উজবেকিস্তান সফরের ‘আত্মবিশ্বাস’ পেল না বাংলাদেশ

সমাজের কথা ডেস্ক॥ মূল লক্ষ্য এএফসি এশিয়ান কাপের বাছাই। নেপালের দুটি প্রীতি ম্যাচ তাই নিজেদের গুছিয়ে নেওয়া, আত্মবিশ্বাস সঞ্চয় করে নেওয়ার উপলক্ষ ছিল বাংলাদেশের জন্য। কিন্তু গোলাম রব্বানী ছোটনের দলের কাছে অধরাই থাকল জয়।

কাঠমান্ডুর দশরথ স্টেডিয়ামে রোববার দ্বিতীয় ও শেষ প্রীতি ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে গোলশূন্য ড্র করেছে বাংলাদেশ। প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে ২-১ গোলে হেরেছিল তারা।

নেপালের বিপক্ষে টানা দুই হারের পর ড্র করল বাংলাদেশ। ২০১৯ সালে বিরাটনগরে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের গ্রুপ পর্বে নেপালের কাছে ৩-০ গোলে হেরেছিল কৃষ্ণা-সাবিনারা। ওই প্রতিযোগিতার পর লম্বা বিরতি শেষে নেপালের বিপক্ষে প্রথম প্রীতি ম্যাচটি দিয়ে আন্তর্জাতিক ফুটবলে ফেরে মেয়েরা।

প্রথমার্ধে আক্রমণে এগিয়ে ছিল নেপাল। রক্ষণ সামলে মাঝে মধ্যে প্রতিপক্ষের রক্ষণে হানা দেয় সাবিনা-কৃষ্ণারা।

২০তম মিনিটে প্রতিপক্ষের এক ফরোয়ার্ড বলের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার আগেই মাসুরা পারভীন নিখুঁত স্লাইডিংয়ে কর্নারের বিনিময়ে বিপদমুক্ত করেন। ১০ মিনিট পর সুযোগ তৈরি করেছিলেন কৃষ্ণা রানী সরকার। কিন্তু এক ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে বাইলাইনের কিছুটা ওপর থেকে এই ফরোয়ার্ডের শট ক্রসবারের উপরের দিকে লেগে বেরিয়ে যায়।

প্রথমার্ধের শেষ দিকে বেশ চাপ দেয় নেপাল। ৪২তম মিনিটে বাঁ দিক দিয়ে আক্রমণে ওঠা রাশমি কুমারি গিসিংকে আটকাতে পেছন থেকে ফাউল করে হলুদ কার্ড দেখেন মারিয়া মান্ডা।

এরপর রাশমির শট আটকান মাসুরা, তবে বল পুরোপুরি বিপদমুক্ত হয়নি। নিলুফা ইয়াসমিন নীলাও বল ক্লিয়ার করার চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু তা গিয়ে পড়ে আগের ম্যাচে গোল করা প্রীতি রায়ের পায়ে। এই ফরোয়ার্ডের শট ব্লক করে দলের ত্রাতা শিউলি আজিম।

দ্বিতীয়ার্ধেও দুই দলের খেলা চলেছে একই ধাঁচে। প্রতি-আক্রমণ নির্ভর খেলা বাংলাদেশের অধিনায়ক সাবিনা খাতুনের ৬৬তম মিনিটে ফ্রি কিক সরাসরি যায় গোলরক্ষকের গ্লাভসে।

নেপাল থেকে উজবেকিস্তানের উদ্দেশ্যে রওনা দেবে বাংলাদেশ দল। সেখানে বুনিয়দকর স্টেডিয়ামে আগামী ১৫ সেপ্টেম্বরে শুরু হয়ে এশিয়ান কাপের বাছাই শেষ হবে ২৫ সেপ্টেম্বর। ‘জি’ গ্রুপে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ জর্ডান ও ইরান।

শেয়ার