মহামারীকালের দ্বিতীয় হজ পালিত

সমাজের কথা ডেস্ক॥ মহামারীকালে দ্বিতীয় বছরের মত সীমিত পরিসরে সৌদি আরবে হজ পালন করেছেন মুসলমানরা। মাস্ক আর শারীরিক দূরত্বের নিয়মের সঙ্গে এবার রয়েছে করোনাভাইরাসের টিকা নেওয়ার বাধ্যবাধকতা।

আধুনিক যুগে গতবছরই প্রথম মহামারীর কারণে সৌদি আরবের বাইরে থেকে কেউ মক্কায় এসে হজে যোগ দিতে পারেননি। এবারও বহাল রয়েছে সে নিয়ম। স্বাস্থ্যবিধি ও হাজিদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এবার বিশেষ ‘স্মার্ট হজ কার্ড’ চালু করেছে সৌদি আরব।

তবে হজে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা গতবারের চেয়ে বেড়েছে। সৌদি আরবে অবস্থান করা মুসলমানদের মধ্যে যারা করোনাভাইরাসের দুই ডোজ টিকা নিয়েছেন, তাদের মধ্যে থেকে ১৫০ দেশের ৬০ হাজার জন এবার হজ করতে পারছেন। গতবার নজিরবিহীন বিধিনিষেধের মধ্যে মাত্র ১ হাজার মুসলমান হজ করার সুযোগ পেয়েছিলেন।

এবারের হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে গত শনিবার। হজের সুযোগ পাওয়া মুসলমানরা রোববার সারা দিন মিনায় কাটিয়েছেন ইবাদত বন্দেগিতে।

সোমবার ফজরের নামাজ আদায় শেষে মিনা থেকে তাদের নিয়ে যাওয়া হয়েছে আরাফাতের ময়দানে। এখানেই হজের মূল আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়েছে। বিদায় হজের স্মৃতিবিজড়িত এ ময়দান প্রকম্পিত হয়েছে ‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক ‘ ধ্বনিতে।

আরাফাতে মসজিদে নামিরাহ থেকে হজের খুতবা পাঠ করা হয় । এবার খুতবা দেন মসজিদুল হারামের ইমাম ও খতিব শায়খ ড. বান্দার বিন আবদুল আজিজ বালিলা।

সূর্য অস্ত যাওয়ার পর আরাফাত ময়দান থেকে হাজিরা যান ৮ কিলোমিটার দূরে মুজদালিফায়। এশার নামাজ পড়ে সেখানেই তারা রাত কাটাবেন। প্রতীকী শয়তানের উদ্দেশে নিক্ষেপের জন্য তাদের সরবরাহ করা হবে জীবাণুমুক্ত করা পাথর।

মঙ্গলবার ফজরের নামাজ শেষে মুজদালিফা থেকে ফিরবেন মিনায়। সেখানে শয়তানের উদ্দেশে প্রতীকী পাথর নিক্ষেপ শেষে পশু কোরবানি ও মাথা মু-ন করে হাজিরা ফিরবেন স্বাভাবিক পোশাকে। সবশেষে কাবা শরিফকে বিদায়ী তাওয়াফের মধ্যে দিয়ে শেষ হবে হজের আনুষ্ঠানিকতা।

শেয়ার