পাইকগাছা পৌর সদরে সড়কের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের নির্দেশ

মোঃ আব্দুল আজিজ, পাইকগাছা ॥ অবশেষে পাইকগাছা পৌর সদরের জিরোপয়েন্ট সংলগ্ন সড়কের দু’পাশের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের উদ্যোগ নিয়েছেন স্থানীয় প্রশাসন। আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক ইতোমধ্যে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ১২ ঘন্টার মধ্যে নিজ খরচে সকল অবৈধ স্থাপনা অপসারণ করার জন্য সকল দখলকারীকে নোটিশ দেয়া হয়েছে। নোটিশ প্রাপ্তির ৬দিনের মধ্যে এখনও কোন স্থাপনা উচ্ছেদ না করায় প্রশাসন থেকে দ্রুত উচ্ছেদ অভিযান শুরু করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ জানিয়েছে।
উল্লেখ্য পৌরসভার জিরোপয়েন্ট থেকে শিববাটি ব্রিজ পর্যন্ত সড়ক ও জনপদ বিভাগের সড়কের দু’পাশের সরকারি জায়গার উপর গড়ে উঠেছে অবৈধ স্থাপনা। ভূমি অফিসের আব্দুল বারি জানান, খুলনা-পাইকগাছা-কয়রা রুটের গুরুত্বপূর্ণ সড়কটি নির্মাণের সময় ১শ’ ফুট প্রশ্বস্থের জমি অধিগ্রহণ করা হয়। ১৫ থেকে ২০ ফুট জায়গার উপর মূল সড়ক রয়েছে। সড়ক বাদে দু’পাশে কমপক্ষে ৮০ ফুট জায়গা অতিরিক্ত রয়েছে। সড়কের দু’পাশের সরকারি এই জায়গা বর্তমানে অবৈধ দখলকারীদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। অবৈধ দখলকারীরা সড়কের এ জায়গার উপর হোটেল, রেস্তোরা বিভিন্ন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছে। অনেকেই নির্মাণ করেছেন বসতবাড়ি। খুলনা বিভাগীয় বাস মালিক সমিতির পাইকগাছা রোড কমিটির সদস্য সচিব মোঃ আব্দুল গফফার মোড়ল জানান, সড়কের দু’পাশের যে জায়গা রয়েছে সব জায়গা এখন অবৈধ দখলকারীদের দখলে। অবৈধ স্থাপনার জন্য আমরা বাসগুলো সড়কের পাশে রাখতে পারি না। আমাদের এখানে কোন টার্মিনাল নেই। অবৈধ স্থাপনা না থাকলে আমরা বাসগুলো ওই সব জায়গার উপর রাখলে কোন যানজট সৃষ্টি হতো না। এসব অবৈধ স্থাপনার ফলে একদিকে যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। অপর দিকে জিরোপয়েন্টের মতন গুরুত্বপূর্ণ স্থানের পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। দীর্ঘদিন গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা হস্তান্তর করেও অনেকেই হাতিয়ে নিয়েছেন মোটা অংকের টাকা। অবশেষে দীর্ঘদিন পর হলেও আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক এসব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের উদ্যোগ নিয়েছেন স্থানীয় প্রশাসন। হাইকোর্ট বিভাগে দায়েরকৃত ১৫৪৬/২০১১ নং রিট পিটিশনের প্রেক্ষিতে উচ্চ আদালত ৭/১২/২০১৫ তারিখে কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া মহাসড়ক বা তার স্লোপে বা কোন অংশে অস্থায়ী বা স্থায়ীভাবে নির্মিত হাটবাজার বা দোকান উচ্ছেদ করতে হবে এবং মহা সড়কের ১০ মিটারের মধ্যে কোন হাট বাজার ও বাণিজ্যিক স্থাপনা তৈরীর অনুমতি দেয়া যাবে না মর্মে রায় দেয়। আদালতের এই রায়ের আলোকে মহাসড়কে যানচলাচল ব্যবস্থাপনা সম্পর্কিত ২৫ দফা নির্দেশনা বাস্তবায়ন ও হালনাগাদ তথ্য প্রেরণের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের আইন-১ শাখার সহকারী সচিব মোঃ মফিজুল ইসলাম বিভাগীয় কমিশনার খুলনাকে নির্দেশনা প্রদান করে। নির্দেশনাটি জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক জিয়াউর রহমান ১৫/১০/২০২০ তারিখ পাইকগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে প্রদান করেন। ইউএনও এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকীর নির্দেশনা মোতাবেক সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুহাম্মদ আরাফাতুল আলম ২২/১০/২০২০ তারিখ জিরোপয়েন্ট সংলগ্ন সড়কের দুপাশের সকল অবৈধ দখলকারীকে ১২ ঘন্টার মধ্যে সড়ক বা তার স্লোপে অথবা সড়কের ১০ মিটারের মধ্যে সরকারি জায়গায় অবৈধভাবে নির্মিত দোকান ঘর/বসতি ঘর, নিজ খরচে অপসারণ করার জন্য নির্দেশনা দিয়ে নোটিশ প্রদান করেছেন। তবে নোটিশ পাওয়ার পর এখনো কাউকে কোন স্থাপনা উচ্ছেদ করতে দেখা যায়নি। শহিদুল ইসলাম ও প্রদীপ জানান, আমরা দু’জনে মিলে একটি ফলের দোকান দিয়েছি। প্রশাসনের নির্দেশনা পেয়েছি কিন্তু এসব মালামাল নিয়ে এখন আমাদের যাওয়ার কোন জায়গা নাই। শেখ তরিকুল ইসলাম লিটন জানান, সরকারি জায়গা আমরা ছেড়ে দিতে বাধ্য। তবে আমাদের ব্যবসা করার জন্য অল্প একটু করে জায়গা দিলে আমরা সবাই উপকৃত হতাম। প্রশাসন থেকে যখন ভেঙ্গে দিবে তখন আমরা চলে যাবো বলে অনেকেই জানান। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী জানান, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কেউ যদি অবৈধ স্থাপনা অপসারণ না করে তাহলে প্রশাসনের পক্ষ থেকে খুব দ্রুত সময়ের উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করার মাধ্যমে সকল অবৈধ স্থাপনা অপসারণ করা হবে।

শেয়ার