মোরেলগঞ্জে খালে ছুঁড়ে ফেলে শিশু হত্যা ॥ আটক ৩

মোরেলগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে ডাকাত পরিবারের হাতে এক শিশু নিহত হয়েছে। এ সময় আরও ৩ জন আহত হন। শনিবার বেলা ১টার দিকে ভাষন্ডা গ্রামের কামাল হাওলাদারের ছেলে তানভিরকে (৪) খালে ছুঁড়ে ফেলে হত্যা করে কবির বয়াতী ওরফে কবির ডাকাত ও তার লোকজন। শিশু তানভির এ সময় তার মামা জালাল হাওলাদারের সাথে মোটর সাইকেলে মোরেলগঞ্জ বাজারের দিকে যাচ্ছিল।

কবির বয়াতীর বোন মর্জিনা বেগমের বাড়ির সামনে থেকে যাবার সময় কবির ও তার সহযোগীরা জালালকে মোটরসাইকেল থেকে ফেলে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে এবং সাথে থাকা ভাগনে তানভিরকে খালে ছুঁড়ে ফেলে দেয়।

খবর পেয়ে জালালের পিতা চানমিয়া হাওলাদার (৬০) ও ভাই রেজাউল (২৮) ঘটনাস্থলে ছুঁটে গেলে তাদেরকেও পিটিয়ে ও কুপিয়ে গুরুতর জখম করে কবির বাহিনীর সন্ত্রাসীরা। স্থানীয়রা পরে তানভিরকে খাল থেকে উদ্ধার করে মোরেলগঞ্জ হাসপাতালে নিলে ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

প্রসঙ্গত, ভাষন্ডা গ্রামের ছত্তার বয়াতীর ছেলে কবীর বয়াতী অতি সম্প্রতি ওই গ্রামের একটি জনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তা কেটে মানুষের চলাচলে ভোগান্তির সৃষ্টি করে। এ ঘটনার প্রতিবাদ করলে স্থানীয় জালাল হাওলাদারসহ বহু লোকের সাথে তার শত্রুতার সৃষ্টি হয়। এই শত্রুতার জের ধরে শনিবার জালালকে মারপিট ও শিশু তানভিরকে খালে ফেলে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন তানভিরের পিতা কামাল হাওলাদার।

এ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে কবির বয়াতীর ভগ্নিপতি সাখাওয়াত হোসেন (৬০), বোন মর্জিনা বেগম (৫৫) ও ভাগনী সারমিন আক্তার ময়নাকে আটক করেছে পুলিশ।
এ বিষয়ে থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, শিশু তানভিরের মরদেহ পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে। ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই কবির বয়াতীর বিরুদ্ধে মোরেলগঞ্জ থানায় দুটি ডাকাতি ও পুলিশকে মারপিটসহ বিভিন্ন অপরাধে ১৫টি মামলা রয়েছে বলে থানা সূত্রে জানা গেছে। থানা পুলিশ ও এলাকাবাসির কাছে সে ‘কবির ডাকাত’ নামে পরিচিত।

শেয়ার