নওয়াপাড়া পৌরসভা নির্বাচন আজ, ভোট ইভিএমে

নওয়াপাড়া (যশোর) প্রতিনিধি ॥ আজ (সোমবার) নওয়াপাড়া পৌরসভার ভোট। এবারই প্রথম নওয়াপাড়া পৌরসভায় ৩০টি কেন্দ্রে ইভিএমে (ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন) ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। যদিও ভোটারদের ইভিএমের বিষয়ে কোন ধারণাই নেই। এনিয়ে ভোটারদের মধ্যে একটা সংশয় ও আতংক রয়েছে। নির্বাচনে মেয়র পদে ৩ জন, ৯টি ওয়ার্ডে সাধারন কাউন্সিলর পদে ৫৫ জন, সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১১ জন প্রার্থী প্রতিদ¦ন্দ্বিতা করছেন।

শনিবার প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে মক ভোট সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু মক ভোটে ভোটারদের সাড়া মেলেনি। নওয়াপাড়া সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে সকাল থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত মাত্র ৩ জন ভোটার আসেন বলে জানান প্রিজাইডিং অফিসার গোমলাম সামদানী। অন্যান্য কেন্দ্রেও ভোটার উপস্থিতি কম বলে জানা গেছে।
উপজেলা নির্বাচন অফিস সুত্রে জানা গেছে, নওয়াপাড়া পৌরসভায় মোট ভোটার রয়েছে ৬৩ হাজার ৩২৭ জন। তার মধ্যে পুরুষ ভোটার ৩১ হাজার ১৪১ জন, মহিলা ভোটার ৩২ হাজার ১৮৬ জন। ৯টি ওয়ার্ডে ৩০টি কেন্দ্রে ১৮৪টি বুথ থাকবে।

মেয়র পদে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান মেয়র সুশান্ত দাস শান্ত (নৌকা), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের এইচ এম মহাসিন শেখ (হাতপাখা), জাতীয় পার্টির আলমগীর ফারাজী (লাঙ্গল) নিয়ে লড়ছেন।
শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন নিয়ে আওয়ামীলীগের সমর্থকরা খুশি থাকলেও অপর দুই মেয়র প্রার্থী ও তার সমর্থকদের মধ্যে সংশয় ও আতংক রয়েছে।

আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী সুশান্ত দাসের পক্ষে দলের সকল নেতাকর্মী ঐক্যবদ্ধ। দলের গ্রুপিং লবিং থাকলেও নির্বাচনে সব নেতা কর্মী নৌকার পক্ষে এক হয়ে কাজ করায় সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন আওয়ামীলীগের প্রার্থী।

আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা মনে করেন নওয়াপাড়া পৌরসভায় ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে পৌরবাসী আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীকেই ভোট দেবে।
অপরদিকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের এইচ এম মহসিন শেখের পক্ষের নেতাকর্মীরা নির্বাচনে ইভিএম নিয়ে বেশী সংশয় ও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। তাদের ধারণা নির্বাচনে সরকার দলীয় প্রার্থী প্রশাসনকে ম্যানেজ করে নির্বাচনী ফলাফল তাদের পক্ষে নিয়ে নেবে।

জাতীয় পার্টির প্রার্থী আলমগীর ফারাজীও জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী।তিনি ও তার নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে প্রচার প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন।

আওয়ামীলীগ প্রার্থী সুশান্ত দাস শান্ত বলেন ‘বিগত ৫ বছরে নওয়াপাড়া পৌরসভায় ব্যাপক উন্নয়ন করেছি। করোনার সময়ে পৌরবাসীর পাশে থেকে সর্বদা সেবা প্রদান করায় সাধারণ মানুষের মন জয় করতে পেরেছি বলে বিশ্বাস করি। দলীয় নেতাকর্মীদের সকল বিভেদ ভুলে একযোগে কাজ করছে। জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের এইচ এম মহসিন শেখ অভিযোগ করে বলেন ‘তার নেতাকর্মীদের ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে। সাধারণ মানুষ ভোট দিতে ভয় পাচ্ছে। সাধারণ মানুষ ভোট দিতে পারলে জয়ের ব্যাপারে তিনিও আশাবাদী।

অভয়নগর উপজেলা নির্বাচন কমিশনার মোঃ হাবিবুর রহমান জানান, নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি সম্পূর্ণ হয়েছে। নির্বাচন অবাধ, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ করার সকল প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার আমিনুর রহমান বলেন, অবাধ সুষ্ঠ নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন করতে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।

শেয়ার