যবিপ্রবির কর্মচারী সমিতির বিদায়ী সভাপতি সম্পাদকের বিরুদ্ধে ‘অর্থ আত্মসাতের প্রমাণ’

 সংবাদ সম্মেলন করে জানালেন বর্তমান নেতৃবৃন্দ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (যবিপ্রবি) কর্মচারী সমিতির ২০১৯-২০ সেশনের সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে সমিতির অর্থ আত্মসাতের প্রমাণ মিলেছে। গতকাল যবিপ্রবি কর্মচারী সমিতি আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে কর্মচারী সমিতি এ তথ্য জানান। এই অনিয়মের অভিযোগে অভিযুক্ত সাধারণ সম্পাদককে সংগঠন থেকে আজীবন বহিস্কার করা হয়েছে।

দপ্তর সম্পাদক বাবলুর রহমান লিখিত বক্তব্যে বলেন, গেল বছরের ৩ নভেম্বর নব-গঠিত কর্মচারী সমিতির প্রথম সাধারণ সভায় বিগত কমিটির নিকট হতে সমিতির আয়-ব্যয় বুঝে নেওয়ার জন্য ৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। কমিটি ১ লাখ ৪৪ হাজার টাকার হিসাব অসঙ্গতি পেয়ে প্রতিবেদন দেয়। পরে সমিতির কার্যনির্বাহী কমিটি চলতি বছরের ২৪ জানুয়ারির সভায় বিগত কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নিকট আয়ের অসঙ্গতি বিষয়ে ব্যাখ্যা চেয়ে চিঠি দেওয়া হয়। বিগত সভাপতি ব্যাখ্যা প্রদান করলেও সম্পাদক ব্যাখ্যা প্রদান না করায় পুনরায় ২ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয়বার তার নিকট পত্র প্রেরণ করা হয়। পত্রের আলোকে ৫ ফেব্রুয়ারি সাধারণ সম্পাদক ব্যাখ্যা প্রদান করেন। ব্যাখ্যা সন্তোষজনক মনে না হওয়ায় বিষয়টি নিয়ে সুষ্ঠু মতামত প্রদানের জন্য গত ৮ ফেব্রুয়ারি ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটি সুষ্ঠু মতামতের লক্ষ্যে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ৫ কর্মদিবসের সময় চেয়ে বর্তমান গঠিত কর্মচারী সমিতি নিকট একটি পত্র প্রদান করেন। পত্রের আলোকে কার্যনির্বাহী কমিটি গত ১৫ ফেব্রুয়ারি ৫ কর্মদিবস সময় বর্ধিত করে মতামত কমিটির নিকট পত্র দেন।

তিনি আরো বলেন, সকল বিষয় বিবেচনায় সমিতির বিগত সভাপতি তার ভুল স্বীকার ও নিঃস্বার্থ ক্ষমা প্রার্থনা করেন। এছাড়া তিনি বর্তমানে কর্মচারী সমিতির সদস্য নন। বর্তমানে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন কর্মকর্তা পদে পদোন্নতি পেয়েছেন। তার সম্মান ও ক্ষমা প্রার্থনার বিষয়টি বিবেচনা করে বর্তমান সমিতির সাধারণ সভায় উপস্থিত সকল সদস্যের সম্মতিতে তাকে অসঙ্গতি অর্থ বিগত কর্মচারী কমিটির সাধারণ সম্পাদকের সাথে মিল করে অর্থ যবিপ্রবি কর্মচারী সমিতির ব্যাংক হিসাবে ফেরত প্রদান করার সিদ্ধান্ত নেয়। তবে, সাধারণ সম্পাদক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বশীল পদে দায়িত্বে থাকাকালীন সময়ে ক্ষমতার অপব্যবহার, অর্থ আত্মসাত করায় যবিপ্রবি কর্মচারী সমিতির গঠণতন্ত্রের লঙ্ঘনের করেছেন। কর্মচারী উন্নয়নের পরিবর্তে অকল্যাণকাজ করার তাকে আজীবন সংগঠনের সদস্য পদ বাতিল করা হয়েছে। সেই সাথে সমিতির অর্থ আত্মসাতের টাকা সমিতির ব্যাংক হিসাবে ফেরত আনার বিষয়ে বর্তমান কর্মচারী সমিতি ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করেছে। সেই অর্থ ফেরত আনার লক্ষ্যে গঠিত কমিটি আইনি সহযোগিতাও গ্রহণ করতে পারবে বলে জানান তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনের সভাপতি শওকত ইসলাম সবুজ, সহ সভাপতি এস এম রাজু আহম্মেদ, রুমেল রহমান রনি, সাধারণ সম্পাদক বদিউজ্জামান বাদল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইমদাদুল হক টুটুল, কোষাধ্যক্ষ অসীম কুমার রায়, সাংগঠনিক সম্পাদক রায়হান পারভেজ প্রমুখ।

শেয়ার