লোহাগড়ায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়েরকৃত মামলাটি হিমাগারে!

লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি॥ লোহাগড়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছবি বিকৃত করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করার অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়েরকৃত মামলাটি হিমাগারে চলে গেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ওই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মূল হোতা ছাত্রদল নেতা মামুনকে আটক করে রিমান্ডে এনে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করলেও তার সহযোগিরা রয়েছে ধরা ছোঁয়ার বাইরে। বাদী সহ দলীয় নেতা- কর্মীদের দাবি, ছাত্রদল নেতা মামুনের সহযোগিদের আইনের আওতায় আনতে হবে।

দায়েরকৃত এজাহার সূত্রে জানা গেছে, নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও ইতনা গ্রামের ফুল মিয়া শিকদারের ছেলে মামুন শিকদার গত ৪ অক্টোবর তার নিজস্ব ফেসবুক এ্যাকাউন্টে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছবি বিকৃত করে পোস্ট করে। বিষয়টি নজরে আসলে ছাত্রলীগ লোহাগড়া উপজেলা শাখার সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক সৈয়দ আহসান হাবিব গিয়াস বাদী হয়ে লোহাগড়া থানায় ১২ অক্টোবর মামুনকে প্রধান আসামী করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ১২, ১২/১০/২০২০ইং।

এদিকে মামুনের নামে মামলা দায়েরের পর গ্রেফতার এড়াতে সে অজ্ঞাত স্থানে চলে যায়। এরপর অভিযুক্ত মামুন নড়াইলের আমলী আদালতে স্বেচ্ছায় আত্মসমর্পন করলে বিজ্ঞ আদালত তার জামিন না মঞ্জুর করে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করেন। এরপর তদন্তকারী কর্মকর্তা ও লোহাগড়া থানার এস.আই মিহির কুমার ১২ নভেম্বর আসামী মামুনকে দুই দিনের রিমান্ডে এনে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে জেল হাজতে প্রেরণ করেন। এ ব্যাপারে তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই মিহির বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে মামুন অনেক গুরুত্বপূর্ন তথ্য দিয়েছে, মামলার তদন্তের স্বার্থে তা এখনি প্রকাশ করা যাচ্ছে না। মামলাটি এখনো তদন্তাধীন রয়েছে। খুব শিঘ্রই এ মামলার চার্জশিট আদালতে দাখিল করা হবে।

এদিকে বাদী সৈয়দ আহসান হাবিব গিয়াসসহ দলীয় নেতা-কর্মীদের দাবি, ছাত্রদল নেতা মামুনের সহযোগিদের অবিলম্বে আইনের আওতায় আনতে হবে।

 

শেয়ার