চিলির হারে বিশ্বকাপ নিশ্চিত আর্জেন্টিনার ৪২ ফাউলের ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচে নেই গোল

সমাজের কথা ডেস্ক॥ ব্রাজিলের বিপক্ষে নিজেদের ম্যাচে সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেনি আর্জেন্টিনা। তবে তাদের একটু পরই শুরু হওয়া চিলি ও একুয়েডর ম্যাচের ফল পক্ষে আসায় কাতার বিশ্বকাপের টিকেট পেয়ে গেছে লিওনেল স্কালোনির দল।

সান হুয়ানে বাংলাদেশ সময় বুধবার ভোরে শুরু হওয়া বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচে ব্রাজিলের বিপক্ষে গোলশূন্য ড্র করে আর্জেন্টিনা।

এর ঘণ্টাখানেকের মধ্যে শেষ হওয়া আরেক ম্যাচে একুয়েডরের বিপক্ষে ২-০ গোলে হেরে যায় চিলি। তাতে পাঁচ ম্যাচ বাকি রেখেই লাতিন আমেরিকা থেকে দ্বিতীয় দল হিসেবে আগামী বিশ্বকাপে উঠে যায় আর্জেন্টিনা।
১৩ ম্যাচে ১১ জয় ও দুই ড্রয়ে ৩৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে ব্রাজিল। সমান ম্যাচে আট জয় ও পাঁচ ড্রয়ে ২৯ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে আর্জেন্টিনা।
বাকি আটটি দলের সবাই খেলেছে ১৪টি করে ম্যাচ। তিন নম্বরে থাকা একুয়েডরের পয়েন্ট ২৩। সমান ১৭ করে পয়েন্ট নিয়ে পরের দুটি স্থানে যথাক্রমে কলম্বিয়া ও পেরু। ১৬ পয়েন্ট নিয়ে ছয় নম্বরে চিলি।
এই অঞ্চল থেকে শীর্ষ চারটি দল কাতার বিশ্বকাপে সরাসরি খেলার টিকেট পাবে। পঞ্চম স্থানে থাকা দলকে খেলতে হবে আন্তঃমহাদেশীয় প্লে অফ।

ব্রাজিল আর্জেন্টিনার খেলায় দুই দলের আক্রমণভাগের বিবর্ণতার বিপরীতে জমাট রক্ষণ। ফাউলের পর ফাউলে নষ্ট হলো ফুটবলের সৌন্দর্য্য। কোনো পক্ষই যথেষ্ট সুযোগ তৈরি করতে পারল না। যা কয়েকটা মিলল, দুর্বল ফিনিশিংয়ে তা কেবল হতাশায় বাড়াল। বিশ্বকাপ বাছাইয়ে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার লড়াই রয়ে গেল অমিমাংসিত।
আর্জেন্টিনার সান হুয়ানে বাংলাদেশ সময় বুধবার ভোরে শুরু হওয়া ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়েছে। কোনো দলই নিজেদের সেরা ফর্মের কাছাকাছি পারফর্ম করতে পারেনি। চোট কাটিয়ে আগের ম্যাচে বদলি হিসেবে নামা লিওনেল মেসি এদিন পুরোটা সময় খেলেন, তবে নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি তিনি। অন্যদিকে, দলের সেরা তারকা নেইমারকে ছাড়া ব্রাজিলও বেশ ভুগেছে।

৯০ মিনিটের হাইভোল্টেজ লড়াইটিতে ফাউল হয়েছে মোট ৪২টি, দুদলই সমান ২১ বার করে। বল দখলে আর্জেন্টিনা একটু এগিয়ে থাকলেও আক্রমণে সমানে-সমানে। দুই দলই গোলের উদ্দেশ্যে সমান ৯টি করে শট নেয়; আর্জেন্টিনার তিনটি আর ব্রাজিলের দুটি থাকে লক্ষ্যে।
শুরু থেকেই দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর লড়াই উত্তাপ ছড়ায়। বারবার হওয়া ফাউলে বিঘœ ঘটে ফুটবলের স্বাভাবিক ছন্দ।
সপ্তদশ মিনিটে প্রথম উল্লেখযোগ্য সুযোগ পায় ব্রাজিল; তবে ডি-বক্সের মুখ থেকে লক্ষ্যভ্রষ্ট শটে হতাশ করেন ভিনিসিউস জুনিয়র। ২৪তম মিনিটে আনহেল দি মারিয়ার পাস পেয়ে ডি-বক্সের বাইরে থেকে মেসির শট ঠেকান ডিফেন্ডার দানিলো। ছয় মিনিট পর পেনাল্টি স্পটের কাছ থেকে লাউতারো মার্তিনেসের শটও রক্ষণে প্রতিহত হয়।
৩৩তম মিনিটে ব্রাজিলের ডি-বক্সের মুখে বল দখলে নিতে গিয়ে মেসি পড়ে গেলে ফাউলের আবেদন করে আর্জেন্টিনা শিবির, তবে রেফারির সাড়া মেলেনি। এসময় বেশ ক্ষুব্ধ দেখা যায় স্বাগতিক অধিনায়ককে। খানিক পরই আর্জেন্টিনার ডি-বক্সে ডিফেন্ডার ওতামেন্দির হাতের আঘাতে রাফিনিয়ার মুখ দিয়ে রক্ত ঝরতে দেখা যায়। ব্রাজিলের পক্ষ থেকে পেনাল্টির জোরালো আবেদন উঠলেও ভিএআরেও তাদের আশা পূরণ হয়নি।
সর্বমোট ২২টি ফাউলের (আর্জেন্টিনা ১০, ব্রাজিল ১২) প্রথমার্ধে ৪১তম মিনিটে এগিয়ে যেতে পারতো আর্জেন্টিনা। তবে ডি-বক্সের বাইরে থেকে রদ্রিগো দে পলের দূরের পোস্টে নেওয়া শট ঝাঁপিয়ে ঠেকান আলিসন।
বিরতির পরও একইভাবে চলতে থাকে মাঠের ফুটবল। ৬০তম মিনিটে ভাগ্যের ফেরে গোলবঞ্চিত হয় ব্রাজিল। ডি-বক্সের বাইরে থেকে মিডফিল্ডার ফ্রেদের শট ক্রসবারে বাধা পায়। ১০ মিনিট পর বক্সে ফাঁকায় বল পেয়ে গোলরক্ষক বরাবর শট নিয়ে হতাশ করেন রিয়াল মাদ্রিদ ফরোয়ার্ড ভিনিসিউস।
নির্ধারিত সময়ের একেবারে শেষ মিনিটে ভালো একটা সুযোগ পান মেসি। তবে ডি-বক্সের মুখ থেকে গোলরক্ষক বরাবর নিচু শট নেন রেকর্ড ছয়বারের বর্ষসেরা ফুটবলার। সব মিলিয়ে টানা ২৭ ম্যাচে অপরাজিত রইলো স্কালোনির দল, যার শুরুটা হয়েছিল ২০১৯ সালের মাঝামাঝি সময়ে।
আর এবারের বাছাইয়ে ১৩ ম্যাচ খেলে ১০টিতে জাল অক্ষত রাখলো ব্রাজিল। গোল করেছে ২৭টি, হজম করেছে মাত্র চারটি।

শেয়ার