সাতক্ষীরায় জামিনে বেরিয়েই চিংড়ি ঘেরের ঘর পুড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ

আব্দুল জলিল, সাতক্ষীরা॥ আদালত থেকে জামিন পেয়ে বাড়ি ফিরেই চিংড়ি ঘেরের বাসাবাড়িতে পেট্রোল ঢেলে আগুনে পুড়িয়ে দিলো সন্ত্রাসীরা। সেখানে ঘের করতে দেয়া হবে না বলেও তারা হুমকি দিয়ে চলে গেছে।
সোমবার রাতে এঘটনা ঘটে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার রমজাননগর ইউনিয়নের কালিঞ্চী গ্রামে। ঘেরমালিক সাহাবুদ্দিন আহমেদ বাবু জানান, তারা ঘেরের মাছও লুটপাট করে নিয়ে গেছে।

১৯৮৯ সাল থেকে এখন পর্যন্ত ৩০ বছরেরও বেশী সময় ধরে ৮০ বিঘা আয়তনের এই ঘেরটির নাম একতা ফিস প্রকল্প। সাহাবুদ্দিন আহমেদ বাবু নিজেই এই ঘেরের মালিক ও পরিচালক। অভিযোগ করে তিনি বলেন, সাম্প্রতিক অতিবৃষ্টির কারণে ঘেরটি তলিয়ে গেলে গ্রামের মধ্যে পানি ঢুকে পড়ে। এই পানি অপসারণের সময় না দিয়ে স্থানীয় কয়েক ব্যক্তি মাছের ঘেরের গেট ভাংচুর করে। তারা ঘেরের অন্যান্য সম্পদও লুটপাট করে। এ বিষয়ে তিনি শ্যামনগর থানায় একটি মামলা করেন ২৪ জনকে আসামি করে। তিনি জানান, সোমবার তাদের মধ্যে ১৭ জন আদালত থেকে জামিন পেয়ে ফিরে এসেই রাতে তার ঘেরের বাসাবাড়িতে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এসময় ঘেরে থাকা কর্মচারীরা প্রাণভয়ে পালিয়ে যায়। অপরদিকে তারা ঘেরের মাছ ও অন্যান্য সরঞ্জাম লুটপাট করে নিয়ে যায়। এসব সন্ত্রাসীর মধ্যে রয়েছেন আব্দুল মাজেদ, আব্দুল গফুর, আলম, কেরামত আলী, মেহেদী বাবু, মিজানুর রহমান মিজান, মহসীন আলী, আব্দুল আলিম বাবু। সাহাবুদ্দিন আহমেদ বাবু তাদের বিরুদ্ধে আবারও থানায় অভিযোগ করেছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে, শ্যামনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) ওয়াহেদ মোর্শেদ জানান, ঘেরের বাসা পুড়িয়ে দেওয়া ও লুটপাটের খবর তিনি শুনেছেন। তবে এখন পর্যন্ত কোন লিখিত অভিযোগ পাননি।

শেয়ার