মসজিদে তারাবিতে সর্বোচ্চ ২০ মুসল্লি

সমাজের কথা ডেস্ক॥ করোনাভাইরাস সংক্রমণ এড়াতে এবারও রোজায় মসজিদে তারাবিতে মুসল্লির সংখ্যা বেঁধে দিয়েছে সরকার। ধর্ম মন্ত্রণালয় সোমবার এক নির্দেশনায় জানিয়েছে, যে কোনো মসজিদে তারাবিতে খতিব, ইমাম ও হাফেজসহ সর্বোচ্চ ২০ জন অংশ নিতে পারবেন।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে বুধবার বাংলাদেশে রমজান মাস শুরু হতে পারে, তাহলে মঙ্গলবার থেকে শুরু হবে তারাবি পড়া। মঙ্গলবার জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি সেই সিদ্ধান্ত জানাবে।

কোভিড-১৯ মহামারির কারণে গত বছরের এই সময়েও মসজিদে জমায়েত সীমিত করে দিয়েছিল সরকার।
মাঝে পরিস্থিতির উন্নতিতে বিধি-নিষেধ শিথিল হলেও সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ে রোগী ও মৃত্যুর সংখ্যা হু হু করে বাড়ায় বুধবার থেকে ‘সর্বাত্মক লকডাউনে’ যাচ্ছে দেশ।

এই সময়ে মসজিদে কী করতে হবে, সোমবার সেই নির্দেশনা দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়, যা ১৪ এপ্রিল থেকে পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত চলবে বলে জানানো হয়েছে।
>> মসজিদে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের প্রতি ওয়াক্তে সর্বোচ্চ ২০ জন মুসল্লি অংশগ্রহণ করবেন।
>>তারাবির নামাজে খতিব, ইমাম, হাফেজ, মুয়াজ্জিন ও খাদিমসহ সর্বোচ্চ ২০ জন মুসল্লি অংশগ্রহণ করবেন।
>>জুমআর নামাজে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে মুসল্লিরা অংশ নেবেন।
স্থানীয় প্রশাসন, আইন শৃঙ্খলা বাহিনী, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং সংশ্লিষ্ট মসজিদের পরিচালনা কমিটিকে নির্দেশনা বাস্তবায়নের জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে।

 

শেয়ার