ভিক্ষুক সেজে প্রতারণার সময় ধরা পড়ে দুই যুবক গণধোলাইয়ের শিকার

কোটচাঁদপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি॥ ভিক্ষুক সেজে প্রতারণার সময় জনতার হাতে ধরা পড়ে গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছে দুই যুবক। বুধবার বিকালে কোটচাঁদপুরের মল্লিকপুর গ্রাম থেকে পুলিশ তাদের উদ্ধার করেছে।
জরিনা খাতুন নামে এক ভুক্তভোগী জানান, গেল ৩ মাস আগে মৌলভী সেজে ধোকা দিয়ে আমার কাছ থেকে ২০ হাজার ৬শ’ টাকা নিয়ে যায়। এরপর থেকে আমি তাদের খুঁজে বেড়াচ্ছি। বুধবার বিকালে ভিক্ষুক সেজে সাহাষ্য তুলে বেড়াচ্ছিল তারা। এ সময় আমি তাদের দেখে চিনতে পারি। এরপর আমার চিৎকারে মানুষ জড়ো হতে থাকে। এক পর্যায়ে পুলিশে খবর দেয়া হয়। খবর পেয়ে লক্ষিপুর কাম্পের পুলিশ তাদের উদ্ধার করে কোটচাঁদপুর থানায় নিয়ে যায়। ওই কাম্পের উপ-সহকারি পুলিশ পরিদর্শক সাইদুল ইসলাম জানান, মোবাইলে জানতে পারি এঘটনা। এরপর ঘটনাস্থল গিয়ে তাদের উদ্ধার করা হয়। জরিনা ও এলাকার মানুষ বলছেন, তারা মানুষের সাথে প্রতারণার মাধ্যমে টাকা নিয়েছে। তবে ওই দুইজন বলছে, বোনের ক্যান্সার। এজন্য তাঁর চিকিৎসার জন্য টাকা তুলছে। যাচাই-বাচাই চলছে। স্যার আসলে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। ওই প্রতারক দুইজনের একজনের বাড়ি মাগুরা সদর ও অন্যজনের বাড়ি মাগুরার শ্রীপুর থানায়। রয়েল খান মাগুরা সদরের রফিকুল ইসলামের ছেলে ও ফরিদ হোসেন শ্রীপুরের ইদ্রিস আলীর ছেলে। রয়েল খানের নামে দুই মামলা আছে বলে থানা সুত্রে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে কোটচাঁদপুর থানার (ভারপ্রাপ্ত) কর্মকর্তা মঈন উদ্দিন জানান, যারা ধরে রাখছিল, তারা এখন মামলা করবে না। তবে তারা প্রতারণা করে বেড়ায়। তা না হলে এতদুর কেন আসবে। তাদের অভিভাবদের খবর দেয়া হয়েছে। আসলে যাচাই-বাচাই করে একটা কিছু করা যাবে।

শেয়ার