কালিগঞ্জে মৎস্য ঘের দখলের পর ঘরে আগুন

কালিগঞ্জ (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি॥ কালিগঞ্জে মৎস্য ঘের জোরপূর্বক দখলে নিয়ে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ঘেরের বাসায় রাতে আগুন দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নেভাতে সমর্থ হয়। ঘটনাটি ঘটেছে ১৩ জানুয়ারি দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে ভাড়াশিমলা ইউনিয়নের কামদেবপুর গ্রামের একটি মৎস্য ঘেরে। এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী ঘের মালিক লক্ষিপদ সাহা বাদি হয়ে থানায় অভিযোগ দিয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার কামদেবপুর মৌজায় খরিদা সূত্রে প্রাপ্ত ৯.৩২ একর সম্পত্তি দীর্ঘ দুই যুগের অধিক সময় ধরে মৎস্য চাষ করে আসছেন ভাড়াশিমলা গ্রামের মৃত শেখ মতলেব আলীর ছেলে রমজান আলী (৬৫)। সেই থেকে তিনি মৎস্য ঘের করে আসলেও কয়েক বছর যাবৎ তিনি একই ইউনিয়নের কামদেবপুর গ্রামের মৃত নকুল চন্দ্র সাহার ছেলে লক্ষণ চন্দ্র সাহার কাছে মৎস্য ঘের লিজ দিয়েছেন। গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর ভাড়াশিমলা গ্রামের শেখ আব্দুল করিমের ছেলে শেখ মঞ্জুরুল ইসলামের নেতৃত্বে একই এলাকার মৃত মোজাম্মেল হকের ছেলে জাকির হোসেন, শেখ মঞ্জুরুল ইসলামের ছেলে শেখ ওয়াশিম পাপ্পুসহ ভাড়াটে লাঠিয়াল বাহিনী মৎস্য ঘেরটি জবর দখল করে নেয়। এ সময় রমজান আলী বাদি হয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাঈদ মেহেদীর কাছে প্রতিকার চেয়ে অভিযোগ করে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে আপোষ মিমাংশার জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান উভয়পক্ষকে ৯ জানুয়ারি তার দপ্তরে হাজির হওয়ার জন্য নোটিশ প্রদান করেন। নির্ধারিত দিনে বিবাদী গং হাজির না হওয়ায় ঘের মালিক রমজান আলী থানায় লিখিত অভিযোগ দেন। এর প্রেক্ষিতে উপ-পরিদর্শক অহিদুজ্জামান জমির বিরোধ মিমাংশার জন্য ঘটনাস্থলে যেয়ে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার স্বার্থে উভয় পক্ষকে মৎস্য ঘেরে না যাওয়ার জন্য বলেন। এদিকে মঙ্গলবার দিবাগত রাত অনুমান সাড়ে ১২টার দিকে মঞ্জুরুল গং পরিকল্পিত ভাবে মৎস্য ঘেরের বাসায় আগুন লাগিয়ে প্রতিপক্ষকে ফাঁসানোর চেষ্টা চালিয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

সরেজমিনে গেলে ইউপি সদস্য আব্দুল খালেক, নিজাম উদ্দিন, সংরক্ষিত ইউপি সদস্য আলেয়া খাতুনসহ একাধিক ব্যক্তি জানান, ২৫/৩০ বছর ধরে রমজান আলী এই মৎস্য ঘেরে মাছ চাষ করে আসছে। হঠাৎ মঞ্জুরুল কিভাবে এই ঘেরের দাবীদার হলো আমরা বুঝতে পারছি না। এবিষয়ে থানার উপ-পরিদর্শক সঞ্জীব সমদ্দার বলেন, ওসি স্যারের নির্দেশে সকালে কামদেবপুরে বিরোধপূর্ণ মৎস্য ঘেরে গিয়ে ছিলাম। ঘর পোড়ানোর বিষয়ে উভয়পক্ষের পাল্টা-পাল্টি অভিযোগ পেয়েছি। থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মিজানুর রহমান বলেন, ঘর পোড়ানোর বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার