ম্যাচ শুরুর আগে সিরিজ বাতিল নিউ জিল্যান্ডের একতরফা সিদ্ধান্তে পাকিস্তানের হতাশা

সমাজের কথা ডেস্ক॥ সবে দলগুলো পাকিস্তান সফর করতে শুরু করেছিল, ধীরে ধীরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের স্বাদ পেতে যাচ্ছিল ক্রিকেট ভেন্যুগুলো। এর মধ্যেই বড় এক ধাক্কা খেয়েছে দেশটি। প্রথম ওয়ানডে শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে নিরাপত্তা শঙ্কায় সিরিজ স্থগিত করে দেশে ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নিউ জিল্যান্ড। তাদের একতরফা সিদ্ধান্ত হতাশ করেছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডকে (পিসিবি)।

২০০৯ সালে লাহোরে সফরকারী শ্রীলঙ্কা দলের বাসে সন্ত্রাসী হামলার পর থেকে দীর্ঘ দিন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট হয়নি পাকিস্তানে। লম্বা সময় নিরপেক্ষ ভেন্যুতে ‘হোম সিরিজ’ খেলা দেশটিতে ধীরে ধীরে সফর শুরু করছিল বিভিন্ন দেশ।

পিসিবির নতুন প্রধান রমিজ রাজার জন্য নিউ জিল্যান্ডের এই সিদ্ধান্ত নিশ্চিতভাবেই বড় এক ধাক্কা। পাকিস্তানের প্রধান মন্ত্রী ও সাবেক অধিনায়ক ইমরান খানও মন গলাতে পারেননি সফরকারীদের। দেড় যুগ পর এসে কোনো ম্যাচ না খেলেই ফিরে যাচ্ছে নিউ জিল্যান্ড।

এক বিবৃতিতে শুক্রবার সিরিজ ভেস্তে যাওয়ায় হতাশার কথা জানায় পিসিবি।

“আজ সকালে নিউ জিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড নিরাপত্তা নিয়ে সতর্কবার্তা পাওয়ার কথা আমাদের জানায় এবং এরপর তারা একতরফাভাবে সিরিজ স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেয়। যদিও পিসিবি ও পাকিস্তান সরকার সফরকারী প্রতিটি দলের জন্য নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা করে।”

“আমরা নিউ জিল্যান্ডকে আশ্বস্ত করেছিলাম, তাদের জন্যও একই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আমাদের প্রধান মন্ত্রী ব্যক্তিগতভাবে নিউ জিল্যান্ডের প্রধান মন্ত্রীর সঙ্গে এ নিয়ে কথা বলেন এবং জানান, আমাদের বিশ্বের অন্যতম সেরা একটি গোয়েন্দা ব্যবস্থা রয়েছে। সফরকারী দলের জন্য কোনো ধরনের নিরাপত্তা শঙ্কা নেই।”

পিসিবির মতে, শেষ মুহূর্তে সিরিজ থেকে নিউ জিল্যান্ডের সরে যাওয়ার ঘটনা পাকিস্তান ও সারা বিশ্বের ক্রিকেটপ্রেমী মানুষকে হতাশ করবে। একই মত পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজমের। এক টুইটে তিনি নিজের মত জানান।

“হুট করে সিরিজ স্থগিত করে দেওয়ায় ভীষণ হতাশ। এই সিরিজ পাকিস্তানের লাখো ক্রিকেট ভক্তর মুখে হাসি ফোটাতে পারত। আমাদের নিরাপত্তা এজেন্সিগুলোর সামর্থ্য ও বিশ্বাসযোগ্যতার উপর আমার পূর্ণ আস্থা আছে। তারা আমাদের গর্ব এবং সব সময় তাই থাকবে।”

তিনটি ওয়ানডে ও পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজটি শুরু হওয়ার কথা ছিল শুক্রবার, রাওয়ালপিন্ডিতে। কিন্তু প্রথম ওয়ানডের সকালে কোনো দলই তাদের হোটেল রুম ছাড়েনি। আর দর্শকদের অনুমতি দেওয়া হয়নি মাঠে ঢোকার।

সকাল থেকে অনেকটা সময় অনিশ্চয়তায় থাকার পর নিউ জিল্যান্ড ক্রিকেট বিবৃতিতে জানায়, নিরাপত্তা শঙ্কায় পাকিস্তানে খেলতে পারছে না তারা। দেশটি ছাড়ার প্রস্তুতি চলছে তাদের।

বাংলাদেশ সফর শেষে গত ১১ সেপ্টেম্বর পাকিস্তানে যায় নিউ জিল্যান্ড দল। বোর্ডের পক্ষ থেকে পাঠানো নিরাপত্তা দলের সবুজ সংকেতের পরই দেশটিতে সফরের সিদ্ধান্ত নেয় কিউইরা। সেখানে গিয়ে তিনটি ট্রেনিং সেশন করে তারা। কিন্তু তাদের সব প্রস্তুতি ভেস্তে গেল শেষ মুহূর্তে।

এই সফর দিয়ে ১৮ বছর পর পাকিস্তানে খেলার কথা ছিল নিউ জিল্যান্ডের। কিন্তু নিরাপত্তা শঙ্কায় তা পেল না আলোর মুখ। সবশেষ ২০০৩ সালের পাকিস্তান সফরে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে স্বাগতিকদের বিপক্ষে হোয়াইটওয়াশড হয়েছিল তারা।

ওই সফর ছিল ২০০২ সালের সফরের অংশ। যেটা বাতিল হয়েছিল করাচিতে নিউ জিল্যান্ড দলের টিম হোটেলের বাইরে বোমা বিস্ফোরণের পর। পরের বছর তারা ঠিকই গিয়েছিল পাকিস্তানে।

শেয়ার