যশোরে যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীকে মারপিটের অভিযোগে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরে তিন লাখ টাকা ও একটি মোটরসাইকেল যৌতুক না পেয়ে স্ত্রী ইভা রহমানকে মারপিটের অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। গত ৩০ অক্টোবর রাতে যশোর শহরের নীলগঞ্জ সাহাপাড়ায় এই ঘটনার পরে ৪ নভেম্বর ইভা রহমানের পিতা তার স্বামী সাদিক সরদারের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি মডেল থানায় এই মামলা করেন। আসামি সাদিক সরদার নড়াইলের কালিয়া উপজেলার কুলশুর গ্রামের রশিদ সরদারের ছেলে। বর্তমানে সাদিক সরদার যশোর শহরের নীলগঞ্জ সাহাপাড়ার রহমত আলীর বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করেন।

বাদী নড়াইলের কালিয়া উপজেলার বৈদ্ধহাটি গ্রামের দাউদ সিকদার মামলায় বলেছেন, গত বছরের ৪ ডিসেম্বর তার মেয়ে ইভা রহমানকে পারিবারিকভাবে সাদিক সরদারের সাথে বিয়ে দেয়া হয়। ৮/৯ মাস আগে জামাই সাদিক সরদার তার মেয়েকে নিয়ে যশোর শহরের নীলগঞ্জ সাহাপাড়ার রহমত আলীর বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করেন। কিন্তু ভাড়া বাসায় সংসার করাকালে সাদিক সরদার তিন লাখ টাকা ও একটি মোটরসাইকেল যৌতুকের জন্য ইভা রহমানকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করে আসছিলেন। ফলে বাধ্য হয়ে এবং মেয়ের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে স্বর্ণালংকার ও সাংসারিক মালামালসহ দুই লক্ষাধিক টাকার মালামাল যৌতুক হিসেবে জামাই সাদিক সরদারকে প্রদান করেন ইভার পিতা দাউদ সিকদার। এরপরও সন্তুষ্ট না হয়ে গত ৩০ অক্টোবর রাত ৯টার দিকে স্ত্রী ইভাকে মারপিট ও শ্বাসরোধে হত্যার চেষ্টা করে তার স্বামী সাদিক সরদার। ইভার চিৎকারে এসময় আশপাশের লোকজন এগিয়ে ইভাকে রক্ষা করে বাড়ি মালিক রহমত আলীর স্ত্রী মিনা বেগম মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ইভার পিতাকে জানানো হয়। এরপর তারা এসে ইভাকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা করানো হয়। এই ঘটনায় মামলা হলেও আসামি ইভার স্বামী সাদিক সরদারকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।

শেয়ার