কালিগঞ্জে মেম্বার প্রার্থীর বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ

কালিগঞ্জ (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি ॥ কালিগঞ্জের মথুরেশপুরে সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বী এক প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রচার, প্রচারণা ও আচরণবিধি লঙ্ঘনসহ টাকা দিয়ে ভোট কেনার অভিযোগ করেছেন আরেক প্রার্থী। বৃহস্পতিবার উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার অনুজ গাইনের কাছে এই অভিযোগ করেন মেম্বর প্রার্থী সাইফুল ইসলাম।

অভিযোগে জানা যায়, ভোটের মাঠে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী নূরুস সালাম গাইন ও আরিজুল ইসলাম মাইকিং, অধিক মোটরসাইকেল নিয়ে শোডাউন, ওয়ার্ডে একাধিক অফিস খুলে নির্বাচনী আচারণ বিধি লঙ্ঘন করে আসছেন। এছাড়াও বিভিন্নভাবে হুমকি-ধামকি দেয়া হচ্ছেঠ। এতে করে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে শঙ্কিত তিনি।

স্থানীয় ভোটার হাবিবুল্লাহ, আল-আমিনসহ অনেকেই জানান, বসন্তপুর ১নং ওয়ার্ডে সাধারণ সদস্য পদে বর্তমান ইউপি সদস্যসহ ৪জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচারণার কথা থাকলেও বর্তমান ইউপি সদস্য নূরুস সালাম গাইনের কর্মী ও সমর্থকরা প্রতিদিন রাতের আধারে ভোটারদের বাড়িতে মুড়ি ও চানাচুরের প্যাকেট সরবরাহ করেছেন। মুড়ির প্যাকেটের মধ্যে টাকা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে এই প্রার্থীর বিরুদ্ধে।

ইতিমধ্যে কয়েকটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে সমালোচনার ঝড় উঠেছে।
বর্তমান ইউপি সদস্য নূরুস সালাম গাইনের কাছে জানাতে চাইলে তিনি বলেন, এসব কিছু প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের সাজানো নাটক। টাকা দিয়ে ভোট কেনা বা ভোটারদের বাড়িতে খাদ্য বিতরণের ঘটনা মিথ্যা। তবে ১০/১২টি মোটরসাইকেল নিয়ে শোডাউন করা হয়েছিল। অপর প্রার্থী আরিজুল ইসলাম বলেন, নির্বাচনী আচারণ বিধি লঙ্ঘন করে মোরগ প্রতিকের প্রার্থী ভোটারদের বাড়িতে খাদ্যদ্রব্য পৌঁছে দিচ্ছে। নির্বাচনে জয় পরাজয় থাকবে, আমি চাই সুন্দর ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ অনুষ্ঠিত হোক। অভিযোগের বিষয়ে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার অনুজ গাইনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া।

শেয়ার