বাগেরহাটে টিকটক নিয়ে দ্বন্দ্বে স্ত্রীকে হত্যা করে থানায় স্বামীর আত্মসম্পর্ণ

মোঃ কামরুজ্জামান, বাগেরহাট ॥ বাগেরহাটে টিকটক করা নিয়ে দ্বন্দ্বে স্ত্রীকে হত্যা করে থানায় আত্মসমর্পণ করেছেন স্বামী আব্দুল্লাহ নাহিন শান্ত। শনিবার (৮ মে) রাতে দশানী এলাকার বালিকা বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকায় এই হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। নিহতের নাম শ্রাবনি আক্তার সুমা (২০)। নিহত সুমা বাগেরহাট শহরের সিংড়াই গ্রামের বাসিন্দা করিম বক্সের মেয়ে। অন্যদিকে ঘাতক শান্ত দশানী এলাকার বাসিন্দা অবসর প্রাপ্ত সেনা সদস্য গোলাম মোহাম্মদের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, শান্ত ঢাকার একটি পোশাক ফ্যাক্টরিতে চাকরি করতেন। সম্প্রতি করোনা পরিস্থিতে তিনি চাকরি হারিয়ে বাড়িতে ফিরে আসেন। বাড়িতে আসার কিছুদিন পর শান্ত ও তার স্ত্রী সুমার মধ্যে টিকটক করা নিয়ে ঝগড়া হয়। পরে সুমা রাগ করে বাবার বাড়িতে চলে যান। বাড়িতে কেউ না থাকার সুবাধে এদিন বিকালে শান্ত ফোন করে তার স্ত্রীকে বাড়িতে ডেকে নেন। মাগরিবের নামাজের পর তাদের মধ্যে ঝগড়া শুরু হয়। এসময় শান্ত তার স্ত্রী সুমাকে মুখে কিলঘুষি দিয়ে ওড়না দিয়ে শ^াসরোধ করে হত্যা করে থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করেন।

নিহতের বড় ভাই মোঃ রাসেল বলেন, শান্ত আমার বোনকে হত্যা করবে। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে আমার বোন আমাকে বিকাল ৫টার দিকে মেসেজ দেয়। কিন্তু মেসেজটি আমি দেখি রাত ৮টার দিকে। ছুঁটে গিয়ে দেখি শান্ত আমার বোনকে হত্যা করেছে। আমি আমার বোন হত্যার বিচার চাই।

বাগেরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কে,এম আজিজুল ইসলাম বলেন, স্ত্রীকে হত্যা করে শান্ত নামের এক যুবক থানায় আত্মসমর্পণ করেছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। মরদেহ উদ্ধার করে বাগেরহাট সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

শেয়ার