মণিরামপুরে ১৬ ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী হতে চান ১২৬ নেতাকর্মী

মোতাহার হোসেন, মণিরামপুর ॥ আসন্ন ইউপি নির্বাচনে যশোরের মণিরামপুরে ১৬ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশি ১২৬ জন। তৃতীয় ধাপের ইউপি নিবাচনের তফশীল ঘোষণায় উপজেলার ১৬ ইউনিয়নে তৃণমুল নেতা-কর্মীদের মতামতের ভিত্তিতে মনোনয়ন প্রত্যাশি আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী বাছাই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে।
শনিবার উপজেলার ১৫ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভার মাধ্যমে এ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়। এর আগে শুক্রবার উপজেলা ৩ নং ভোজগাতী ইউনিয়নে প্রার্থী বাছাই হয়। আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ-সহযোগী এবং ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতা-কর্মীরা এবং আওয়ামী লীগ পরিবারের মনোনয়ন প্রত্যশিরা এই প্রার্থী তালিকায় ঠাঁই পেয়েছেন। মনোনয়ন প্রত্যাশির তালিকায় সাংবাদিক, নারী নেত্রীদের নাম উঠে এসেছে।
দলীয় সুত্রে জানাগেছে, নির্বাচন কমিশনের ঘোষণা মোতাবেক আগামী ২৮ নভেম্বর এই উপজেলার ১৬ ইউনিয়নে ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ইতোমধ্যে দলের কেন্দ্রীয় অফিস থেকে আগামী ১৬ অক্টোবর থেকে ২০ অক্টোবর মনোনয়ন ফরম বিক্রয় কার্যক্রম শুরু হবে। এ লক্ষ্যে ১৬ ইউনিয়নে প্রতি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় আওয়ামী লীগড় ঘরনার এবং পরিবারের নেতা-কর্মীরা ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে কমিটির রেজুলেনকৃত তালিকায় ঠাঁই পেয়েছেন। এরপর ১৮ অক্টোবর উপজেলা ও জেলা আওয়ামী লীগ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ প্রণীত প্রার্থী তালিকা সুপারিশ আকারে কেন্দ্রে প্রেরণ করবেন বলে জানাগেছে।
১ নং রোহিতা ইউনিয়ন
উপস্থিত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কমিটির সদস্য ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের ভোটাভুটিতে প্রার্থী তালিকা সম্পন্ন হয়। সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে প্রার্থী তালিকায় প্রথম ঠাই পেয়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাফিজ উদ্দীন। এরপর প্রভাষক আলা উদ্দীন লিটন, আব্দুল কাদের বিশ্বাস, ইটভাটা মালিক আক্তারুজ্জামান, মোহর আলী, মাছ ব্যবসায়ী আক্তারুজ্জামান, আবুল হোসেন, আনছার আলী সরদার ও সাইফুল ইসলাম।
২ নং কাশিমনগর ইউনিয়ন
ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশি ৭ জনের নাম উঠে এসেছে। এরা হলেন সাবেক চেয়ারম্যান তৌহিদুর রহমান, স্বপন কুমার দাস, আসমা খাতুন লাকি, আশরাফুল আলম মিন্টু, প্রদীপ কুমার দাস ও তৌহিদ এলাহী মন্টি।
৩নং ভোজগাতি
ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রার্থী তালিকায় ৪ জনের নাম উঠে এসেছে। এরা হলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মোড়ল, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক শরিফুল ইসলাম রিপন, বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, উপজেলা মহিলালীগের সাধারন সম্পাদক প্রভাষক আসমাতুন্নাহার।
৪ নং ঢাকুরিয়া ইউনিয়ন
ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় ৭ জন ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। এরা হলেন বর্তমান চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এরশাদ আলী সরদার, সাধারণ সম্পাদক জিএম মঞ্জুরুল হাসান সাজ্জাত, আইয়ুব গাজী, বাবলু সিংহ, যুবলীগ নেতা জয়ন্ত বসু, অনুপম মল্লিক, বাবুল আক্তার লাল্টু।
৫ নং হরিদাসকাঠি ইউনিয়ন
এ ইউনিয়নে সর্বোচ্চ ১৮ জন ইউপি চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীতার ইচ্ছা পোষণ করেছেন। এরা হলেন বর্তমান চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বিপদ ভঞ্জন পাঁড়ে, সাধারণ সম্পাদক আলমগীর কবীর লিটন, আব্দুল জলিল গাজী, সাবেক চেয়ারম্যান নিরঞ্জন প্রসাদ বিশ্বাস, সাংবাদিক রাহুল রায়, স্বপন সরকার, প্লুটো মল্লিক, দিনবন্ধু রায়, সুব্রত মন্ডল, বিরাম চন্দ্র বিশ্বাস, প্রদীপ হালদার, সুকৃতি রায়, উত্তম কুমার মন্ডল, দিলীপ রায়, বিশ্বনাথ বিশ্বাস, আতিয়ার রহমান, বিশ্বজিৎ সরকার।
৬ নং মণিরামপুর সদর ইউনিয়ন
এ ইউনিয়নে ৪ জনের নাম উঠে এসেছে। এরা হলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম শাহিন, এয়াকুব আলী গাজী, মনিরুজ্জচামান মিল্টন ও আওয়াম লীগ নেতা মণিরামপুর প্রেসক্লাবের সহসভাপতি প্রভাষক নূরুল হক।
৭ নং খেদাপাড়া ইউনিয়ন
এ ইউনিয়নে ১৪ জনের নাম তালিকায় উঠে এসেছে। এরা হলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল আলীম জিন্নাহ, প্রভাষক ফরিদ উদ্দীন, আব্দুল হক, ইশবাল হোসেন, খুরশিদ আলম, শফিয়ার রহমান, মকবুল হোসেন, মিজানুর রহমান রেন্টু, মিজানুর রহমান, এসএম এরশাদ আলী, অশোক মল্লিক, সখিনা খাতুন, আমেনা খাতুন, মাস্টার আব্দুর রহমান, হাফিজুর রহমান, শহিদুল ইসলাম।
৯ নং ঝাপা ইউনিয়ন
এখানে ৯ জনের নাম তালিকায় ঠাঁই পেয়েছে। এরা হলেন বর্তমান চেয়ারম্যান শামছুল হক মন্টু, স.ম আলা উদ্দীন, আবুল বাশার চাকলাদার, সাজ্জাত অব্ধন শিপন, রবিউল ইসলাম রবি, সরদার আলা উদ্দীন, আব্দুল হক তুহিন, সিরাজুল ইসলাম ও গোলাম রসুল চন্টা।
৮ নং হরিহরনগর ইউনিয়নে গেলবার মামলাজনিত কারনে দেরিতে নির্বাচন হওয়ায় এবারের ঘোষিত তফসীল অনুযায়ী আগামী ২৮ নভেম্বর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে না।
১০ নং মশ্মিনগর ইউনিয়ন
এ ইউনিয়নে ৮ জনের নাম উঠে এসেছে। এরা হলেন বর্তমান চেয়ারম্যান আবুল হোসেন, ফেরদৌস রানা, আবুল বাশার সরদার, শাহরিয়র আলম খান কাবিল, জিএম আশরাফুল ইসলাম স্বপন, জাহাঙ্গীর কবীর মামীম, ইশবাল হাসান শাহিন ও এমএম আসাদুজ্জামান আসাদ।
১১ নং চালুয়াহাটি ইউনিয়ন
এ ইউনিয়নে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীদের তালিকায় ১০ জনের নাম উঠে এসেছে। এরা হলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহবায়ক অধ্যাপক আবুল হাসান, যুগ্ম আহবায়ক শহিদুল ইসলাম, জিল্লুর রহমান, আব্দুল হাই, উপজেলা কৃষকলীগের সাধারন সম্পাদক আবুল ইসলাম, আবু মুছা, মেহেদি আল ইমরান খান, আব্দুল হামিদ, ফজলুর রহমান ও শফিকুল ইসলাম টুলু।
১২ নং শ্যামকুড় ইউনিয়ন
এ ইউনিয়নে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশিদের তালিকায় ৫ জনের নাম পাওয়া গেছে। এরা হলেন বর্তমান চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মনি, আলহাজ্ব হাশেম আলী, নজরুল ইসলাম, শহিনুর ররহমান ও প্রকৌশলী আলমগীর হোসেন।
১৩ নং খানপুর ইউনিয়ন
ইউনিয়নে ৭ জন মনোনয়ন প্রত্যাশিদের নাম তালিকায় উঠে এসেছে। এরা হলেন বর্তমান চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি গাজী মোহাম্মদ আলী, সাধারন সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ মিলন, গোলাম মোস্তফা মিঠু, অধ্যক্ষ মিলন ঘোষাল, প্রভাষক হাবিবুর রহমান, জিয়াউর রহমান ও মোঃ বিল্লাল হোসেন।
১৪ নং দূর্বাডাঙ্গা ইউনিয়ন
এ ইউনিয়নে মনোনয়ন প্রত্যাশিদের ৩ জনের নাম উঠে এসেছে। এরা হলেন অধ্যক্ষ চঞ্চল ভট্টাচার্য্য, বর্তমান চেয়ারম্যান গাজী মাযাহারুল আনোয়ার ও মাছুদুর রহমান।
১৫ নং কুলটিয়া ইউনিয়ন
এখানে ৭ জন দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশির নাম উঠে এসেছে। এরা হলেন বর্তমান চেয়ারম্যান শেখর চন্দ্র রায়, প্রণয় কান্তি চৌধূরী, প্রবীর ধর, মনোহর মন্ডল, কাজী নজরুল ইসলাম, প্রভাত চ্যাটার্জী ও আব্দুল কুদ্দুস।
১৬ নং নেহালপুর ইউনিয়ন
এখানে মনোনয়ন প্রত্যাশি ৬ জনের নাম পাওয়া গেছে। এরা হলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি রুহুল আমিন, সাধারন সম্পাদক কামরুজ্জামান, আবুল কালাম মোল্যা, এমএম ফারুক হুসাইন, আমিনুর রহমান ও শামছুর রহমান।
১৭ নং মনোহরপুর ইউনিয়ন
এখানে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশি ৭ জনের নাম উঠে এসেছে। এরা হলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি কালীপদ মন্ডল, সিরাজুল ইসলাম, প্রণব সরকার, বর্তমান চেয়ারম্যান মাস্টার মশিয়ূও রহমান, মুহিতুজ্জামান বিশ্বাস, জাহিদুজ্জামান সরদার ও দীপালী রায়।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌর মেয়র কাজী মাহমুদুল হাসান জানান, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় আওয়ামী লীগ পরিবারের যে কেউ মনোনয়ন প্রত্যাশির তালিকায় পাবেন। এরপর রেজুলেমনকৃত তালিকা আগামী ১৮ নভেম্বর কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে প্রেরন করা হবে।

শেয়ার