পুকুরে রোলার উল্টে পড়ে প্রাণ গেল কিশোরের, চালক পলাতক

খাজুরা (যশোর) প্রতিনিধি॥ যশোরের বাঘারপাড়ায় পুকুরে রোলার উল্টে মিরাজ হোসেন (১৫) নামে এক কিশোরের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় রোলারটি জব্দ করা গেলেও চালক এখনো পলাতক রয়েছে। মঙ্গলবার (৭ সেপ্টেম্বর) বেলা আড়াইটার দিকে উপজেলার খাজুরা- চতুরবাড়িয়া সড়কে এই দুর্ঘটনা ঘটে।
নিহত মিরাজ হোসেন জহুরপুর ইউনিয়নের উত্তর চাঁদপুর গ্রামের ব্রুনাই প্রবাসী আশরাফুল ইসলামের একমাত্র ছেলে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গত ১ বছর যাবৎ খাজুরা-চতুরবাড়িয়া সড়ক সংস্কার ও প্রশস্তকরণের কাজ চলছে। কাজ পেয়েছে রিজভী কন্সট্রাকশন নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। মঙ্গলবার সকাল থেকে জহুরপুর ইউনিয়নের হলিহট্ট এলাকায় রাস্তার কাজ চলছিলো। রোলার চালাচ্ছিলেন মানিকগঞ্জ জেলার আনিসুর রহমান। তার পাশে ছিল মিরাজ। বেলা আড়াইটার দিকে রোলারটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে আমিন উদ্দীন পুকুরে পড়ে যায়। এ সময় চালক লাফ দিয়ে পালিয়ে গেলেও রোলারের নিচে চাপা পড়ে পানিতে ডুবে মারা যায় মিরাজ। প্রায় আড়াই ঘন্টার চেষ্টায় বিকেল পাঁচটায় বাঘারপাড়া ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সদস্যরা তার মরদেহ উদ্ধার করে।

নিহতের চাচা আব্দুল আজিজ জানান, মিরাজ অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ালেখা করেছে। খাজুরা-চুতরবাড়িয়া সড়কে ইঞ্জিনচালিত লাটা হাম্বার গাড়ি চালাতো। গত ১৫ দিন যাবৎ রোলার চালানো শিখছিলো। কিন্তু আমরা তাকে রোলার চালানো শিখতে নিষেধ করেছিলাম। পাশাপাশি রাস্তার কাজে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজারকে বিষয়টি জানিয়েছিলাম। তারপরও তারা মিরাজকে এই ভারী যান (রোলার) চালানো শিখতে নিয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

অভিযোগ অস্বীকার করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজার তরিকুল ইসলাম জানান, ‘আমি আজই বিষয়টি শুনলাম। এ ব্যাপারে এরআগে কেউ আমাকে কিছু জানায়নি।’

রাত পৌনে আটটায় খাজুরা পুলিশ ক্যাম্পের উপপরিদর্শক আলমগীর হোসেন মুঠোফোনে জানান, মরদেহ বাঘারপাড়া থানায় নেয়া হচ্ছে। ময়নাতদন্ত হবে কিনা এই মুহুর্তে বলা যাচ্ছে না। এ ঘটনায় নিহতের পরিবার অভিযোগ করলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার