ক্রিকেটের পর ফুটবলেও ‘ইয়ো ইয়ো টেস্ট’

সমাজের কথা ডেস্ক॥ খেলোয়াড়দের ফিটনেস সম্পর্কে আরও ভালো ধারণা পেতে বিপ টেস্ট থেকে সরে ইয়ো ইয়ো টেস্ট চালু করেছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন। প্রাথমিক ফলে সন্তুষ্ট জাতীয় দলের ফিটনেস কোচ ইভান র্যাজলগ।

কাতারের বিপক্ষে খেলতে বর্তমানে দোহায় আছেন জামাল ভূইয়া, মামনুল ইসলামরা। সোমবার ইয়ো ইয়ো টেস্ট দিয়েছেন তারা। পরে এক ভিডিও বার্তায় ইভান জানান, খেলোয়াড়দের ফিটনেস সম্পর্ক আরও স্পষ্ট ধারণা পেতে বিপ টেস্টের জায়গায় আনা হয়েছে এই পরিবর্তন।

“এর আগে আমরা বিপ টেস্ট করাতাম। তার চেয়ে এটা আরও নির্ভরযোগ্য। আজ যে ডেটা দেখেছি তাতে খেলোয়াড়রা এখন যে অবস্থায় আছে তাতে আমি খুশি। উন্নতির প্রয়োজন নিয়ে এখন কোচের সঙ্গে কথা বলব। সে অনুযায়ী আমাদের অনুশীলন সেশনগুলো হবে। আজ আমরা একটা জিম সেশন করেছি। আশা করছি, চার দিনের মধ্যে ছেলেরা খুব ভালো অবস্থায় থাকবে।”

গত মাসে বাংলাদেশের ক্রিকেটেও চালু হয়েছে ইয়ো ইয়ো টেস্টে। বিপ টেস্ট ও ইয়ো-ইয়ো টেস্ট অনেকটা কাছাকাছিই। মূল পার্থক্য, বিপ টেস্টে বিভিন্ন ধাপে দৌড়াতে হয় টানা। ইয়ো-ইয়ো টেস্টে বিভিন্ন ধাপের মধ্যে ৫-১০ সেকেন্ড বিরতি নেওয়ার সুযোগ থাকে, তবে ধাপগুলোতে পর্যায়ক্রমে কমে আসে দৌড়ানোর সময়।

আগামী ৪ ডিসেম্বর ২০২২ বিশ্বকাপ ও ২০২৩ সালের এশিয়ান কাপের বাছাইয়ের প্রিলিমিনারি রাউন্ডের দ্বিতীয় ধাপের ম্যাচে কাতারের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। প্রথম লেগে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে দলটির বিপক্ষে ২-০ গোলে হেরেছিল তারা।

শেয়ার