইডি’র পুলিশ সুপার জাকির হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তবে আটককৃতের নাম ঠিকানা জানাননি সিআইডি’র এই কর্মকর্তা।

গত ১৭ নভেম্বর রাত সাড়ে ১০টার দিকে শহরের বারান্দী মোল্যাপাড়া কবরস্থান মোড়ের একটি চায়ের দোকানের সামনে সন্ত্রাসীরা এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাতে খুন করে কাঁকনকে। এঘটনায় নিহতের মা সুফিয়া বেগম অজ্ঞাতনামা আসামি দিয়ে কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন।

এজাহারে নিহতের মা উল্লেখ করেন-তার ছেলে মৎস্য চাষি আব্দুর রহমান কাঁকন পূর্ববারান্দী মোল্যাপাড়া কবরস্থানের পাশের হানিফের বাড়িতে ভাড়া থাকতো। গত ১৭ নভেম্বর রাত পৌনে ১১টার দিকে কাঁকনের স্ত্রী শারমিন আক্তার মোবাইল ফোনে তাকে জানান কে বা কারা কাঁকনকে মোল্যাপাড়া কবরস্থানের পাশের নারায়ণের চায়ের দোকানের সামনে ছুরিকাঘাতে মারাত্মক জখম করেছে। সংবাদ পেয়ে তিনি যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে যান। রাত ১১টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

কাঁকন নিহতের হওয়ার পরপরই এলাকায় গুঞ্জন ওঠে ওই এলাকার সন্ত্রাসী জিতু হত্যার সাথে জড়িত। কাঁকন খুন হওয়ার পর তিনি নারায়ণগঞ্জে এক আত্মীয়’র বাড়িতে আত্মগোপন করেন। সেখান থেকে পুলিশ তাকে আটক করে।

এ বিষয়ে জিতুর পিতা সিরাজুল ইসলাম জানিয়েছেন, তার ছেলেকে তিনদিন আগে নারায়ণগঞ্জ থেকে পুলিশ ধরে এনেছে। কিন্তু কোথায় তাকে নেয়া হয়েছে তা জানতে পারেননি।

এ বিষয়ে সিআইডির পুলিশ সুপার জাকির হোসেন জানান, নারায়ণগঞ্জ থেকে একজনকে আটক করা হয়েছে সন্দেহজনক আসামি হিসেবে।

শেয়ার