যশোরে চাঁদাবাজির অভিযোগে সন্ত্রাসী ম্যানসেলের ক্যাডার জাফর আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরে চিহ্নিত সন্ত্রাসী ম্যানসেল বাহিনীর পোষ্য ক্যাডার জাফরকে চাঁদাবাজির অভিযোগে আটক করেছে পুলিশ। শহরের শংকরপুর মুরগি ফার্ম গেট এলাকায় এই ঘটনার পর ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী সেলিম মিয়া ২ সেপ্টেম্বর রাতে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করেছেন। মামলায় জাফরের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরো ৫/৬ জনকে আসামি করা হয়েছে। আটক জাফর শংকরপুর গাড়োয়ানপট্টির তনু মিয়ার ছেলে।

বাদী মামলায় বলেছেন, শংকরপুর মুরগির খামারের সামনে তার একটি স্যানিটারির দোকান আছে। আসামি জাফর একজন চিহ্নিত সন্ত্রাসী। ষষ্ঠীতলার শীর্ষ সন্ত্রাসী মেহেবুব রহমান ম্যানসেলের একান্ত সহযোগী। ম্যানসেলের সেল্টারে থেকে দীর্ঘদিন ধরে শংকরপুর, মুরগি ফার্ম, গাড়োয়ানপট্টি, রেল বাজার, স্টেশন, ষষ্ঠীতলা, চাঁচড়াসহ বিভিন্ন এলাকায় চাঁদাবাজি, বোমাবাজি, ছিনতাই, ডাকাতি, খুন খারাবি, স্টেশন সংলগ্ন ডোম পট্টিতে হামলা ও বোমাবাজি, মাদক ও অস্ত্রের কারবার করে বেড়ায়। তার বিরুদ্ধে অন্তত দেড় ডজনের মত মামলা রয়েছে। গত ২৪ আগস্ট শংকরপুর মুরগি ফার্মগেটে ব্যবসায়ী সেলিম মিয়ার কাছে চাঁদা হিসেবে এককালীন ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। পাশাপাশি প্রতি মাসে আরো ৫ হাজার টাকা করে দিতে হবে বলে জানায়। এছাড়া একই এলাকার অপর ব্যবসায়ী আনিসুল হকের কাছে দুই হাজার এবং কাঠ মিস্ত্রি শহিদুলের কাছেও এক হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। ব্যবসায়ীরা চাঁদার টাকা দিতে অস্বীকার করায় কাছে থাকা চাকু বের করে সেলিম মিয়াকে হত্যার উদ্দেশ্যে আঘাত করে। এসময় আনিচুর রহমান এগিয়ে এলে তাকেও মারপিট করে। পরে ব্যবসায়ীরা এগিয়ে এলে হত্যার হুমকি দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে আহতদের উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা নেয়া হয়। এপরে থানায় এই মামলা করা হলে পুলিশ জাফরকে আটকের পর গতকাল শুক্রবার আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এলাকাবাসী আরো জানিয়েছে, কয়েকমাস আগে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে গণপিটুনির শিকার হয়েছিল জাফর। সে সময়ও তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা হয়েছিল।

শেয়ার