সাতক্ষীরায় গৃহবধূ’র ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, স্বামী আটক

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি॥ সাতক্ষীরায় অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এঘটনায় এলাকার জনগন পলাতক স্বামীকে আটক করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার লাবসা ইউনিয়নের রাজনগর গ্রামে।

সাতক্ষীরা সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মির্জা সালাহউদ্দিন জানান, স্থানীয় লাবসা ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য’র মাধ্যমে খবর পেয়ে পুলিশ গৃহবধুর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে। পুলিশ ধারণা করছে, বুধবার ভোররাতের কোন একসময়ে গৃহবধূকে নির্যাতন চালিয়ে হত্যা করে ঝুলিয়ে দেয়া হয়েছিল। এঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা’র প্রস্তুতি চলছে। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তেরও উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

স্থানীয় লাবসা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আজিজুল ইসলাম জানান, রাজনগর গ্রামের আব্দুর রহিম সরদারের মেয়ে পারভিন আক্তারকে (২৪) হত্যা করে ঝুলিয়ে দেয়া হয়েছে শুনে সকালে সেখানে গিয়ে তিনি ঝুলন্ত লাশ দেখতে পান এবং পুলিশে খবর দেন। পারভিনের ৫বছর বয়সী কন্যা সন্তান আছে। নিহত পারভিনের স্বামী আব্দুল খালেক স্ত্রী সন্তান নিয়ে শ্বশুর বাড়িতে থাকতো। কিন্তু স্ত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধারের পর স্বামী খালেককে না পাওয়া গেলে সন্দেহ হয় স্থানীয়দের। এলাকার মানুষ খালেকের খোঁজ শুরু করেন এবং ভাটপাড়া এলাকা থেকে পলাতক অবস্থায় তাকে আটক করে পুলিশে হস্তান্তর করে।

পারভিনের ভাই তরিকুল ইসলাম বলেন, তার বোন পারভিনের সাথে ২০১৩ সালে ঝাউডাঙ্গা ইউনিয়নের হাজিপুর গ্রামের মৃত মোজাম কারিকরের ছেলে আব্দুল খালেকের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে স্বামী তাকে নানাভাবেই নির্যাতন করতো। বিয়ের দেড়বছরের মাথায় তাদের একটি কন্যা সন্তান হয়। তারপরও থামেনি নির্যাতন। তরিকুল জানান, পারভিন সাতমাসের গর্ভবতী ছিল। সকালে তার ঝুলন্ত মরদেহ নামানো হলে হাতে কাটার দাগ ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন স্পষ্ট দেখা যায়।

শেয়ার