পাইকগাছায় শিশুছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মাদ্রাসা সুপার আটক

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি॥ পাইকগাছায় এক মাদ্রাসা সুপারের বিরুদ্ধে ছাত্রীকে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় থানায় ধর্ষণ মামলা হয়েছে। পুলিশ মাদ্রাসা সুপার হাবিবুর রহমানকে আটক করেছে। আটক হাবিবুর পাইকগাছা ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার। তিনি কয়রা উপজেলার খিরোল গ্রামের আব্দুল হাকিম সরদারের ছেলে। ভিকটিম একই মাদ্রাসার ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রী ও ভিলেজ পাইকগাছা গ্রামের জনৈক ব্যক্তির নাতনী।
মামলা সূত্রে জানাগেছে, পিতার মৃত্যুর কারণে ভিকটিম তার মায়ের সাথে গত ৯ মাস ভিলেজ পাইকগাছা গ্রামে নানার বাড়িতে বসবাস করে আসছে। তার মা এবং নানা তাকে একই এলাকার লস্কর-পাইকগাছা ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার ৪র্থ শ্রেণিতে ভর্তি করেন। তার মা বর্তমানে ইট-ভাটায় কর্মরত রয়েছেন। করোনার কারণে মাদ্রাসা বন্ধ থাকলেও প্রতি রবিবার মাদ্রাসা সুপার ছাত্র-ছাত্রীদের পরীক্ষা নেন। গত ৩০ নভেম্বর ভোরে মাদ্রাসা সুপার ছাত্রীর বাড়িীত এসে তাকে মাদ্রাসায় যাওয়ার কথা বলে। সে অনুযায়ী ভিকটিম ছাত্রী মাদ্রাসায় গেলে অন্যান্য ছাত্র-ছাত্রীদের বাড়ি পাঠিয়ে দিয়ে মাদ্রাসার শয়নকক্ষে ফেলে ভিকটিম ছাত্রীকে মাদ্রাসা সুপার জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। সকাল ৮টার দিকে মাদ্রাসা থেকে কাঁদতে কাঁদতে বাড়িতে আসলে তাকে জিজ্ঞাসা করলে মাদ্রাসা সুপার তাকে ধর্ষণ করেছে বলে জানাই। এ ঘটনায় ভিকটিমের নানা বাদী হয়ে থানায় মাদ্রাসা সুপারকে আসামি করে ধর্ষণ মামলা করে। যার নং-০২, তাং- ০২/১২/২০২০ ইং। ওসি এজাজ শফী জানান, এ ঘটনায় মাদ্রাসা সুপার হাবিবুর রহমানকে আটক করা হয়েছে। ওসি (তদন্ত) আশরাফুল আলম জানান, আটক সুপারকে আদালতে এবং ভিকটিম ছাত্রীকে উদ্ধার করে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে।

শেয়ার