আদালতের ব্যতিক্রমী রায় ॥ যশোরে মাদক মামলায় বাড়িতে সাজা ভোগ করবেন এক নারী

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে মাদক মামলায় সাজাপ্রাপ্ত রানু বেগম নামে এক নারীকে ৯টি শর্তে প্রবেশনে মুক্তি দিয়েছেন আদালত। গতকাল যুগ্ম দায়রা জজ শিমুল কুমার বিশ্বাস এই রায় দিয়েছেন। দণ্ডপ্রাপ্ত রানু বেগম অভয়নগর উপজেলার গুয়াখোলা রেলবস্তি এলাকার আব্দুল মতিন হাওলাদারের স্ত্রী। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদালতের অতিরিক্ত সরকারি কৌশুলি লতিফা ইয়াসমিন।

শর্তগুলো হলো, সমাজসেবা অধিদপ্তরের প্রবেশন অফিসারের নজরদারিতে থেকে কোন প্রকার অপরাধের সাথে জড়িত থাকতে পারবেন না। শান্তি বজায় রেখে সকলের সাথে সদাচারণ করতে হবে। আদালত অথবা আইন প্রয়োগকারী সংস্থা তাকে যে কোনো সময় তলব করিলে শাস্তি ভোগের জন্য প্রস্তুত হয়ে নির্ধারিত স্থানে হাজির হতে হবে। কোন প্রকার মাদক সেবন, বহন, সংরক্ষণ এবং সেবনকারী, বহনকারী ও হেফাজতকারীর সাথে মেলামেশা করা যাবে না। আদালতকে না জানিয়ে দেশের বাইরে যেতে পারবেন না।

সামাজিক দায়িত্বের অংশ হিসেবে নিজ উপজেলার ১১ জন নিরক্ষর নারীকে অক্ষর দান করতে হবে। প্রবেশনকালীন সময় নিজ এলাকায় বাল্য বিবাহের সংবাদ পেলেই তাৎক্ষণিক ৩৩৩ কিংবা ৯৯৯ এ কল করে সংশ্লিষ্ট থানাকে জানাতে হবে। এছাড়াও বাড়িতে বসে প্রবেশনকালীন সময়ে মুক্তিযুদ্ধ চেতনা ও মক্তিযুদ্ধে নারী অবদানের বিষয় ধারণ ও সংরক্ষণের জন্য মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক পাঁচটি বই পড়তে হবে। সেগুলো হলো, জাহানারা ইমামের একাত্তরের দিনগুলি, নীলিমা ইব্রাহিমের আমি বীরঙ্গনা, মালেকা বেগমের মুক্তিযুদ্ধে নারী, মুহম্মদ জাফর ইকবলের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও আনিসুল হকের ‘মা’।

শেয়ার