তালার মাগুরায় পশুহাট ভাঙচুরসহ জমি দখলের অভিযোগ, এলাকায় উত্তেজনা

তালা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি ॥ তালার মাগুরা পশুহাট ভাংচুর সহ হাটের জমি দখল করে ঘেরাবেড়া দেয়া হয়েছে। হাট দখলের ঘটনায় বাঁধা দিলে হাট পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব দেবাশিষ মুখার্জ্জীকে পিটিয়ে আহত করা হয়। ঘটনার প্রতিবাদে স্থানীয় ব্যবসায়ী ও মাগুরা বাজার কমিটির নেতৃবৃন্দ প্রতিবাদমূখর হয়ে উঠলে এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ে। তালা থানার ওসি মো. মেহেদী রাসেল সহ একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে দ্রুত পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করেন। এদিকে হাটের খাটাল ভাংচুর সহ হাট দখলকে কেন্দ্র করে শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) সেখানে সাপ্তাহিক পশুহাট হতে পারেনি। ফলে দূর-দুরান্ত থেকে পশু ক্রেতা ও বিক্রেতারা হাটে এসে হতাশ হয়ে ফিরে যান। এঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা শুরু হয়েছে।

উপজেলার মাগুরা বাজার পশু হাট পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব দেবাশীষ মূখার্জ্জী জানান, এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে স্থানীয় বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় মাগুরা বাজারের পশ্চিমপাশে পশু হাট স্থাপন করা হয়। হাট প্রতিষ্ঠার পর তালার সহকারী কমিশনার (ভূমি) অফিসের নির্দেশে জেলা প্রশাসক- সাতক্ষীরা নামে ১০শতাংশ জমি রেজিস্ট্রি করে দিয়ে হাটের কার্যক্রম শুরু হয়। বিগত প্রায় ২ বছর ধরে এখানে হাট চলছে। কিন্তু এই হাটের ১০ শতক জমি সহ একই দাগ ও খতিয়ানভুক্ত ১ একর ১৬ শতক জমির মালিকানা এবং দখল-বেদখল নিয়ে প্রায় ৬/৭ মাস আগ থেকে বিরোধ শুরু হয়। এবিষয়ে সাতক্ষীরা বিজ্ঞ আদালতে মামলা চলমান রয়েছে। এরইমধ্যে হাটের জমি রাতের আঁধারে দখলকে কেন্দ্র করে থানায় অভিযোগ হয়। তালা থানার ওসি স্থানীয় বিশিষ্ট ব্যক্তিদের নিয়ে বিরোধ মিমাংসার উদ্যোগ নেন এবং দফায় দফায় সালিস করেন।

দেবাশীষ মূখার্জ্জী বলেন, এই হাটকে কেন্দ্র তালার সহকারী কমিশনার (ভূমি) এস.এম. তারেক সুলতান বিবিধ মিস কেস ০১/২০২১ এর শুনানী শেষে গত ১ সেপ্টেম্বর এ আদেশ দেন। এপ্রেক্ষিতে আমরা হাট কমিটির পক্ষ থেকে পরবর্তী আইনী পদক্ষেপ গ্রহনে করনীয় বিষয়ে সভা করার প্রস্তুতি নিতে থাকি। কিন্তু এরইমধ্যে বৃহস্পতিবার দুপুরে মাগুরাডাঙ্গা গ্রামের শেখ মহাসিন আলীর ছেলে শেখ আব্দুল্লাহ আল মাসুম ভাড়াটিয়া দূর্বৃত্তদের সাথে নিয়ে মাগুরা পশুহাট ভাংচুর সহ হাটের জমি জোর দখল করে চারিপাশ দিয়ে ঘেরাবেড়া দিয়ে হাট বন্ধ করে দেয়। হাট কমিটির নেতৃবৃন্দ সহ বাজারের লোকজন এসময় এগিয়ে আসলে মাসুমের নেতৃত্বে দূর্বৃত্তরা তাদের উপর হামলা চালায়। হামলায় দেবাশীষ মূখার্জ্জী গুরুতর আহত হন। এঘটনার সংবাদ পেয়ে হাটের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও আওয়ামীলীগ নেতা শেখ আব্দুল হালিম টুটুল ও জেলা পরিষদ সদস্য মাহফুজা রুবিসহ স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। তৎক্ষনাত তালা থানার ওসি মো. মেহেদী রাসেল ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করেন।

এদিকে, হাটের জমি দখল, ভাংচুর ও হাট বন্ধের ঘটনায় শনিবার সাপ্তাহিক হাটের দিনে এলাকায় ফের উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এ অবস্থায় এলাকার ব্যবসায়ীরা সহ পশু ক্রেতা ও বিক্রেতারা বিধি মোতাবেক হাট পরিচালনায় সার্বিক অনুমতি পেতে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন। একইসাথে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ পূর্বক পশু হাট কার্যক্রম চলমান রাখা ও এলাকায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সমুন্নত রাখার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এদিকে, হামলা ও জোর দখলের বিষয়টি অস্বীকার করে আব্দুল্লাহ আল মাসুম বলেন, আমি রেকর্ডীয় মালিকের কাছ থেকে জমি কিনে সেখানে ভোগদখলে আছি। আমি হাটের জমি জোর দখল, কোনও প্রকার হামলা বা ভাঙচুর করিনি। এই পশু হাটকে আইনী পরিপন্থী হিসেবে উল্লেখ করে হাটের সকল কার্যক্রম বাতিল করে হাটের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের জন্য উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইতোমধ্যে রায় দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে তালা থানার ওসি মো. মেহেদী রাসেল বলেন, মাগুরা পশু হাট এলাকায় আইনশৃঙ্খলা সমুন্নত রাখতে সবসময় দৃষ্টি রাখা হয়েছে। সেখানে শান্তিপূর্ন পরিবেশ রক্ষার্থে সবধরনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

শেয়ার