শার্শায় প্রাক্তন জামাইয়ের হাতে শ্বশুর খুন

সাড়াতলা (শার্শা) প্রতিনিধি॥ যশোরের শার্শায় প্রকাশ্য দিবালোকে প্রাক্তন জামাইয়ের হাতে হত্যাকা-ের শিকার হয়েছেন মুছা বিশ্বাস (৪৫)। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার উপজেলার লক্ষণপুর ইউনিয়নের দূর্গাপুর গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের মৃত মনছের বিশ্বাসের ছেলে। এ হত্যাকা-ের ঘটনায় সাবেক জামাই তুহিন সরদার (২৫) ও তুহিনের পিতা কুদ্দুস সরদারকে (৪৫) আটক করা হয়েছে।

নিহতের ভাই আলিম ও ইউপি মেম্বর রাশেদ জানায়, দূর্গাপুর গ্রামের মুছা বিশ্বাসের পাঁচ মেয়ের মধ্যে বড় মেয়ে সুহানা খাতুন (২২) এবং একই গ্রামের কুদ্দুস সরদারের ছেলে তুহিন সরদারের (২৭) সাথে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। তাদের সংসারে আয়ান সরদার নামে দুই বছরের ছেলের জন্ম হয়। এরই মাঝে উভয় পরিবারের মধ্যে পারিবারিক দ্বন্দ্বে¦র সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে লক্ষণপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনোয়ারা খাতুনসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে শালিস বৈঠকের মাধ্যমে দুই মাস আগে তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। শালিস বৈঠকে শর্ত থাকে শিশু আয়ান পিতা-মাতা উভয়ের কাছে আসা যাওয়া করবে। কিন্তু চার পাঁচ দিন আগে তুহিন সরদার জোর পূর্বক শিশু আয়ানকে নিজ বাড়িতে নিয়ে এসে আর তার মায়ের কাছে না পাঠালে শিশুটির নানা মুছা বিশ্বাস মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে তাকে নিতে তুহিনের বাড়িতে আসেন। কিন্তু শিশুটিকে তার মায়ের কাছে পাঠাতে না চাইলে কথাকাটাটির এক পর্যায়ে তুহিন সরদার তার সাবেক শ্বশুর মুছা বিশ্বাসকে (৪৫) ধারালো অস্ত্র দিয়ে শরীরে এলোপাতাড়ি আঘাত করেন। গুরুতর জখম অবস্থায় স্বজনরা তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য নাভারণ হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান। প্রকাশ্যে দিবালোকে এই হত্যাকা-ের ঘটনার নিহতের পরিবার স্বজন ও এলাকাবাসীর মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। বর্তমানে গ্রামটিতে থমথমে অবস্থায় বিরাজ করছে।

গোড়পাড়া পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এস আই আকরাম হোসেন জানান, লাশ উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতাল থেকে ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। আটক করা হয়েছে দুইজনকে।

শেয়ার