আদালতের আদেশ কার্যকর না করে গায়েব করার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ আদালতের মালামাল ক্রোকের আদেশ কার্যকর না করে দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য গায়েব করে ফেলেছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে। এ ঘটনায় মাগুরা পুলিশ সুপার বরাবর ডাকযোগে অভিযোগ পাঠিয়েছেন যশোর শহরের পশ্চিম বারান্দীপাড়ার লায়লা পারভীন। তিনি ১২ সেপ্টেম্বর (রোববার) যশোর প্রধান ডাকঘরের মাধ্যমে রেজিস্ট্রি ডাকে অভিযোগ পাঠিয়েছেন। যার নম্বর ৬৯৯।

অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেছেন, যশোর পারিবারিক জজ আদালতের পারিবারিক জারি ৩২/২০ নম্বর মামলার মালামাল ক্রোকজারি করণের লক্ষে যশোর সদর সেরেস্তাদার থেকে ৪৪২ নম্বর স্মারকে ২০২০ সালের ৮ অক্টোবর মাগুরা নাজিরখানায় পাঠানো হয়। এরপর নাজির খানা থেকে আদালতের আদেশ জারি কার্যকর করার জন্য মাগুরার শালিখা থানায় পাঠানো হয়। থানার এএসআই জাহিদ হোসেনের দায়িত্ব পান। ওই বছরের ২০ অক্টোবর এএসআই জাহিদ হোসেন দায়িত্বভার গ্রহণ করলেও এখনো আদালতের আদেশ কার্যকর করা হয়নি।
লায়লা পারভীন খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, ২০২০ সালের ২৮ অক্টোবর থানার ৩২৫১ নম্বর স্মারকে যশোর পারিবারিক আদালতের নির্দেশনাটি কার্যকর করা হয়েছে। কিন্তু তার কোন চিঠি বা অনুলিপি মাগুরা আদালতকে জানানো হয়নি। রেজিস্টারে লেখা থাকলেও এএসআই জাহিদ হোসেন আদালতের আদেশটি কার্যকর না করে মোটা অংকের টাকা নিয়ে গায়ের বা নষ্ট করে দিয়েছেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করেছেন। তিনি সংশ্লিষ্ট পুলিশ সদস্যের সাথে কথা বললে প্রথমে অস্বীকার করলেও পরবর্তীতে আদালতের নির্দেশনা কার্যকর করার দায়িত্ব পেয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত জাহিদ হোসেন জানান, আদালতের আদেশ নিয়মতান্ত্রিকভাবে কার্যকর করা হয়েছে। অভিযোগ সঠিক নয়।

শেয়ার