যশোর বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদ সম্পাদক রাসেল হত্যা মামলার তিন আসামির রিমান্ড মঞ্জুর

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদ জেলার সাধারণ সম্পাদক সাব্বির আহম্মেদ রাসেল হত্যা মামলার তিন আসামিকে একদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। মঙ্গলবার জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুদ্দীন হোসাইন এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
আসামিরা হলো, সদর উপজেলার ভেকুটিয়া গ্রামের রুহুল আমিনের ছেলে সেলিম মিয়া, বাঁশবাড়িয়া গ্রামের মোশারেফ হোসেনের ছেলে আশিক হোসেন ও দুলাল হোসেনের ছেলে আজাদ হোসেন। একই সাথে এই মামলার আসামি আরবপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক সদস্য বালিয়া ভেকুটিয়া গ্রামের শাহাদত হোসেনের ছেলে শহিদুজ্জামান শহীদ, একই গ্রামের সেকেন্দার আলীর ছেলে খাইরুল ইসলাম, আবু তাহেরের ছেলে সবুজ হোসেন, শাহাদত হোসেনের ছেলে শামীম হোসেন, আয়নাল মিয়ার ছেলে মোহাম্মদ আলমগীর, বাঁশবাড়িয়া গ্রামের মোসলেম সরদারের ছেলে রমজান সরদারের রিমান্ড নামঞ্জুর করা হয়েছে।
গত ১৫ এপ্রিল বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদের যশোর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক সাব্বির আহমেদ রাসেলকে কুপিয়ে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। তিনি বালিয়া ভেকুটিয়া গ্রামের সালেক মৃধার ছেলে। সন্ত্রাসীদের হামলা ঠেকাতে গিয়ে রাসেলের বড় ভাই আল-আমিন মারাত্মক জখম হন।
এই ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে ২৪ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরো ৭/৮ জনের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করেন। পুলিশ হত্যার সাথে জড়িত অভিযোগে পরের দিন ওমর আলী, ইমদাদুল হক, এমএ রিজাউল ইসলাম ও সাগরসহ চারজনকে আটক করে। এর মধ্যে সাগর হত্যাকা-ে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেন। এরপর আসামি শাহিন আলমকে আটক করে পুলিশ। এই মামলার অন্যতম আসামি মাহাবুবুর রহমান ওরফে পিচ্চি বাবু আদালতে স্বীকার করে জবানবন্দি দেন। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ১৯ জন রাসেলকে হত্যা করা হয়েছে বলে উল্লেখ করেছে। এদিকে মামলার ৯ আসামি দির্ঘদিন পলাতক থাকার পর গত ২২ অক্টোবর আদালতে আত্মসমর্পণ করলে আদালত তাদেরকে জেলহাজতে প্রেরণের আদেশ দেন। গতকাল মঙ্গলবার শুনানি শেষে বিচারক তিনজনের একদিন করে রিমান্ড করেন আর বাকিদের রিমান্ড নামঞ্জুর করেছেন।

শেয়ার