যশোরের বিভিন্ন অভিযোগে ৮টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে লক্ষাধিক টাকা জরিমানা

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে বিভিন্ন অভিযোগে ৮টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে এক লাখ ৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। বুধবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত এই অভিযানের নেতৃত্ব দেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর যশোরের সহকারী পরিচালক ওয়ালিদ বিন হাবিব। এসময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন কনজুমারস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) এর প্রতিনিধি আব্দুর রকিব সরদার এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, এদিন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বাজার তদারকি করে যশোর শহর ও শহরতলীর বারীনগর বাজারে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের একটি টিম। এসময় বারীনগর বাজারের মেসার্স হাসান সীড ট্রেডার্সে মেয়াদোত্তীর্ণ কীটনাশক, প্যাকেটজাত সার বিক্রি ও সংরক্ষণ এবং মূল্য তালিকা না থাকায় ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
একই বাজারের মেসার্স সুফলা বীজ ভান্ডারে মেয়াদোত্তীর্ণ কীটনাশক বিক্রি ও সংরক্ষণের অভিযোগে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এরপর চয়ন স্টোরে মূল্য তালিকা না থাকায় এক হাজার টাকা এবং মেসার্স সাগর ফার্টিলাইজারে মেয়াদোত্তীর্ণ কীটনাশক বিক্রি ও সংরক্ষণের অভিযোগে ৪ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এরপর শহরের তপন ভ্যারাইটি স্টোরে ক্ষতিকর কাপড়ের রঙ অনুমোদনহীন ও নকল প্যাকেট (আইসক্রিমের জন্য) এবং মেয়াদোত্তীর্ণ ফ্লেভার বিক্রি ও সংরক্ষণের অভিযোগে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এরপর রিপন স্টোরে অনুমোদনহীন ও নকল প্যাকেট (আইসক্রিমের জন্য) এবং মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য বিক্রি ও সংরক্ষণের অভিযোগে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।
এরপর বিনিময় স্টোরে ক্ষতিকর কাপড় ও কাঠের রঙ, উৎপাদন, মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ না থাকা, লেবেলবিহীন ফ্লেভার বিক্রি ও সংরক্ষণের অভিযোগে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এরপর মেসার্স ভোলা নাথ স্টোরে অভিযান চালিয়ে ক্ষতিকর কাপড়ের রঙ, উৎপাদন ও মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ না থাকা, লেবেলবিহীন ফ্লেভার বিক্রি ও সংরক্ষণের অভিযোগে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

শেয়ার