থাইল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের মেয়েদের হার

সমাজের কথা ডেস্ক॥ শুরুতে বিপর্যয়ে পড়া দলকে পথ দেখালেন মুরশিদা খাতুন ও ফারজানা হক। তাদের গড়ে দেওয়া ভিতের ওপর দাঁড়িয়েও বড় পুঁজি গড়তে পারল না বাংলাদেশ। পরে বোলিংয়েও দেখাতে পারল না তারা দারুণ কিছু। থাইল্যান্ডের বিপক্ষে হারের হতাশাই সঙ্গী হলো নিগার সুলতানার দলের।

নারী বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের বৃষ্টিবিঘিœত ম্যাচে বৃহস্পতিবার ডাকওয়ার্থ-লুইস-স্টার্ন পদ্ধতিতে ১৬ রানে জিতেছে থাইল্যান্ড। টানা দুই জয়ের পর আসরে এটি বাংলাদেশের প্রথম হার।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচের সিরিজের সবকটি জিতে বিশ্বকাপ বাছাই শুরু করে বাংলাদেশ প্রথম ম্যাচে হারিয়ে দেয় শক্তিশালী পাকিস্তানকে। পরের ম্যাচে দুর্বল যুক্তরাষ্ট্রকে উড়িয়ে দেয় ২৬৯ রানে। দুর্দান্ত পথচলাটা থেমে গেল থাই মেয়েদের বাধায়।

ফারজানার ৫১ ও মুরশিদার ৪৬ রানের সুবাদে ১৭৬ রানের সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। রান তাড়ায় ৩৯.২ ওভারে ২ উইকেটে ১৩২ রান তুলে জয়ের পথেই ছিল থাইল্যান্ড। পরে আলোকস্বল্পতায় আর খেলা না হলে জয় পায় তারা।

বল হাতে এক উইকেটের পর ব্যাট হাতে ৬৯ রানের ইনিংস খেলে ম্যাচ সেরার পুরস্কার জিতেছেন থাইল্যান্ডের সর্ননারিন তিপোচ।

হারারে স্পোর্টস ক্লাবে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশের শুরুটা ভালো হয়নি। ১৪ রানে তারা হারিয়ে ফেলে দুই উইকেট। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে শারমিন আক্তারকে বোল্ড করে দেন নাত্তায়া বুচাথাম। চানিদা সুতথিরুয়াংয়ের বলে ক্যাচ তুলে দেন নিগার। দুই ব্যাটারই আউট হন এক রান করে।

বিপদে পড়া দলকে এগিয়ে নেন মুরশিদা ও ফারজানা। তাদের ব্যাটে বাংলাদেশের রান একশর কাছে পৌঁছে যায়। এর মাঝে বৃষ্টি বাধায় খেলা বন্ধ ছিল কিছুক্ষণ।

ফারজানা ৭৪ বলে পঞ্চাশ স্পর্শ করতে পারলেও মুরশিদা বিদায় নেন আগেই। ৫ চারে ৪৬ রান করা এই ওপেনারকে বোল্ড করে ৮৪ রানের জুটি ভাঙেন তিপোচ। দুই ওভার পর বুচাথাম এলবিডব্লিউ করে দেন ৬ চারে ৫১ করা ফারজানাকে।

ফিরতি ক্যাচ নিয়ে রিতু মনিকে দ্রুত বিদায় করেন কামচোমফু। ২২ রানের মধ্যে ৩ উইকেট হারানো দলের রান দেড়শ পার করেন রুমানা আহমেদ ও লতা ম-ল।

ইনিংসের শেষ ওভারে চার বলের মধ্যে তিন উইকেট তুলে নিয়ে পাঁচ উইকেট পূর্ণ করেন বুচাথাম। রুমানা ও লতা হন স্টাম্পড, ফাহিমা খাতুন তুলে দেন ক্যাচ।

দুইশর কম রান তাড়ায় দুর্দান্ত শুরু পায় থাইল্যান্ড। উদ্বোধনী জুটিতে দলের জয়ের ভিত গড়ে দেন তিপোচ ও নাতথাকান চেনথাম। দুইজনে মিলে দলকে এনে দেন ৯৭ রান।

এরপরই বাংলাদেশের মুখে হাসি ফোটান ফাহিমা খাতুন। ৩ চারে ৩৭ রান করা চেনথামকে বোল্ড করে দেন এই লেগ স্পিনার।

জুটি ভাঙার আগেই ৯৬ বলে ফিফটি তুলে নেন তিপোচ। ৭ চারে ৬৯ রান করা এই ওপেনার শিকার নাহিদা আক্তারের। নাননাপাত কোনচারোয়েনকাই ও নারুয়েমোল চাইওয়াই জয়ের দিকে এগিয়ে নিতে থাকেন দলকে। পরে যদিও আলোকস্বল্পতার বাধায় হয়নি খেলা।

আবারও জয়ে ফেরার লক্ষ্যে আগামী সোমবার জিম্বাবুয়ের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।

শেয়ার