হোটেলে নারীসহ অবরুদ্ধ হেফাজত নেতা মামুনুল

 সঙ্গীকে দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি
ফোনালাপ ফাঁস

সমাজের কথা ডেস্ক॥ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের একটি হোটেলে নারীসহ হেফাজত নেতা মামুনুল হককে আটক করেছে স্থানীয় জনতা। পরে তাকে ছিনিয়ে নিয়ে গেছে হেফাজতে ইসলামের নেতা-কর্মীরা। তবে পুলিশ দাবি করেছে, তারা মামুনুলকে পাহারা দেওয়ার পর হেফাজতের নেতাদের হাতে তুলে দিয়েছে। এদিকে, সাথে থাকা নারীকে দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি করলেও মামুনুলের ফোনালাপ ফাঁসের পর তা নিয়ে নানা বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে।
শনিবার নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের রয়্যাল রিসোর্টে নারীসহ বেড়াতে গিয়ে স্থানীয় জনগণের হামলার মুখে পড়েছেন হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মামুনুল হক। শনিবার বিকাল ৩টায় রয়াল রিসোর্টের ৫ম তালার ৫০১ নম্বর কক্ষে তাকে অবরুদ্ধ করা হয়। পরে পুলিশ গিয়ে তাকে উদ্ধার করে। মামুনুল হকের দাবি, সঙ্গে থাকা নারী নাম আমিনা তৈয়ব। তিনি মামুনুল হকের দ্বিতীয় স্ত্রী। আমিনাকে সঙ্গে নিয়ে রিসোর্টে ঘুরতে গিয়েছিলেন তিনি।

নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম জানান, মামুনুল হক নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও থানাধীন রয়েল রিসোর্টের একটি কক্ষে এক নারীসহ অবস্থান করছেন- এমন খবরে স্থানীয় লোকজন রিসোর্ট ঘেরাও করে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে যায়। মামুনুল হক পুলিশকে জানিয়েছেন সঙ্গে থাকা নারী তার দ্বিতীয় স্ত্রী। পরে পুলিশ তাকে নিরাপত্তা দিয়ে সেখান থেকে উদ্ধার করেছে।

স্থানীয় পুলিশ জানায়, মামুনুল হক সকালে রয়েল রিসোর্টের ৫০১ নম্বর কক্ষটিতে উঠেন। দুপুর থেকেই এলাকায় চাউর হয় মামুনুল হক এক নারীসহ রিসোর্টে অবস্থান করছেন। এই খবরে এলাকার লোকজন রিসোর্টটি ঘেরাও করে।

পরে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে হেফাজতের কর্মীরা ওই রিসোর্টে হামলা চালায় এবং মামুনুল হককে ছিনিয়ে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে যায়। এসময় মামুনুল হকের সঙ্গে থাকা নারীকেও নিয়ে গেছে তারা। তবে এসময় ওই হোটেল এলাকায় বেশ কিছু ভাঙচুরের করেছে হেফাজতের কর্মীরা।

নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এ কে এম মোশাররফ হোসেন জানান, হেফাজতের ঢাকা মহানগরের আমির এবং কেন্দ্রীয় হোজতে ইসলামের যুগ্ম সম্পাদক মামুনুল হক তার দ্বিতীয় স্ত্রী আমেনা তাইয়্যেবাকে সাথে নিয়ে দুপুর দুইটা ৪০ মিনিটে সোনারগাঁ রয়্যাল রিসোর্টে আসেন। তারা ওই হোটেলের ৫ তলার একটি কক্ষে ওঠেন। তবে সঙ্গে সঙ্গে বিষয়টি জেনে যায় স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন। কয়েকদিন আগে হেফাজতের এই নেতাসহ অন্যদের রুদ্রমূর্তি ধারণের ঘটনার পর সত্যিই তিনি কী কারণে সেখানে এসেছেন এবং তার সঙ্গে থাকা নারীর পরিচয় কী তা জানতে ওই রিসোর্টে আসে পুলিশ। ওই কক্ষে তাদের পেয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করা হয়।
পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেছেন, এসময় মামুনুল দাবি করেন, তার সঙ্গে থাকা নারী তার দ্বিতীয় স্ত্রী। তার নাম আমেনা তাইয়্যেবা। তাকে নিয়ে সোনারগাঁওয়ের কারুশিল্প এলাকা ঘুরে অবকাশ যাপনের জন্য এই রিসোর্টে এসেছেন। তবে গত কয়েক মাস ধরে নানা ঘটনায় বিতর্কিত এই নেতাকে নারীসহ আটক ও জিজ্ঞাসাবাদ করার খবরে সঙ্গে সঙ্গে বিষয়টি স্থানীয় জনগণ ও স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরাও জেনে যায়। তারাও সেখানে যান। সেখানে মামুনুল হকের সঙ্গে পুলিশের কথোপকথন তাদের অনেকেই ফেসবুকে লাইভ করায় বিষয়টি সঙ্গে সঙ্গে সারাদেশে ছড়িয়ে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা দাবি করেছেন, মাওলানা মামুনুলকে আটকের খবর পেয়ে বিভিন্ন মাদ্রাসা থেকে হেফাজতের কর্মীরা ষেখানে জড়ো হয়ে ওই রিসোর্টে হামলা চালায়। তারা গেট ভাঙচুর করে। এরপর হেফাজতের কর্মীরা ওই হোটেলের প্রতিটি তলায় সবগুলো কক্ষ ভাঙচুর করে। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে সেখান থেকে তাকে ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

তবে পুলিশ দাবি করেছে, তারা নিজেরাই হেফাজতের কর্মীদের হাতে তাদের নেতাকে তুলে দিয়েছে। এছাড়াও তাদের আরেকটি দলের কাছে মাওলানা মামুনুল হকের স্ত্রী আমেনা তাইয়েব্যাকে তুলে দিয়েছে।
তবে ওই ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হেফাজতের নেতা-কর্মীরা যখন দল বেঁধে রিসোর্টটিতে ঢুকে ভাঙচুর শুরু করে তখন পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে সটকে পড়ে।

জানা গেছে, রাত আটটার দিকে হেফাজতের নেতারা মামুনুল হককে ওই রিসোর্ট থেকে এক কিলোমিটার দূরে চৌরাস্তা হাবিবপুর ঈদগার পাশের একটি মসজিদে নিয়ে যায়। সেখানে বসে দলীয় কর্মীদের উদ্দেশে বক্তব্যও রাখেন মামুনুল হক।

ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা গেছে, ওই রিসোর্টের নিচতলার গার্ডরুম, অভ্যর্থনা কক্ষ, সুইমিংপুল ভাঙচুরসহ দোতলা ও তৃতীয়তলার আবাসিক কক্ষগুলোর সব কাচ ভেঙে দিয়েছে হেফাজতের কর্মীরা। তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানর জন্য হোটেল কর্তৃপক্ষের কাউকে সেখানে ওই মুহূর্তে পাওয়া যায়নি।

 

শেয়ার