যৌতুকের টাকা আনতে রাজি না হওয়ায় স্ত্রীকে আগুনের ছ্যাঁকা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যৌতুকের দাবিকৃত টাকা পিতার কাছ থেকে আনতে রাজি না হওয়ায় শিউলি অধিকারীকে (২০) আগুনের ছ্যাঁকা দিয়ে নির্যাতন করেছেন পাষান্ড স্বামী। মঙ্গলবার রাতে মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জ মোবারকপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহত ওই গ্রামের মৃত শ্যামল অধিকারীর ছেলে চৈতন্য দাস অধিকারীর স্ত্রী ও একই উপজেলার লেবুগাতি গ্রামের নারায়ন অধিকারীর মেয়ে।
হাসপাতালে আহত শিউলি অধিকারী বলেন, গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে পারিবারিকভাবে তাদের বিবাহ হয়। বিয়ের কয়েক মাস পরে স্বামী তার উপর যৌতুকের জন্য শারীরিক নির্যাতন শুরু করে। এ সময় শিউলির বিষয়টি তার বাবাকে জানালে আড়াই লাখ টাকা দিলে নির্যাতন কিছু দিনের জন্য থামে। পরে শিউলি জানতে পারে তার স্বামী গাইবান্ধায় থাকাকালে আরও একটি বিয়ে করেন। সেই বৌয়ের পরামর্শে তার উপরে নির্যাতন ও যৌতুকের জন্য চাপ দেয় স্বামী। এ ঘটনায় যশোর নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতে স্বামী চৈতন্যের নামে যৌতুক মামলা করা হয়। গত অক্টোবর মাসে স্বামী আদালতে তার ভুল শিকার করে আদালতে ক্ষমা চেয়ে স্ত্রীকে নিজ ঘরে নিয়ে যান। এর পরে নভেম্বর মাসের ১৫ তারিয়ে শিউলির উপরে আবারও যৌতুকের জন্য নির্যাতন শুরু করেন। শিউলি আরও জানান, পিতার কাছ থেকে দুই লাখ টাকা আনতে না পারলে ঘরের তিনটি গরু নিয়ে আসতে বলে। এতে শিউলি রাজি না হওয়ার কারণে মঙ্গলবার রাতে চুলার আগুনে রড জ্বালিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছ্যাঁকা দিয়ে পুড়িয়ে জখম করে। এ সময় শিউলি চিৎকার করলে প্রতিবেশীরা বাড়িতে আসলে স্বামী পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। জরুরি বিভাগের চিকিৎসক অমিয় দাস জানান, আহত শিউলির হাতের বাহুতে, পিঠেসহ বিভিন্ন স্থানে ঝলছে গেছে।

 

শেয়ার