নৌকা পেয়ে এলাকায় ফিরলেন দুই প্রার্থী ॥ কালনাঘাটে নৌকার কর্মী- সমর্থকদের উৎসব

লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি॥ নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার কালনাঘাট সংলগ্ন এলাকায় শুরু হয়েছে নৌকা প্রতিকের উৎসব। এই উৎসব চতুর্থ ধাপে ২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের নৌকা প্রতিক প্রাপ্ত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের।

বুধবার (২৪ নভেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর ৩টা পর্যন্ত নৌকা প্রতিক প্রাপ্ত চেয়ারম্যান প্রার্থীদের সমর্থকদের উল্লাস চোখে পড়ে। দলীয় নেতা-কর্মীসহ হাজারো নারী-পুরুষ ও শিশু ঘন্টার পর ঘন্টা কালনাঘাটে পছন্দের প্রার্থী আসার অপেক্ষায় থাকার পর তাদের সাথে দেখা মিললো কাশিপুর ইউনিয়নের আসন্ন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়নপ্রাপ্ত প্রার্থী মতিয়ার রহমানের (নৌকা প্রতিক) এবং লোহাগড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়নপ্রাপ্ত প্রার্থী নাজমিন বেগমের।

সূত্র জানায়, চতুর্থ ধাপের ইউপি নির্বাচনে গত ২০ নভেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা স্বাক্ষরিত দলের প্রার্থী মনোনয়ন সংক্রান্ত চিঠি হাতে নিয়ে ঢাকা থেকে রওনা হয়ে কালনাঘাটে পৌঁছান মতিয়ার রহমান ও নাজমিন বেগম। দলীয় নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের হাতে তখন হরেক রকমের কাঁচা ফুলের মালা ও ফুলের তোড়া। রয়েছে সমর্থকদের নিজস্ব আয়োজনে টাকার মালাও। চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থক ও দলীয় নেতা-কর্মীদের মনে যেন প্রাণভারা উচ্ছ্বাস। সকলেই যেন নতুন উদ্দীপনা নিয়ে নদীরঘাটে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করছিলেন। নৌকা প্রতিকের চিঠি নিয়ে প্রিয় প্রার্থী এলাকায় কখন ঢুকবেন।

মতিয়ার রহমান লোহাগড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও কাশিপুর ইউনিয়ন পরিষদের বারবার নির্বাচিত চেয়ারম্যান। তিনি দলের নিবেদিত প্রাণ। এখানে তাঁকে দলের প্রাণ পুরুষ বলেও অবিহিত করেন দলের নেতা-কর্মীরা। মোঃ মতিয়ার রহমান কালনাঘাটে পথসভায় বলেন, দলের সভাপতি ও মানবতার মা শেখ হাসিনা নৌকা প্রতিক দিয়েছেন মানুষের আরো বেশি সেবা করবার জন্য। দলের নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের চেষ্টায় আবারো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবো ইনশাআল্লাহ।

প্রখর রোদ উপেক্ষা করে কালনাঘাটে প্রিয় প্রার্থী নাজমিন বেগমের অপেক্ষায় ছিলেন শ’ শ’ নারী ও শিশু। দলীয় নেতা-কর্মীদের উপস্থিতিও ছিল চোখে পড়ার মতো। নাজনীন বেগম লোহাগড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বদর খন্দকারের স্ত্রী। ২০১৮ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি বদর খন্দকারকে প্রতিপক্ষরা নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করে। নিহত বদর খন্দকারের শিশু পুত্র ও কন্যা সন্তান রয়েছে। স্বামী খুন হবার পর থেকে গ্রাম্যদলে নেতৃত্বসহ রাজনীতিতে নাম লেখান নাজমিন বেগম। তিনি কালনাঘাটে পথসভায় বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা নারী নেতৃত্বকে সম্মান জানান। তাই তিনি আমাকে নৌকা প্রতিক দিয়েছেন। আজ আমার সন্তানরা এতিম। মানবতার মা শেখ হাসিনা এতিমদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। আসন্ন নির্বাচনে সকলে মিলে নৌকা প্রতিককে বিজয়ী করতে হবে। সবার সহযোগিতা পেলে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবো ইনশাআল্লাহ। পথসভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শেখ সাজ্জাদ হোসেন মুন্নাসহ দলীয় নেতা ও গ্রাম্য প্রধানরা।

শেয়ার