তাপপ্রবাহ অব্যাহত, পুড়ছে যশোরাঞ্চল

 টানা তিনদিন দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড

টানা তাপপ্রবাহের মধ্যে পড়েছে যশোর। কয়েকদিন ধরে সারা দেশের মধ্যে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকছে জেলায়। প্রচন্ড গরমে শীতল পরশ পেতে পুকুরে গোসল ও ঝাপাঝাপি করতে দেখা গেছে অনেকের। ছবিটি গতকাল যশোর সদরের নাজির শংকারপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকা থেকে তোলা…এইচ আর পরাগ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ অব্যাহত তাপপ্রবাহে পুড়ছে যশোরাঞ্চলের প্রাণ-প্রকৃতি। টানা তিনদিন দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা যশোরে। এর মধ্যে গত রোববার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৪১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা গত সাত বছরের মধ্যে দেশের সর্বোচ্চ। এর আগে ২০১৪ সালে চুয়াডাঙ্গায় ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছিল। গতকাল সোমবার যশোরে দেশের সর্বোচ্চ ৩৯ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।

দেশজুড়ে তাপদাহে ঘরে কিংবা বাইরে সবখানেই কাতর সবাই। তপ্তদুপুরে গরমের তীব্রতায় নাগরিক জীবনের এমন হাঁসফাঁস অবস্থার মধ্যে আবহাওয়া অফিস জানাচ্ছে, স্বস্তির সুসংবাদ পেতে আরো অপেক্ষা করতে হবে।
সোমবার সকাল থেকেই বইছে গরম হাওয়া। রোদের তেজের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ে গরমের তীব্রতাও।
তবে আগের কয়েক দিনের চেয়ে তা একটু বেশি অসহনীয় ঠেকলেও আবহাওয়া অফিস বলছে, রোববারের চেয়ে তাপমাত্রা কিছুটা কমেছে। জ্যেষ্ঠ আহাওয়াবিদ ড. আবুল কালাম মল্লিক জানান, তাপমাত্রা তুলনামুলকভাবে কমলেও বৃষ্টি না থাকায় অসহনীয় এমন গরম হাওয়া বয়ে যাচ্ছে। মাসের শেষ দিকে বৃষ্টির আভাস দিচ্ছেন আবহাওয়াবিদরা।

সোমবারও ঢাকা, ময়মনসিংহ, রাজশাহী, রংপুর, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের উপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে।

সোমবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে যশোরে ৩৯.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩৯.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আগের দিন যশোরে সর্বোচ্চ ৪১.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও ঢাকায় ৩৯.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়।

সোমবার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, “সারাদেশে বিরাজমান তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে। দিন-রাতের তাপমাত্রা অপরিবর্তিত থাকতে পারে। ২৯ এপ্রিলের দিকে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টির আভাস রয়েছে। এর ফলে ৩০ এপ্রিল, ১ ও মে দেশের বিভিন্ন এলাকায় বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে; এসময় তাপপ্রবাহ প্রশমিত হয়ে আসবে।“

ব্যারোমিটারের পারদ যদি ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে ওঠে, আবহাওয়াবিদরা তাকে মৃদু তাপপ্রবাহ বলেন। উষ্ণতা বেড়ে ৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস হলে তাকে বলা হয় মাঝারি তাপপ্রবাহ। আর তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি ছাড়িয়ে গেলে তাকে তীব্র তাপপ্রবাহ হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

যশোরস্থ বিমান বাহিনীর মতিউর রহমান ঘাঁটির আবহাওয়া অফিস সূত্র মতে, টানা কয়েক দিন ধরে যশোরে তাপপ্রবাহ চলছে। সপ্তাহজুড়ে তাপমাত্রা ৩৭ ডিগ্রি থেকে ৪০ ডিগ্রির মধ্যে বিরাজ করছে। শনিবারও দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল যশোরে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর রোববার দুপুর ১২টায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৩৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। দুপুর দুইটায় তা ৪১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে গিয়ে দাঁড়ায়। সোমবার যশোরে রেকর্ড করা হয়েছে ৩৯ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা। যা এদিনের দেশের সর্বোচ্চ। এ তাপপ্রবাহ সপ্তাহজুড়ে বিরাজ করবে বলে পূর্বাভাস দিয়েছেন দপ্তরটির কর্মকর্তারা।

এদিকে, তীব্র এই দাবদাহের দাপট জনজীবন জেরবার করে তুলেছে। হাঁসফাঁস করে তোলা গরমে মানুষের মতন পশুপাখিও কাবু হয়ে পড়ছে। সবমিলিয়ে প্রচন্ড খরতাপে দগ্ধ হচ্ছে এখানকার প্রকৃতি, প্রাণ ও জীববৈচিত্র্য। এছাড়া তীব্র এই তাপপ্রবাহ ও অনাবৃষ্টির ফলে ভূগর্ভস্থ পানির স্তরও অনেক নিচে নেমে গেছে। যার কারণে সুপেও পানিরও সংকট দেখা দিয়েছে।

 

শেয়ার