পাইকগাছায় বসতভিটা থেকে বিধবা নারীকে উচ্ছেদের পাঁয়তারা

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি॥ পাইকগাছার জাহানারা খাতুন নামে এক বিধবা নারীকে বসতভিটা থেকে উচ্ছেদের জন্য পাঁয়তারা করছে এলাকার প্রভাবশালী এক ব্যক্তি। রেজাউল করিম নামে প্রভাবশালী ওই ব্যক্তি স্বামীর মৃত্যুর পরে জাল বায়না দলিল মূলে ভোগ দখলে থাকা বসতবাড়ী থেকে তাকে উচ্ছেদ করতে একাধিক মামলা ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করে হয়রানী করছে বলে অভিযোগ করেছেন জাহানারা খাতুন। প্রাপ্ত অভিযোগে জানাগেছে উপজেলার চাঁদখালী ইউনিয়নের চক কাওয়ালী গ্রামের মৃত ইমান আলী মোড়লের ছেলে জয়নাল মোড়ল ২০০৮ সালের আগস্ট মাসে কয়রা- ঢাকা রুটের (ঢাকা মেট্রো-জ -১১২৯২০) আনন্দ সিলকী পরিবহনে হেলপার হিসেবে কর্মরত ছিল। কয়রা থেকে ছেড়ে যাওয়া পরিবহনটি ২০০৮ সালের ২৭ আগস্ট ভোরে ঢাকার পর্বতা সিনেমা হলের সামনে দূর্ঘটনায় কবলিত হয়। দূর্ঘটনায় জয়নালের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় ঢাকায় অবস্থানরত জয়নালের ভাগ্নে সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার দক্ষীণ বলদল গ্রামের আজিজ সরদারের ছেলে মিলন হোসেন বাদি হয়ে মিরপুর মডেল থানায় মামলা করেন যার নং- ১০৪ তাং- ২৭/০৮/২০০৮। অনুরুপভাবে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগ ময়না তদন্ত শেষে ১২৯৭/০৮ নং সিসি’র মাধ্যমে প্রত্যয়ন পত্র প্রদান করে। যার ময়না তদন্ত নং- ১৮৩৮/০৮। স্বামীর মৃত্যুর পর তার স্ত্রী জাহানারা খাতুন একটি মেয়ে ও একটি ছেলে সন্তান নিয়ে স্বামীর বসতভিটায় বসবাস করে আসছেন। এদিকে বিধবা জাহানারাকে বসতভিটা থেকে উচ্ছেদের জন্য দীর্ঘদিন পাঁয়তারা করে আসছেন এই এলাকার মৃত আনসার আলী গাজীর ছেলে রেজাউল করিম। বিধবা জাহানারা খাতুন জানান স্বামীর মৃত্যুর পর দুটি সন্তান নিয়ে স্বামীর বসতভিটা ১৫ শতক জায়গার উপর অনেক কষ্টে বসবাস করে আসছি। কিন্তু প্রতিবেশি রেজাউল করিম বসতভিটা থেকে উচ্ছেদের জন্য যেভাবে মামলা ও হুমকি দিয়ে হয়রানী করছে তাতে বসত বাড়িতে টিকে থাকা কঠিন হয়ে পড়েছে। ভুক্তভোগী জাহানারা জানান ২০০৮ সালের ২৭ আগস্ট স্বামীর মৃত্যু হয় এর ৫ দিন পর অর্থাৎ ২ সেপ্টেম্বর আমার মৃত স্বামীকে জীবিত দেখিয়ে রেজিস্ট্রি বায়না দলিল করার মাধ্যমে আমাকে উচ্ছেদের ষড়যন্ত্র করছে। এ কাজে সহযোগিতা করেছে চাঁদখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। চেয়ারম্যান ১৭ সেপ্টেম্বর আমার স্বামীর মৃত্যু হয়েছে মর্মে প্রভাবশালী ওই ব্যক্তিকে মৃতু সনদ দিয়েছে। এমতাবস্থায় দীর্ঘদিন ভোগ দখলে থাকা স্বামীর বসতভিটায় সন্তানদের নিয়ে যাতে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস এবং প্রভাবশালী ব্যক্তির হয়রানি থেকে রেহায় পেতে পারেন এ জন্য থানা পুলিশ ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন বিধবা জাহানারা ও এলাকাবাসি।

 

শেয়ার