খোদাভীতি ও জান্নাত পাওয়ার আশায় মাহে রমজান

আলহাজ এম. এ. কাদের
ইসলামে খোদাভীতি বা তাকওয়া আল্লাহর কাছে অধিক প্রিয়। রোজার সাথে তাকওয়ার স¤পর্ক রয়েছে। এককথায় রোজাদার ব্যক্তির মধ্যেই আল্লাহভীতি বিদ্যমান। এ কারণেই রোজাদারকে আল্লাহতায়ালা অধিক মর্যাদা দিয়েছেন। মহান আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেন, রোজা আমার জন্য এবং আমি নিজ হাতে রোজার প্রতিদান দিবো। রমজান মাসের এমন অনেক মর্যাদা ও বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা অন্য কোনো মাসে নেই। পবিত্র কুরআন-হাদিসের বিভিন্ন স্থানে রোজা পালনের উচ্চ মর্যাদা ও বৈশিষ্ট্যের বর্ণনা রয়েছে। মহান আল্লাহ এ মাসের রোজা ফরজ করেছেন। এ মাসেই পবিত্র কুরআনুল কারিম নাজিল করা হয়েছে (সুরা বাকারা : আয়াত ১৮৫)। এ মাসের ইবাদত বন্দেগির ব্যাপারে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাহাবাদেরকে সুসংবাদ দিতেন। রজব ও শাবান মাস জুড়ে রমজানের ইবাদত-বন্দেগির জন্য নিজেকে তৈরি করতেন, দোয়া পড়তেন এবং সাহাবীদেরকে দোয়া করতে বলতেন। রমজান মাসে রহমত ও বরকত অবতীর্ণ হয়। এ মাসের জান্নাতের দরজা খুলে দেয়া হয়, জাহান্নামের দরজা বন্ধ রাখা হয় এবং শয়তানকে বন্দি করে রাখা হয়। রমজানের রাত ও দিনে মুসলমানের দোয়া অনবরত আল্লাহর দরবারে কবুল করা হয়। কুরআনের ঘোষণায় এ মাসে রয়েছে বরকতময় লাইলাতুল কদর। এ মাসের প্রতি রাতেই ফেরেশতাগণ মানুষকে আল্লাহর দরবারে ক্ষমা চাওয়ার জন্য আহ্বান করতে থাকে। পবিত্র রমজান মাসেই আল্লাহ তা’লা মুসলমানদেরকে প্রথম সমর অভিযান, বদরের যুদ্ধে বিজয় দান করেছিলেন। রমজান মাসে উমরা আদায় করলে নবীকরিম (সা.) এর সঙ্গে হজ পালনের সাওয়াব পাওয়া যায়। সুতরাং যদি কেউ পবিত্র রমজান মাসের রোজা অস্বীকার করে, তাহলে সে ইসলাম ধর্মকে অস্বীকারকারী হিসেবে পরিগণিত হবে।

মহান সৃষ্টিকর্তা জিন এবং ইনসানকে (মানুষ) সৃষ্টি করেছেন শুধুমাত্র তাঁর ইবাদত করার জন্য। রোযাদারের রমজানের রোজা একজন ঈমানদারের বৈশিষ্ট্য বহন করে থাকে। আল্লাহ তা’লাকে সন্তুষ্ট করার যতগুলি ইবাদত আছে তার মধ্যে অন্যতম ইবাদত হচ্ছে রোজা। আল্লাহ তায়ালার অনুগ্রহ পাওয়ার আর যতগুলি ইবাদত আছে, ঐ ইবাদতগুলো নিখুঁতভাবে পালন করে আল্লাহকে খুশি করা অনেকটা কঠিন কাজ। মহান আল্লাহকে পরিপূর্ণভাবে তাঁর আনুগত্যে আছি, এটাই একজন রোজাদার রোজা থেকে সহজেই প্রমাণ দিতে পারেন। একজন রোজাদার এই এপ্রিল মাসের খরতাপ, গরমের মধ্যে তৃষ্ণায় কাতর হয়ে জাহান্নামের ভয়ে জান্নাতের আশায় রোজা পালন করেন শুধুমাত্র আল্লাহকে খুশি করার জন্য।
একজন রোজাদার রোজা রেখে তৃষ্ণায় কাতর হয়ে এত কষ্টের মধ্যে ইচ্ছা করলে ঘরের মধ্যে গোপনে একাকী তাঁর তৃষ্ণা নিবারন করতে পারেন। কিন্তু একমাত্র আল্লাহর হুকুম পালনের জন্যই তাকওয়ার কারণে অধিক কষ্ট স্বীকার করে তিনি রোজা রাখেন। আর এই কারণেই আল্লাহ তায়ালার বুঝতে বাকি থাকে না যে, বান্দা আমাকে বিশ্বাস করে রোজা রাখছে। আল্লাহ তায়ালা রোজাদারদের উপর খুশি হয়ে কঠিন হাসরের ময়দানে নিজ হাতে হাউজে কাওসারের পানি পান করিয়ে চিরতরে পিপাসা নিবারন ও জান্নাত দিয়ে পুরস্কৃত করবেন।
আমরা মুসলমান, যাঁরা আল্লাহকে বিশ্বাস করি পরকালে কঠিন শাস্তির ভয়ে ও বেহেস্তের অসীম সুখ, অনাবিল আনন্দ পাওয়ার ইবাদত পবিত্র রমজানের রোজা। রমজানে রোজা পালনের মধ্য দিয়ে সকলের জন্য বয়ে আসুক জান্নাতের বার্তা।

লেখক : সাংবাদিক ও কলামিষ্ট

শেয়ার