শংকরপুরে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বে খুন হয় সন্ত্রাসী শাওন’

 জড়িত আরো ৩জন গ্রেফতার, অস্ত্র উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ আধিপত্য বিস্তার, চাঁদাবাজি, অস্ত্র ও মাদকের কারবারকে কেন্দ্র করেই শাওন ওরফে টুনি শাওন খুন হয়েছেন বলে তথ্য পেয়েছে পুলিশ। গত সোমবার দুপুরে ডিবি পুলিশের কার্যালয়ে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করে সাংবাদিকদের এমনই তথ্য দেয়া হয়েছে। পুলিশ এসময় হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত তিনজনকে আটক ও হত্যাকাজে ব্যবহৃত একটি ছুরি, একটি চাইনিজ কুড়াল, একটি মোটরসাইকেল ও তিনটি মোবাইল ফোন উদ্ধারের তথ্য জানিয়েছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) জাহাংগীর আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক-সার্কেল) বেলাল হোসাইন, ডিবি’র ওসি রুপন কুমার সরকার, এসআই মফিজুল ইসলাম ও এসআই শামিম হোসেন প্রমুখ।

আটককৃতরা হলো, যশোর শহরের শংকরপুর আশ্রম রোড মুরগি ফার্মগেট এলাকার রবিউল ইসলাম সরদারের ছেলে ইয়াসিন হাসান রানা, ঝিকরগাছা উপজেলার ইত্যা গ্রামের মৃত আব্দুল কাদের বিশ্বাসের ছেলে হাফিজুর রহমান বিশ্বাস ড্যাবো এবং একই উপজেলার জয়কৃষ্ণপুর গ্রামের আমিন মোড়লের ছেলে জয়। এদিনই তাদের আদালতে সোপর্দ করা হলে গ্রেপ্তার রানা নিহত শাওনের খুনে দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে। এই মামলায় এর আগে আটক হয়েছিল শংকরপুর এলাকার আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে মোহাম্মদ আলী, মিন্টু শেখের ছেলে বিল্লাল হোসেন মৃদুল ও মৃত কটার ছেলে মানিক।

জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের ওসি রুপন কুমার সরকার জানান, নিহত শাওন ওরফে টুনি শাওন এবং হত্যাকারীরা পরস্পর সহযোগী চাঁদাবাজ ও সন্ত্রাসী। তাদের মধ্যে এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দ্বন্দের জের ধরে ঘটনার দিন গত ২২ জুলাই রাতে শাওনকে ডেকে নিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়িভাবে কুপিয়ে জখম করে। জীবন বাঁচাতে ছোটনের মোড়ের কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির অফিসে ঢুকলেও রক্ষা পায়নি। ঈদের কারণে অফিসে কেউ ছিলেন না। একই সাথে ওই এলাকা জনশূণ্য ছিল। এই সুযোগটি নেয় হত্যাকারী সন্ত্রাসীরা।
পুলিশ পরিদর্শক রুপন কুমার সরকার আরও জানান, এই ঘটনায় নিহতের পিতা আব্দুল হালিম শেখ ৮ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরো ৪/৫জনের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করেন। এই মামলায় পুলিশ এর আগে তিনজনকে আটক করে। গতকাল সোমবার ভোর রাতে ইয়াসিন হাসান রানা ও জয়কে শহরের ষষ্ঠীতলার ভাড়া বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ। এসময় রানার ভাড়া বাসার বাথরুমের মধ্যে থেকে শাওনকে হত্যাকা-ে ব্যবহৃত ছুরি ও চাইনিজ কুড়াল উদ্ধার করা হয়। এরপর অভিযান চালানো হয় ঝিকরগাছার হাফিজুর রহমান ড্যাবোর বাড়িতে। তাকে আটকের পর ফিরে এসে যশোর শহরের বেজপাড়ার জনৈক এ্যাকুরিয়াম বাবুর বাড়িতে অভিযান চালিয়ে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত গোল্ডেন ফিরোজের মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করা হয়।
এদিনই আটক তিনজনকে জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হলে আটক ইয়াসিন হাসান রানা হত্যাকা-ে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছে। আর জয় ও ড্যাবোকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ডে আনা হবে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা চাঁচড়া ফাঁড়ি ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক রোকিবুজ্জামান।

শেয়ার