এআই প্রশ্নে নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করবেন ট্রাম্প

সমাজের কথা ডেস্ক॥ ফেডারেল সংস্থাগুলোয় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) ব্যবহারের ক্ষেত্রে নীতিমালা ঠিক করতে নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করবেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প

সরকারি সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে এই প্রযুক্তির ব্যবহার সাধারণ মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য করে তুলতেই এমন পদক্ষেপ নিচ্ছে ট্রাম্প প্রশাসন

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদন বলছে, নির্বাহী আদেশে মন্ত্রণালয় জুড়ে এআই ব্যবহারের তথ্যভা-ার তৈরি করতে সংস্থাগুলোর জন্য নির্দেশনা রয়েছে। পাশাপাশি এআইয়ের প্রশাসনিক ব্যবহারের ক্ষেত্রে নীতিমালার একটি রোডম্যাপ বানাতে হোয়াইট হাউসের জন্যও নির্দেশনা দেওয়া আছে

মার্কিন প্রধান প্রযুক্তি কর্মকর্তা মাইকেল ক্রাটসিওস বলেছেন, নির্বাহী আদেশের মাধ্যমে “এই প্রযুক্তিতে জনগণের আস্থা বাড়বে, সরকার আরও উন্নত হবে এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা খাতে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্ব আরও ভালোভাবে প্রদর্শিত হবে।”

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহারে অনেক আগেই জোর দিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন। এর আগে ব্যক্তি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের এআই ব্যবহারে সীমাবদ্ধতা দেওয়ার লক্ষ্যে ফেডারেল সংস্থাগুলোকে নীতিমালা তৈরির নির্দেশ দিয়েছিল প্রশাসন।

সেকেলে নীতিমালা বাতিল করতে সংস্থাগুলোকে এআই ব্যবহারের আহ্বানও জানিয়েছে ট্রাম্প প্রশাসন।

এআইয়ের নতুন নির্বাহী আদেশ বলছে, “এআইয়ের ব্যবহার অবশ্যই আইনসম্মত, উদ্দেশ্যমূলক এবং কার্যকরী হতে হবে; সঠিক, নির্ভরযোগ্য, নিরাপদ, সুরক্ষিত, বোধগম্য, দায়িত্বশীল এবং অনুসরণযোগ্য হতে হবে; নিয়মিত নজরদারি থাকতে হবে; স্বচ্ছ এবং দায়বদ্ধ হতে হবে।”

অনেক সরকারি সংস্থা ইতোমধ্যেই এআই ব্যবহার করছে। বিভিন্ন প্রথা শনাক্ত করতে এবং নীতিমালা তৈরিতে কাঠামো দিতে বিপুল সংখ্যক ডেটা পর্যালোচনা ও প্রক্রিয়াকরণেও এআইয়ের ব্যবহার হচ্ছে।

অন্যদিকে, এআইয়ের ব্যবহার নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে কিছু মার্কিন অঙ্গরাজ্য এবং শহর। বিশেষভাবে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার ‘ফেইশল রিকগনিশন সফটওয়্যার’ ব্যবহারে অ্যালগরিদমের পক্ষপাতিত্ব নিয়ে তৈরি হয়েছে উদ্বেগ।

শেয়ার