প্রধানমন্ত্রীর উপহার পেয়ে বইছে আনন্দধারা

সমাজের কথা ডেস্ক॥ বঙ্গবন্ধু জন্মশত বর্ষে শেখ হাসিনা সরকারের যুগান্তকারী পদক্ষেপ ভূমিহীন ও গৃহহীনদের সরকারি অর্থে ঘর বানিয়ে হস্তান্তর। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছিষট্টি হাজারের বেশি পরিবারকে গৃহ উপহার দেওয়ায় জেলায় জেলায় বইছে আনন্দধারা। তালিকাভুক্ত প্রায় নয় লাখ পরিবারের মধ্যে প্রথম দফায় জমিসহ ৬৬ হাজার ১৮৯টি ঘরের মালিকানা বুঝিয়ে দেওয়া হয় শনিবার। দুই শতক জায়গার উপর নিয়ে দুইটি শোবার ঘর, রান্নাঘর ও বাথরুম। ইটের দেয়াল, উপরে টিনের চাল। আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর প্রতিটি ঘরের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে এক লাখ ৭৫ হাজার টাকা।

প্রতিনিধিদের পাঠানো সংবাদ :
অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি জানান, অভয়নগরের ৫৭ পরিবারকে জমি ও গৃহের মালিকানা বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নাজমুল হুসেইন খাঁনের সভাপতিত্বে জমি ও গৃহ প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শাহ্ ফরিদ জাহাঙ্গীর, নওয়াপাড়া পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সুশান্ত কুমার দাস শান্ত, সহকারী কমিশনার (ভূমি) কেএম রফিকুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান আক্তারুজ্জামান তারু, মিনারা পারভীন, অভয়নগর থানার ওসি (তদন্ত) মিলন কুমার মন্ডল, নওয়াপাড়া বাজার কমিটির সভাপতি গাজী নজরুল ইসলাম, নওয়াপাড়া প্রেসক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নজরুল ইসলাম মল্লিক, উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা ফারুক হুসাইন সাগর, নওয়াপাড়া সরকারি মহাবিদ্যালয়য়ের উপাধ্যক্ষ প্রশান্ত কুমার, পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএম আব্দুল্লাহ আল মামুন, ইউপি চেয়ারম্যান মফিজ উদ্দিন, নাদির মোল্যা, বাবুল আক্তার প্রমুখ।

বাঘারপাড়া (যশোর) প্রতিনিধি জানান, শনিবার সকালে উপজেলা মিলনায়তনে ঘরের দলিল ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র গৃহীনদের মাঝে তুলে দেয়া হয়। যশোরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আহমেদ জিয়াউর রহমান উপস্থিত থেকে এসব ঘর প্রদান করেন। অনুষ্ঠানে সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন উপজেলা নির্বাহি অফিসার তানিয়া আফরোজ। এসময় উপস্থিত ছিলেন বাঘারপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান ভিক্টোরিয়া পারভীন সাথী, সহকারি কমিশনার (ভূমি) ফারজানা জান্নাত, উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ ও বিথিকা বিশ্বাস, ইউপি চেয়ারম্যান সুভাষ দেবনাথ, ছবদুল হোসেন খান, আয়ুব হোসেন বাবলু। অনান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কৃষি কর্মকর্তা রুহুল আমিন, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শামছুন নাহার, প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা আ. মান্নান, সমাজসেবা কর্মকর্তা এটিএম মাসুদ, উপজেলা প্রকৌশলী আবু সুফিয়ান, সহকারি শিক্ষা কর্মকর্তা মামুন আল-আজাদ বিআরডিবি কর্মকর্তা আলীআকবরসহ স্থানীয় সম্মানী ব্যক্তিবর্গ ।

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি জানান, মুজিব বর্ষে জমিসহ রঙিন ঘরের আজীবন মালিকানা হলেন পাইকগাছার ২২০ ভূমিহীন পরিবার। গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রমের মধ্যদিয়ে এলাকার ২২০ গৃহ ও ভূমিহীন পরিবার ২ শতক জমিসহ নান্দনিক ডিজাইনের বাড়ি পান। এ উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রী’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সরাসরি সম্প্রচার, আলোচনা সভা ও দলিল হস্তান্তর অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আক্তারুজ্জামান বাবু। বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান আনোয়ার ইকবাল মন্টু, মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীর, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুহাম্মদ আরাফাতুল আলম। উপস্থিত ছিলেন, ইউপি চেয়ারম্যান রুহুল আমিন বিশ্বাস, কওছার আলী জোয়াদ্দার, রিপন কুমার মন্ডল, কেএম আরিফুজ্জামান তুহিন, আবু জাফর সিদ্দিকী রাজু, এসএম এনামুল হক, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম রেজায়েত আলী ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ইমরুল কায়েস সহ সরকারি কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ।

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি জানান, মুজিব শতবর্ষে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার হিসেবে বাগেরহাটের শরণখোলার ভূমিহীন ও গৃহহীন দুই’শ পরিবার জমিসহ আধুনিক সেমি পাকা ঘর পেয়ে ফিরে গেলেন তাদের নুতন ঠিকানায়। প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও কনফারেন্স শেষ হলে একই দিন সকাল ১১টায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ১০০টি পরিবারের হাতে তাদের নুতন ঘরের চাবি তুলে দেন ইউএনও। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপাস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য মুক্তিযোদ্ধা এম সাইফুল ইসলাম খোকন, ধান সাগর ইউপি চেয়ারম্যান মাইনুল ইসলাম টিপু, রােেয়ন্দা ইউপি চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান মিলন, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এম এ খালেক খান, সহকারী হেমায়েত উদ্দিন বাদশা, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নুরুজ্জামান খান, সমাজ সেবা কর্মকর্তা অতীস সরকার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সহধর্মীনি রোকসানা চৌধুরী, সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রতন কুমার বল, পবিসের শরণখোলা শাখার (এজিএম) আশিক মাহমুদ চৌধুরী, শরণখোলা উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি প্রভাষক আ. মালেক রেজা ও সাধারন সম্পাদক এমাদুল হক (শামীম) এবং উপকার ভোগী পরিবারের সদস্যরাসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ।
মহেশপুর(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধি জানান, ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার অসহায় গরীব, ভূমিহীন ও গৃহহীন ৬৪ পরিবার পেয়েছেন মাথা গোঁজার ঠাঁই। গৃহহীন ৬৪ পরিবার তাদের স্বপ্নের বাড়ি পেয়ে বেজায় খুশি হয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করার পরই উপজেলার সুবিধাভোগী ৬৪ পরিবারের কাছে জমির দলিলসহ ঘর হস্তান্তর করে প্রধান অতিথি ঝিনাইদহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শফিকুল আজম খাঁন চঞ্চল। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ময়জদ্দিন হামিদ, উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা শাশ্বতী শীল, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাজ্জাদুল ইসলাম সাজ্জাদ,উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আজিজুল হক আজা, হাসিনা খাতুন হেনা, উপজেলা প্রকল্প বাস্তাবায়ন কর্মকর্তা মেহেরুননেছা, উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা জুলফিকার আলী, মান্দারবাড়ীয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি হারুন আর রশিদ,জেলা পরিষদের সদস্য শেখ হাসেম আলী, এম এ আসাদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা, সরকারি কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও গৃহহীন পরিবারের সদস্যরা।

নিজস্ব প্রতিবেদক, চৌগাছা থেকে জানান, উপজেলার ২৫টি হতদরিদ্র পরিবারকে তাদের নতুন ঘরের চাবি তুলে দেয়া হয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) শাম্মী ইসলাম, উপজেলা চেয়ারম্যান ড. এম মোস্তানিছুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ এনামুল হক, সহকারী কমিশনার ভূমি নারায়ন চন্দ্র, পৌর মেয়র নূর উদ্দীন আল মামুন হিমেল, থানার অফিসার ইনচার্জ রিফাত খান রাজীব, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজনিন নাহার, উপজেলা প্রকৌশলী মুনসুর রহমান, ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম, উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি মোঃ কামরুজ্জামান, প্রেসক্লাবের সভাপতি আলমগীর মতিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক শাহানুর আলম উজ্জ্বল, যশোর বার্তার সম্পাদক ও প্রকাশক শিহাব উদ্দীন সুমন, পৌর কাউন্সিলর সিদ্দিকুর রহমান প্রমুখ।

কলারোয়া (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি জানান, কলারোয়া উপজেলার ৩০টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার নতুন ঘর বুঝে পেয়েছেন। কলারোয়া উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মৌসুমী জেরীন কান্তার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম লাল্টু। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সাবেক সংসদ সদস্য বিএম নজরুল ইসলাম, কলারোয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমেদ স্বপন, সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার গোলাম মোস্তফা, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ আক্তার হোসেন, কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মীর খায়রুল কবির, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলিমুর রহমান, অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আবু নসর, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা জিয়াউর রহমান, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সুলতানা জাহান প্রমূখ। অনুষ্ঠানে জয়নগর ইউনিয়নের ১০, সোনাবাড়িয়া ইউনিয়নের ৯ ও কেঁড়াগাছি ইউনিয়নের ১১ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মাঝে ঘরের চাবি ও জমির দলিল হস্তান্তর করেন প্রধান অতিথিসহ অতিথিবৃন্দ।

চিতলমারী (বাগেরহাট) প্রতিনিধি জানান, স্বপ্নের ঠিকানা বুঝে পেলেন উপজেলার গৃহহীন ও ভূমিহীন ১৭ পরিবার। শনিবার উপজেলার ১৭ পরিবারের হাতে আনুষ্ঠানিক ভাবে ঘরের চাবি ও জমির দলিল তুলে দেওয়া হয়। এতদিন যাদের নিজেদের জায়গা ছিলনা, ছিলনা মাথা গোঁজার নিজস্ব ঠিকানা, তারা আজ জমিসহ ঘরের মালিক হয়েছেন। এ যেন এক আনন্দঘন পরিবেশ।

চিতলমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মারুফুল আলমের সভাপতিত্বে এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অশোক কুমার বড়াল। বিশেষ অতিথি ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) জান্নাতুল আফরোজ স্বর্ণা, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মীর শরিফুল হক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ বাবুল হোসেন খান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ বেল্লাল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক পীযূষ কান্তি রায়, সদর ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ নিজাম উদ্দিন শেখ, চরবানিয়ারী ইউপি চেয়ারম্যান অর্চণা দেবী বড়াল ঝর্ণা, হিজলা ইউপি চেয়ারম্যান কাজী আজমীর আলী, চিতলমারী উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি প্রদীপ মন্ডল ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ তাওহিদুর রহমান বাবুসহ উপজেলার বিভিন্ন দপ্তর প্রধানরা।

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি জানান, শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় সাতক্ষীরা জেলায় ১১৪৯টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে একক গৃহ দলিল ও ঘরের চাবি হস্তান্তর করা হয়েছে। জেলা শিল্পকলা একাডেমী থেকে সদর উপজেলায় ১৩০টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে একক গৃহ দলিল ও ঘরের চাবি হস্তান্তর করেন এমপি রবি। ভূমিহীনদের জন্য নির্মিত প্রতিটি ঘর নির্মাণে খরচ হয়েছে এক লাখ ৭১ হাজার টাকা। যার মধ্যে দুটি কক্ষ, একটি রান্নাঘর ও একটি টয়লেট হয়েছে। সবুজ টিনসেডের এসব ঘরে একটি পরিবার স্বাচ্ছন্দে বসবাস করতে পারবেন। সাতক্ষীরা প্রান্তে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে সাতক্ষীরা জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক এ এম মোস্তফা কামালের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, সাতক্ষীরা সদর আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহমেদ রবি। জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ¦ নজরুল ইসলাম, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান বাবু, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফজাল হোসেন, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেবাশীষ চৌধুরী প্রমুখ।

মোংলা প্রতিনিধি জানান, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে মোংলায় ৫০ জন আশ্রয়হীন পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার সরকারি নতুন ঠিকানা ও ঘর তুলে দিলেন পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রনালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার। শনিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে নির্মিত ঘর গুলো উদ্বোধন করার পর মোংলায় ৫০টি পরিবারের হাতে এ নতুন ঘরের চাবী ও কাগজ পত্র তুলে দেওয়া হয়।

মোংলা উপজেলা পরিষদ অফিসার্স ক্লাব মিলনায়তনের সামনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে মোংলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কমলেশ মজুমদার, উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের হাওলাদার, সহকারী কমিশনার (ভুমি) নয়ন কুমার রাজ বংশী, মোংলা পোর্ট পৌরসভার নব নির্বাচিত মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আঃ রহমান, মোংলা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইকবাল বাহার চৌধুরী ও মোংলা সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ গোলাম সরোয়ার গরিব আশ্রয়হীনদের মাঝে ৫০টি ঘরের মালিকানার দলিলপত্র ও চাবি তুলে দেন। এসময় উপজেলার বিভিন্ন সরকারী দপ্তরের প্রধান, উপজেলার সকল ইউনিয়ন ও পৌরসভার জন প্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

কালিয়া (নড়াইল) প্রতিনিধি জানান, “স্বপ্নেও কোন দিন ভাবতি পারি নাই নিজির দালান ঘরে বাস করবো। শ্যাখের বিটি হাসিনা রাজা হয়ে আমাগে দালান করে দিছে। তার দয়ায় শেষ জীবনে একটু শান্তিতি ঘুমাতি পারবো। আমরা শ্যাখের বিটির এই ঋণ কোন দিন ভূলবোনা, তারে আল্লায় বাঁচায় রাখুক ”।
নড়াইলের কালিয়া উপজেলার বড়কালিয়া গ্রামের নদীভাঙ্গনে সর্বস্ব হারানো মুক্তিযোদ্ধা মোর্শেদ আলী (৭৮), চরমধুপুর গ্রামের অসহায় দিনমজুর সবুর শিকদার এবং ৪ মাস আগে বিধবা হওয়া ইসলামপুর গ্রামের কুলসুম বেগম (২৮) পাঁচ বছরের শিশু মিকাইল ও ৫ মাসের শিশু ইসমাইলকে নিয়ে চাবি নিতে এসেছিলেন উপজেলা সদরে। স্বামীর মৃত্যুর পর শিশু সন্তানদের নিয়ে তিনি আশ্রয় নিয়েছেন অন্যের বাড়িতে। রোজগারের কেউ না থাকায় অন্যের সহায়তায় কোন মতে দিন কাটাচ্ছেন তিনি। তার মত শতছিদ্র টিনের জরাজীর্ন ঘুপরি ঘরে বসবাস করে আসছেন অনেকেই। বর্ষার সময় অন্যর বাড়ির বারান্দায়ও আশ্রয় নিতে হয়েছে তাদেরকে। এ অবস্থায় মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার “স্বপ্নের নীড়” পেয়ে অশ্রুস্বজল চোখে দুহাত উপরে তুলে উপরোক্ত অনুভূতি ব্যক্ত করেছেন তারা। “স্বপ্নের নীড়” পাওয়া আরও অনেকেই প্রধানমন্ত্রীর সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করেছেন।

সারা দেশের মত শনিবার সকালে উপজেলার ১৫০টি পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার “স্বপ্ননীড়ের” চাবি হস্তান্তর করা হয়েছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সুত্রে জানা গেছে, এক লাখ ৭১ হাজার টাকা ব্যয়ে নির্মিত দুই কক্ষ বিশিষ্ট প্রতিটি ঘর ইটের দেয়াল, কংক্রিটের মেঝে, রঙিন টিনের ছাউনি দিয়ে তৈরী করা হয়েছে। সাথে থাকছে, একটি রান্নাঘর, স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা ও সামনে খোলা জায়গা।

প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক সারাদেশের “স্বপ্ননীড়ের” চাবি হস্তান্তরের উদ্বোধন শেষে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে জড়ো হওয়া ভাগ্যবান ওইসব হতদরিদ্র মানুষের হাতে “স্বপ্ননীড়ের” আধা পাকা ঘরের চাবিসহ ২ শতক জমির দলিল হস্তান্তর করেন কালিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কৃষ্ণপদ ঘোষ ও ইউএনও মো. নাজমুল হুদা। চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে, সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. জহুরুল ইসলাম, যশোর পল্লী বিদ্যূৎ সমিতির কালিয়া আঞ্চলিক কার্যালয়ের ডিজিএম মো. মমিনুর রহমান বিশ্বাস, কালিয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি মশিউল হক মিটুসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

শালিখা (মাগুরা) প্রতিনিধি জানান, শালিখায় মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক ভূমিহীন ও গৃহহীন ৫০টি পরিবারকে শনিবার জমি ও গৃহের চাবি প্রদান করা হয়। উপজেলার উজগ্রামে নির্মিত ঘরগুলো শেখ হাসিনার পক্ষে প্রধান অতিথি মাগুরা ২আসনের সংসদ সদস্য ড. বিরেন শিকদার জমির দলিল সহ পাকা বাড়ির চাবি গৃহহীন পরিবারের হাতে হস্তন্তর করেন। উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার গোলাম মোহম্মদ বাতেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন স্থানীয় সরকার মাগুরার উপপরিচালক মোঃ কামরুজ্জামান, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ কামাল হোসেন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মনিরুজ্জমান, শালিখা থানার অফিসার ইনচার্জ তরীকুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ রেজাউল ইসলাম ও জেসমিন আক্তার, মাগুরা জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি বাসুদেব কুন্ডু, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এ্যাড. শ্যামল কুমার দে, সাধারণ স¤পাদক ও আড়পাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আরজ আলী বিশ্বাস, ধনেশ্বরগাতী ইউপি চেয়ারম্যান বিমলেন্দু শিকদার, শালিখা প্রেসক্লাবের সাধারণ স¤পাদক আঃ রব মিয়া ও স¤পাদক মন্ডলীর সদস্য হাবিবুল হক। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলায় কর্মরত গণমাধ্যম কর্মীবৃন্দ, বিভিন্ন দপ্তর, প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা বৃন্দ ও বিভিন্ন পেশার গন্যমান্য ব্যক্তি বর্গ।

ফুলতলা (খুলনা) প্রতিনিধি জানান, মুজিব শতবর্ষে ”বাংলাদেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না’’ প্রধানমন্ত্রীর এ নির্দেশনা বাস্তবায়নের লক্ষে শনিবার সকাল ৯টায় শহীদ হাবিবুর রহমান মিলনায়তনে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জমি ও গৃহ হস্তান্তর অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কসফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন ঘোষনার পর উপকারভোগী ভূমিহীন ও গৃহহীন ৪০ পরিবারকে ২ শতক জমি ও গৃহ হস্তান্তর করা হয়। ইউএনও সাদিয়া আফরিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থান ীয় সরকার খুলনার উপ-পরিচালক মোঃ ইকবাল হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ আকরাম হোসেন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) রুলি বিশ্বাস, ওসি মাহাতাব উদ্দিন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান কে এম জিয়া হাসান তুহিন ও ফারজানা ফেরদৌস নিশা এবং উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সরদার শাহাবুদ্দিন জিপ্পী। স্বাগত বক্তৃতা করেন প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ রফিকুল ইসলাম। উপকারভোগীদের মধ্যে মোঃ রইচ উদ্দিন মোড়ল ও আলো শীল তাদের অনুভূতি ব্যক্ত করেন। ফারহানা ইয়াসমিনের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী জাফর উদ্দিন, ইউপি চেয়ারম্যান শরীফ মোহাম্মাদ ভূইয়া শিপলু, শেখ আবুল বাশার, মাওলানা সাইফুল হাসান, সমাজসেবা কর্মকর্তা শাহীন আলম, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ফাতেমা বেগম, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মুহাঃ আবুল কাশেম, আইসিটি কর্মকর্তা পুষ্পেন্দু দাস, রিসোর্স কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম রনি, অধ্যক্ষ গাজী মারুফুল কবির, আওয়ামীলীগ নেতা মৃনাল হাজরা, প্রেসক্লাব সভাপতি তাপস কুমার বিশ্বাস, উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি শামসুল আলম খোকন, সহকারী অধ্যাপক মোঃ নেছার উদ্দিন প্রমুখ। অনুষ্ঠানে অতিথিবৃন্দ আনুষ্ঠানিকভাবে উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের ৪০ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের কাছে জমির কবুলিয়াত দলিল, নামজারি খতিয়ান এবং ঘর প্রদানের সনদ হস্তান্তর করেন।

কচুয়া (বাগেরহাট) প্রতিনিধি জানান, বাগেরহাটের কচুয়ায় স্বপ্নের ঠিকানা বুঝে পেল ভূমিহীন-গৃহহীন ৩৬ পরিবার। এক যোগে সারা দেশে মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে প্রথম ধাপে জমি ও গৃহ প্রদান সম্পন্ন হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে কচুয়ায় মাথাগোঁজার ঠাঁই হলো ৩৬ পরিবারের। এ উপলক্ষে দেশের অন্যান্য স্থানের মতো কচুয়া উপজেলায় প্রথম ধাপে এই ৩৬ জন গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারের মাঝে কাগজ ও ঘরের চাবি হস্তান্তর করা হয়েছে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন কচুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুজিৎ দেবনাথ, কচুয়া থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ মনিরুল ইসলাম, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) মাহেরা নাজনীন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার কুন্ডু, উপজেলা চেয়ারম্যান এস.এম মাহাফুজুর রহমান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সিকদার ফিরোজ আহম্মেদ, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজমা সরোয়ার, প্রেসক্লাবের সভাপতি খন্দকার নিয়াজ ইকবাল, কচুয়া সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সিকদার হাদিউজ্জামান (হাদিস), মঘিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডঃ পংকজকান্তি অধিকারী, দৈনিক পূর্বাঞ্চল পত্রিকার সাংবাদিক দিদার জাহিদুল ইসলাম বুলু, দৈনিক ভোরের কলাম ও দৈনিক কালজয়ী পত্রিকার সাংবাদিক উজ্জ্বল কুমার দাস, দৈনিক সমাজের কথা ও দৈনিক গনতদন্ত পত্রিকার সাংবাদিক রাকিবুল হাচান, দৈনিক দক্ষিণাঞ্চল প্রতিদিন পত্রিকার সাংবাদিক সূর্য চক্রবর্তী, দৈনিক গ্রামের কাগজ ও তথ্য পত্রিকার সাংবাদিক তরিকুল ইসলাম প্রমুখ।
ঝিকরগাছা পৌর প্রতিনিধি জানান, ঝিকরগাছায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও ঘর প্রদান করা হয়েছে। শনিবার সকালে গনভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক এই জমি ও ঘর প্রদান অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করা হয়। এর পরেই ঝিকরগাছা উপজেলা পরিষদের মুক্তমঞ্চে আনুষ্ঠানিক ভাবে উপজেলার ১৯ টি গৃহহীন পরিবারকে ঘর প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে হিসেবে ঘর ও জমির যাবতীয় কাগজপত্র হস্তান্তর করেন যশোর-২(চৌগাছা- ঝিকরগাছা) আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল (অবঃ) অধ্যাপক ডাঃ নাসির উদ্দিন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরাফাত রহমানের সভাপতিত্বে অন্ষ্ঠুানে বক্তব্য রাখেন ঝিকরগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও পৌর মেয়র মোস্তফা আনোয়ার পাশা জামাল, মাগুরা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিম রেজা ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা রশিদুর রহমান রশিদ।

এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা ডাক্তার নাজিব হাসান, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার হাবিবুর রহমান, উপজেলা প্রকৌশলী ইঞ্জিনিয়ার শ্যামল কুমার বসু, পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান লুবনা তাক্ষী, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শুভাগত বিশ্বাস, ঝিকরগাছা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম দেবাশিষ কুমার ভট্রাচার্য্য সহ উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন দপ্তর প্রধানগণ।

মোল্লাহাট (বাগেরহাট) প্রতিনিধি জানান, মোল্লাহাটে ভূমিহীন ও গৃহহীনদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ৩৫টি গৃহ প্রদান করা হয়েছে। শনিবার সকালে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক সারাদেশের ভূমিহীন ও গৃহহীনদের গৃহ প্রদান আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পর ৩৫ টি পরিবারের মাঝে এ গৃহ প্রদান করা হয়। উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এ গৃহ প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ও গৃহ প্রদান/হস্তান্তর করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাফ্ফারা তাসনীন, ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ সেলিম রেজা ও রুবিয়া বেগম, অধ্যক্ষ এল জাকির হোসেন, সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা রাজ কুমার বিশ্বাস, উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ শওকত হোসেন, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ মফিজুর রহমান সজল, ইউপি চেয়ারম্যান সিকদার উজির আলী, মুন্সি তানজিল হোসেন, শেখ রফিকুল ইসলাম ও বাবলু মোল্লা, সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোস্তাফিজুর রহমান বিশ্বাস, প্রেসক্লাব মোল্লাহাটের সাধারন সম্পাদক এম এম মফিজুর রহমান ও যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক শেখ শাহিনুর ইসলাম শাহিন, উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি অবঃ অধ্যক্ষ মাওঃ মোঃ আসগর আলী প্রমূখ।

আশাশুনি প্রতিনিধি জানান, আশাশুনিতে মুজিব বর্ষে ২১৮টি ভূমিহীন পরিবারকে জমির দলিল ও গৃহ প্রদান সম্পন্ন হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও আশাশুনির সাংসদ ডাঃ আ ফ ম রুহুল হক এমপি। শনিবার সকালে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মীর আলিফ রেজার সভাপতিত্বে ভূমিহীন পরিবারকে জমির দলিল ও ঘরের চাবী প্রদান অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এবিএম মোস্তাকিম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহিন সুলতানা, থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ গোলাম কবীর, উপজেলা আওয়ামীলীগের সেক্রেটারী শম্ভুজিত মন্ডল, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অসমী বরণ চক্রবর্তী ও মোসলেমা খাতুন মিলি। সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুল হান্নানের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ সুদেষ্ণা সরকার, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি নীলকণ্ঠ সোম, ইউপি চেয়ারম্যান আবু হেনা সাকিল, স ম সেলিম রেজা মিলন, আ ব ম মোসাদ্দেক, প্রভাষক ম. মোনায়েম হোসেন, শেখ জাকির হোসেন, আলমগীর আলম লিটন, আলহাজ্জ শাহনেওয়াজ ডালিম, শেখ মেরাজ আলী, আব্দুল আলিম মোল্যা, দীপংকর সরকার দীপ, হারুন চৌধুরী, আশাশুনি প্রেসক্লাব সভাপতি জি.এম আল-ফারুক, সেক্রেটারী সমীর রায়, প্রতিষ্ঠাতা, সাবেক সভাপতি জি.এম মুজিবুর রহমান প্রমুখ। এর আগে সারা দেশের ন্যায় আশাশুনিতে গৃহহীনদের জমি ও ঘরের চাবী হস্তান্তর অনুষ্ঠান ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করেন, প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা।

দাকোপ প্রতিনিধি জানান, মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসাবে দাকোপে ভূমিহীন ও গৃহহীন ১৪০ পরিবারের মাঝে দলিলসহ ঘর হস্তান্তর করা হয়েছে।
শনিবার সকালে দাকোপ উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিটিভির পরিবেশনায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ঘর হস্তান্তর কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রনালয়ের তত্বাবধানে প্রতিটি পরিবারের জন্য ২ শতক জমি বরাদ্দে পাকা ভবন নির্মান করে দলিল এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ ঘরের চাবি উপকার ভোগীদের হাতে তুলে দেওয়া হয়। দাকোপ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিন্টু বিশ্বাসের সভাপতিত্বে এবং উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সুরাইয়া সিদ্দিকার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন দাকোপ উপজেলা চেয়ারম্যান মুনসুর আলী খান, উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ আবুল হোসেন, উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি মোঃ মর্তুজা খান, চালনা পৌরসভার মেয়র সনত কুমার বিশ্বাস, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান গৌরপদ বাছাড়, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খাদিজা আকতার, উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প কর্মকর্তা ডাঃ মোজাম্মেল হক নিজামী, দাকোপ থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ সেকেন্দার আলী, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শেখ আব্দুল কাদের, সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা সেলিম সুলতান, উপজেলা প্রকৌশলী ননী গোপাল দাস, প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার অহিদুল ইসলাম, ইউপি চেয়ারম্যান রনজিত মন্ডল, সুদেব রায়, পঞ্চানন মন্ডল, সাবেক অধ্যক্ষ আব্দুল্লাহ ফকির, চালনা এম এম কলেজ অধ্যক্ষ অসীম কুমার থান্দার, দাকোপ প্রেসক্লাব সভাপতি শচীন্দ্রনাথ মন্ডল, উপকারভোগী বিরেন্দ্রনাথ ঢালী, ফাতেমা বেগম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে উপজেলার বাজুয়া, বানীশান্তা, লাউডোব, তিলডাঙ্গা এবং পানখালী ইউনিয়নের গৃহহীন ১৪০ পরিবারের মাঝে ঘর হস্তান্তর করা হয়।

বেনাপোল প্রতিনিধি জানান, মুজিববর্ষ উপলক্ষে যশোরের শার্শা উপজেলায় ৫০জন ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের হাতে জমির দলিলসহ বাড়ির চাবি হস্তাস্তর করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশের ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের হাতে দুই কামরা বিশিষ্ট ৬৬ হাজার পাকা বাড়ির চাবি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তুলে দেওয়া কার্যক্রমের উদ্বোধন করার পর শার্শা উপজেলা অডিটোরিয়ামে উপজেলা চেয়ারম্যান সিরাজুল হক মঞ্জু উপজেলার ৫০জন ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের হাতে জমির দলিলসহ বাড়ির চাবি হস্তাস্তর করেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পুলক কুমার মন্ডল জানান, মুজিব বর্ষে প্রাথমিক পর্যায়ে ৫০টি পরিবারকে সরকারি খাস জমিতে পাকা বাড়ি তৈরি করে দেওয়া হয়েছে।

ঘর প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রাসনা শারমিন মিথি, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর হোসেন, জেলা পরিষদ সদস্য অধ্যক্ষ এসএম ইব্রাহিম খলিল, বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ আমিনুল হক, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা লাল্টু মিয়া, শার্শা থানার ওসি বদরুল আলম খান, পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা বিল্লাল হোসেন, বিভিন্ন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান, সাংবাদিক, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, ভূমি কর্মকর্তাসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা।

শেয়ার